উৎসবের আমেজে সারাদেশ

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭, শনিবার, ৫:২৯ | সর্বশেষ আপডেট: ৫:৩২
আজ ১৬ই ডিসেম্বর। মহান বিজয় দিবস। রাজধানীসহ দেশে সর্বত্র যথাযথ মর্যাদায় ও ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনায় পালিত হচ্ছে দিনটি। দেশজুড়ে উৎসবের আমেজ লক্ষ্য করা গেছে। নানা কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপন করছেন দেশের মানুষ।
সকাল থেকেই ঢাকার রাজপথে চলছে লাল-সবুজের মেলা। বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার রঙে সেজেছে বাঙালি নারী থেকে শুরু করে ছোট্ট শিশুটিও।
কেউ সবুজ শাড়ি, কেউ সবুজ কামিজ কিংবা সবুজ পাঞ্জাবি পরে বেড়িয়ে পড়েছেন প্রিয়জনদের সঙ্গে। রিকশা, সাইকেল, মোটরসাইকেল, বাস কিংবা ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে সবাই মেতেছেন উৎসবের রঙে। কেউ হাতে পতাকা নিয়ে কেউবা গালে কিংবা কপালে পতাকা আঁকছেন।
চট্টগ্রাম সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সর্বস্তরের মানুষ জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শহীদ মিনারে আসা মানুষের কারও হাতে ব্যানার, কারও হাতে প্ল্যাকার্ড, আবার কেউ নিয়েছেন স্বাধীন বাংলার লাল সবুজ পতাকা, সবাই যেন মিলেছেন এক মোহনায়, শহীদ মিনারে। নগরীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষের ¯্রােত যেন মিশে গেছে সেই একই মোহনায়। প্রতিবছর বিজয় দিবসের প্রথম প্রহরে রাত ১২টা ০১ মিনিটে শহীদ মিনারে শহীদদের ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানালেও এবার জানানো হয় ১৬ ডিসেম্বর সকালে। প্রথমে নগর পুলিশের একটি চৌকস দলের সশস্ত্র অভিবাদন প্রদানের মধ্য দিয়ে বিজয় দিবসের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।
লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে উপজেলা প্রসাশনের পক্ষ থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। সকাল ১০টায় রামগঞ্জ জিয়া অডিটোরিয়ামে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু ইউসুফের সভাপতিত্বে ও সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আমিনুল ইসলাম ও পিআইও মোঃ বোরহান উদ্দিনের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য লায়ন এম এ আউয়াল এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আনোয়ার খান মর্ডান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ড.আনোয়ার হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাড. সফিক মাহমুদ পিন্টু, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আকম রুহুল আমিন, পৌরসভা মেয়র আবুল খায়ের পাটোয়ারী, বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগী ফরিদ আহম্মেদ ভূঁইয়া, সাবেক মুক্তিযুদ্ধা কমান্ডার তোপাজ্জল হোসেন বাচ্চু, থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ তোতা মিয়া, ভাইস চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চু, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুরাইয়া আক্তার শিউলী, সাবেক মেয়র বেলাল আহম্মেদ, লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের সদস্য সৈকত মাহমুদ সামছু, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল হাসান ফয়সাল মাল, সাধারন সম্পাদক মেহেদী হাসান শুভ প্রমূখ।
খুলনায় প্রত্যুষে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ লাইনে ৩১বার তোপধ্বনির মধ্যদিয়ে বিজয় দিবসের সূচনা করা হয়। সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সরকারি, আধাসরকারি, সায়ত্ত্বশাসিত এবং বেসরকারি ভবন ও প্রতিষ্ঠানসমূহে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ও সড়ক দ্বীপসমূহ জাতীয় পতাকা দ্বারা সজ্জিত করা হয়। সকাল সাড়ে ৮টায় খুলনা জেলা স্টেডিয়ামে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন খুলনা বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া। পরে সেখানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন বাহিনী/প্রতিষ্ঠানের বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠান ও শরীরচর্চা প্রদর্শনী হয়। প্রদর্শনীতে বিভাগীয় কমিশনার প্রধান অতিথি হিসেবে সালাম গ্রহণ করেন।এসময় খুলনা রেঞ্জ ডিআইজি দিদার আহম্মদ, পুলিশ কমিশনার হুমায়ুন কবির, পুলিশ সুপার নিজামুল হক মোল্যা বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।


হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় যথাযোগ্য মর্যাদায় বিজয় দিবস উদযাপন করা হয়েছে। দিবসের প্রথম প্রহরে রাত ১২ টা ১ মিনিটে বৃহত্তর সিলেটের প্রথম শহীদ মুক্তিযোদ্ধার সমাদিস্থলে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবদনের মধ্যে দিয়ে দিবসের কার্যক্রম শুরু হয়। শুরুতেই শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করে পৌরপরিষদ। পর্যাক্রমে আওয়ামী লীগ, পুলিশ প্রশাসন, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, প্রেসক্লাব ও অন্যান্য সামাজিক,সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধানিবেদন করা হয়।
কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলায় যথাযোগ্য মর্যাদায় ৪৬তম বিজয় দিবস উদ্যাপিত হয়েছে। দিবসটি উদ্যাপন উপলক্ষ্যে স্থানীয় প্রশাসন দিনভর নানা কর্মসূচী পালন করে। সূর্যদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনীর মাধ্যমে দিবসের সূচনা করা হয়। এর পরপরই উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুস্পমাল্য অর্পন করেন উপজেলা চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার বীরবিক্রম ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মির্জা মুরাদ হাসান বেগ এসময় উপজেলা পরিষদ, প্রশাসন ও চিলমারী মডেল থানার অফিসারবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উপজেলা প্রশাসনের পরপরই আওয়ামীলীগসহ তাদের অঙ্গসংগঠন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড চিলমারী, জাতীয় পার্টি তাদের অঙ্গসংগঠন, বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন, স্কুল-কলেজ, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনগুলো শহীদ মিনারে পুস্পমাল্য অর্পন করেন। পরে উপজেলা বিএনপি ও সকল অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুস্পমাল্য অর্পন করে এসময় সাবেক এমপি ও উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আঃ বারী সরকার, সাধারন সম্পাদক আঃ মতিন সরকার শিরিন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা প্রশাসন রাত ১২টা ১ মিনিটে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে দিনের শুভ সূচনার পর শনিবার সকালে মিরপুর কেন্দ্রীয় স্মৃতিসৌধে উপজেলা প্রশাসন পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। এরপর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, মিরপুর প্রেস ক্লাব, মহিলা ক্লাব, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তানসহ বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। পুস্পস্তবক অর্পণ শেষে সকাল সাড়ে ৮টায় মিরপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বিভিন্ন বাহিনী ও স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা কুচকাওয়াজ ও শারীরিক কসরত প্রদর্শন করে। কুচকাওয়াজের সালাম গ্রহণ করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক কামারুল আরেফিন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম জামাল আহমেদ ও মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম। এসময় রাজনৈতিক, মুক্তিযোদ্ধা ও শহরের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
টাঙ্গাইলের মধুপুরে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস পালিত হয়েছে। গতকাল শনিবার উপজেলা প্রশাসন’র আয়োজনে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন মধুপুর রানী ভবানী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মনোমুগ্ধকর কুচকাওয়াচ প্রদর্শন করেন। সকালে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে দিনাজপুরের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি স্তম্ভ ও চেহেলগাজী মাজারে স্মৃতিসৌধে একাত্তরের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী এ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এবং জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম,জেলা প্রাশাসক মীর খায়রুল আলম,পুলিশ সুপার হামিদুল আলমসহ সর্বস্তরের মানুষ। শনিবার ভোর সাড়ে ছয়টায় তারা শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি স্তম্ভ ও চেহেলগাজী মাজারে স্মৃতিসৌধের বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় । এছাড়াও মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে দিনাজপুরে কুজকাওয়াজ,মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা, আলোচনাসভা,সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেছে জেলা প্রশাসন,হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়,শিক্ষা বোর্ড,দিনাজপুর প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন সংগঠন।
জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদনে লোকারণ্যে রূপ নিয়েছে ময়মনসিংহের মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিসৌধ। বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদমুক্ত রাখতে বিজয়োল্লাসে মুখর হয়ে উঠেছে গোটা স্মৃতিসৌধ এলাকা।
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে শনিবার ভোরে আনুষ্ঠানিকতার শুরুতেই মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিসৌধে স্বাধীনতার জন্য আত্মোৎস্বর্গকারী শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ধর্মমন্ত্রী প্রিন্সিপাল মতিউর রহমান।
এরপর পর্যায়ক্রমে ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার জি.এম.সালেহ উদ্দিন, পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি, জেলা প্রশাসক (ডিসি) খলিলুর রহমান নিবেদন করেন শ্রদ্ধার্ঘ্য।
পৃথকভাবে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল হক খোকা, মহানগর যুবলীগের আহবায়ক মোহাম্মদ শাহীনুর রহমান প্রমুখ।
[এমকে]

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ভিডিও দেখে অস্ত্রধারীদের খোঁজা হচ্ছে

‘অতিষ্ঠ হয়ে প্রেমিককে ছুরিকাঘাত’

ফল প্রকাশের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, অবরোধ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সময় লাগবে ৯ বছর!

মত প্রকাশের স্বাধীনতা সীমিত, আক্রমণের শিকার নাগরিক সমাজ

মেয়র আইভী হাসপাতালে

জিয়াউর রহমানের ৮২ তম জন্মবার্ষিকী আজ

এবার আটকে গেল দক্ষিণের ১৮ ওয়ার্ডের নির্বাচনও

হাথুরুকে দেখিয়ে দেয়ার লড়াই

‘আপনার এত তাড়াহুড়া কিসের?’

সংবাদটি আমাকেও শোকে মুহ্যমান করে ফেলে

‘নেতৃত্ব তৈরির প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করতেই ছাত্র সংসদ নির্বাচন বন্ধ রাখা হয়েছিল’

৬ মাসের প্রাণ পেলো যশোর রোডের গাছগুলো

সিলেটে রাজনীতির আড়ালে সক্রিয় ‘চিহ্নিত’ অপরাধীরা

‘নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে ৮০ শতাংশ ভোট পাবে বিএনপি’

কাজাখস্তানে বাসে আগুন লেগে ৫২ জনের মৃত্যু