দীর্ঘ মেয়াদে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের প্রস্তাব পারভেজ মোশাররফের

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭, সোমবার
পাকিস্তানের চলমান সংকট সমাধানের জন্য দীর্ঘ মেয়াদে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের প্রস্তাব দিয়েছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট জেনারেল (অব.) পারভেজ মোশাররফ। সুপ্রিম কোর্ট কর্তৃক অনুমোদিত এই সরকার গঠন করা হবে সাংবিধানিক সংস্কারের জন্য। তার মতে, সঙ্কট সমাধানে এটিই একমাত্র উপায়। শনিবার করাচি ভিত্তিক টিভি চ্যানেল ডন নিউজকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন পারভেজ মোশাররফ। তিনি বলেন, প্রস্তাবিত টেকনোক্রেট অন্তর্বর্তী সরকারকে প্রয়োজনীয় সময় দেয়া উচিত, যেন তারা দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনীতিবিদদের জবাবদিহিতার আওতায় নিয়ে আসতে পারে। তিন বা ছয় মাসের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য অন্তর্বর্তী সরকারকে সময় নির্দিষ্ট করে দেয়া উচিত না।
তার মতে, সময় বেঁধে দেয়া হলে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের মূল উদ্দেশ্য অর্জিত হয় না। সম্প্রতি পাকিস্তানের ন্যাশনাল এসেম্বলি’র স্পিকার আয়াজ সাদিক ক্ষমতাসীন সরকারের ভবিষ্যতের বিষয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেন। এই বিষয়ে মোশাররফ বলেন, বর্তমান সরকার তার মেয়াদ পূর্ণ করবে না। এ সময় তিনি বহিষ্কৃত পিএমএল-এন সরকারের পক্ষ নেন। দলটির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, নওয়াজকে ক্ষমতাচ্যুত করার পেছনে সেনাবাহিনীর হাত রয়েছে। এই বিষয়ে জানতে চাইলে মোশাররফ বলেন, এই বিষয়ে তিনি পরিষ্কার কিছু জানেন না। তার মতে, যেসব রাজনীতিবিদ ক্ষমতাচ্যুতির ঘটনায় সেনাবাহিনীর ভূমিকা আছে বলে মন্তব্য করেন, তারা অপদার্থ ও দুর্নীতিগ্রস্ত। তিনি এসব রাজনীতিবিদের বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ তোলেন। বলেন, দুর্নীতিগ্রস্ত এসব রাজনীতিবিদরাই সেনাবাহিনীকে ক্ষমতা গ্রহণে বাধ্য করেন। বর্তমান সরকার তার মেয়াদ পূর্ণ না করলে তা দেশের জন্য ভালো হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। মোশাররফ বলেন, ‘আমি মনে-প্রাণে ক্ষমতাসীন সরকারের বিদায় চাই।’ দেশকে সঠিক পথে ফিরিয়ে আনার জন্য একটি অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠন করা প্রয়োজন। তার মতে, জনগণ
প্রত্যাখ্যান না করা পর্যন্ত কোনো রাজনীতিবিদকে বহিষ্কার করা যায় না। নওয়াজের ক্ষমতাচ্যুতির প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘এই ঘটনা বিচার বিভাগ ও নির্বাহী বিভাগের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি করবে।’ সাক্ষাৎকারে পাকিস্তানের অন্যতম রাজনৈতিক দল তেহরিক-ই-ইনসাফের চেয়ারম্যান ইমরান খানের প্রশংসা করেন সাবেক এই প্রেসিডেন্ট। বলেন, বর্তমান সময়ের রাজনীতিবিদদের মধ্যে জনগণকে আকৃষ্ট করার ‘ক্যারিশমা’ শুধু ইমরান খানেরই আছে। বিচার বিভাগের ভূমিকার বিষয়ে তিনি বলেন, দেশে ইতিবাচক পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য কেউই সামরিক আইন জারি করার কথা বলেন না। জনগণ তাকিয়ে থাকে সুপ্রিম কোর্টের দিকে। তাই সঙ্কট সমাধানে সুপ্রিম কোর্টকেই একটি উপায় বের করতে হবে। এ সময় তিনি কোনো অভিযুক্ত ব্যক্তি যেন রাজনৈতিক দলের প্রধান হতে না পারেন, সে বিষয়ে আইন প্রণয়ন করার জন্য সুপ্রিম কোর্টের প্রতি আহ্বান জানান।
তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের উচিত এই বিষয়টিকে অবৈধ ও অসাংবিধানিক ঘোষণা করা। তার মতে, বর্তমান আইনের অধীনে দেশে কোনো ইতিবাচক পরিবর্তন সম্ভব না। মোশাররফ নিজের শাসনামল নিয়েও কথা বলেন। নিজে দেশের আইন ও সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন বলেও স্বীকার করেন। নিজের চিন্তা-ভাবনা ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার বিষয়ে বলেন, আমাদের আরো প্রদেশ তৈরি করা উচিত। দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য ভালোভাবে পরিচালনা করার জন্য এটা অপরিহার্য। ভবিষ্যতে তিনি একটি বহুজাতিক দল গঠন করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। যার মাধ্যমে ‘পাকিস্তানিজম’ বা পাকিস্তানি জাতীয়তাবাদের প্রচার করা হবে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ব্যাংক কোম্পানি আইন পাস, জাপার ওয়াকআউট

২০ হাজার টাকায় ১ বছর ক্লাস, অতঃপর...

শাম্মী আখতারের মৃত্যুতে শোবিজ অঙ্গনে শোকের ছায়া

ট্রেনে কাটা পড়ে রেলওয়ে কর্মকর্তার মৃত্যু

শাম্মী আখতারের জানাজা কাল বাদ জোহর

আইভী-শামীম সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত অর্ধশত

শাম্মী আখতার আর নেই

স্বামী হত্যায় স্ত্রীসহ ৩ জনের ফাঁসির রায়

‘নির্বাচন সুষ্ঠু হলে বিপুল ভোটে জিতবে তাবিথ’

‘মিথ্যা মামলায় খালেদার কোনো ক্ষতি হবে না, জনপ্রিয়তা বাড়বে’

ডিএনসিসি উপনির্বাচন স্থগিত চেয়ে রিট, আদেশ বুধবার

জেলপলাতক ৩ বাংলাদেশিকে এখনো ধরা যায়নি, সীমান্তে নজরদারি

অনশন ভাঙলেন ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষকরা

পুতিনই হবেন রাশিয়ার পরবর্তী প্রেসিডেন্ট

শেকলে বাঁধা সন্তান, উদ্ধার ১৩, গ্রেপ্তার পিতামাতা

মার্কিন কূটনীতিকদের তলব করেছে আফ্রিকার ৫ দেশ