উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক সক্ষমতার মাত্রা কতোটা?

বিশ্বজমিন

নাজমুস সাদাত পারভেজ | ৭ ডিসেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৮:৪৫
২০০৪ সালে যখন স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যান্ড কোঅপারেশনের একদল প্রতিনিধি উত্তর কোরিয়ার ইয়ংবন নিউক্লিয়ার সায়েন্টিফিক রিসার্চ সেন্টার পরিদর্শন করেন, তখন তাদেরকে একটি সিল করা পাত্রে প্লুটোনিয়াম ধাতু দেখানো হয়- যা পারমাণবিক বোমা তৈরির অন্যতম উপাদান। এর মাধ্যমে তখন উত্তর কোরিয়া বোঝাতে চেয়েছিলো যে দেশটি পারমাণবিক বোমা তৈরির সক্ষমতা অর্জন করেছে। গত সপ্তাহে ২৮০০ মাইল দূরত্বে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়ে উত্তর কোরিয়া বিশ্ববাসীকে সেই একই কথা জানান দিতে চেয়েছে- তাদের পারমাণবিক বোমা তৈরির সক্ষমতা আছে। দাবি করেছে পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে তারা যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে যে কোন সময় আঘাত হানতে সক্ষম। তবে বাস্তবতা আসলে কি? আসলেই কি এক সময়ের অনুন্নত এই দেশটি পারমাণবিক শক্তি অর্জনে অল্প সময়ের মধ্যেই এগিয়ে গেছে অনেক দূর?
সময়ের সঙ্গে সঙ্গে যখন উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কর্মকা- নিয়ে উত্তেজনা বাড়ছে, তার সঙ্গে ঘনীভূত হচ্ছে পারমাণবিক বিপর্যয়ের আশঙ্কা। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রা¤প এবং উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের মধ্যে একে অপরকে গুঁড়িয়ে দেবার হুমকি ধামকি দেয়া এখন বলতে গেলে একটি রোজকার ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে।
এ অবস্থায় এটি জানা জরুরি হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক সক্ষমতা আসলে কতখানি। এ বিষয়ে কথা বলেছেন স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যান্ড কোঅপারেশন দলের সিনিয়র ফেলো সেইফ্রেড এস হেকার। তিনি বলেন, ‘২০০৪ সালে যখন আমি উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক গবেষণা সংক্রান্ত স্থাপনা পরিদর্শন করি, সেই সময় আমি উত্তর কোরিয়া যে পারমাণবিক বোমা প্রস্তুত করতে পারে- এমন কোন নিদর্শন পাই নি। তবে সাম্প্রতিককালে উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কর্মকা- পরিদর্শন করতে গিয়ে এবং নানা তথ্য-উপাত্ত পর্যালোচনা করে এটি নিশ্চিতভাবে বলতে পারি যে, দেশটির পারমাণবিক সক্ষমতায় অভাবনীয় উন্নতি এসেছে। উত্তর কোরিয়া এখন পারমাণবিক কার্যক্রমে যথেষ্ট দক্ষতা রাখে’। ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে নানা পরীক্ষা নিরীক্ষার অভিজ্ঞতা এবং ১১ বছর ধরে চালিয়ে আসা আণবিক পরীক্ষার সমন্বয়ে যে দক্ষতা উত্তর কোরিয়া অর্জন করেছে তাতে এটা ¯পষ্ট প্রতীয়মান যে, দেশটি যে কোন সময় দক্ষিণ কোরিয়া বা জাপানকে পারমাণবিক হামলায় গুঁড়িয়ে দিতে পারে। তবে যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে আঘাত হানার যে দাবি বর্তমানে উত্তর কোরিয়া করছে, তার সত্যতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন সেইফ্রেড। তবে তিনি উল্লেখ করেন, যদিও ভেবে নেয়া হয়, উত্তর কোরিয়া এখনো যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে পারমাণবিক হামলা চালানোর সক্ষমতা অর্জন করতে পারে নি, তবুও বাস্তবতা হলো- যে পরিমাণ সক্ষমতা তারা অর্জন করেছে, সেটুকুই যুক্তরাষ্ট্রকে আতঙ্ককে নীল করে দেবার জন্যে যথেষ্ট। তিনি আরো বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের ভূখণ্ডে আঘাত হানার সক্ষমতা অর্জনে উত্তর কোরিয়ার আরো দুই বছর লাগতে পারে।
উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক সক্ষমতার মাপ  
একটি পূর্ণ কার্যকর পারমাণবিক বোমা তৈরির জন্যে অনেকগুলো জটিল এবং সূক্ষ্ম প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। যুক্তরাষ্ট্রের মতো সুদূর ভূখণ্ডে পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র হামলার জন্যে উত্তর কোরিয়াকে আণবিক ক্ষেপণাস্ত্রের উন্নয়নে অভুতপূর্ব সাফল্য অর্জন করা লাগতো। তবে সাম্প্রতিককালের নানা সফল পারমাণবিক পরীক্ষা নিরীক্ষা চালিয়ে উত্তর কোরিয়া বুঝিয়ে দিয়েছে যে তারা পারমাণবিক গবেষণা এবং উন্নয়নে কারো থেকে পিছিয়ে নেই। পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির মূল দুটি উপাদান হলো প্লুটোনিয়াম এবং ইউরেনিয়াম। জানা গেছে, এ মুহূর্তে উত্তর কোরিয়ার মজুদে রয়েছে ২০ থেকে ৪০ কেজির মতো প্লুটোনিয়াম, যা দিয়ে ৪ থেকে ৮ টি পারমাণবিক বোমা বানানো সম্ভব। অন্যদিকে ইউরেনিয়ামের মজুদ রয়েছে ২৫০ থেকে ৫০০ কেজির মতো, যা থেকে ১২-১৪ টি পারমাণবিক বোমা তৈরি করা সম্ভব। এছাড়াও ধারণা করা হয়, উত্তর কোরিয়ার রয়েছে হাইড্রোজেন বোমা তৈরির সক্ষমতা। হাইড্রোজেন বোমা তৈরির জন্যে প্রয়োজনীয় উপাদান ডিউটেরিয়াম, ট্রিমিয়াম এবং লিথিয়াম- এর যথেষ্ট মজুদ রয়েছে উত্তর কোরিয়ার।
২০০৬ সাল থেকে ভূগর্ভে ৬ টি পারমাণবিক পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া। এরমধ্যে, নিকট অতীতের দুটি পরীক্ষা নাড়িয়ে দিয়েছে বিশ্বকে। ওই দুটি পরীক্ষার একটি পারমাণবিক বোমা শক্তিতে হিরোশিমা-নাগাসাকিতে পারমাণবিক হামলায় ব্যবহৃত পারমাণবিক বোমার সমান বলে রেকর্ড করা হয়। তবে দ্বিতীয় পরীক্ষাটি ছিলো আরো ভীতি জাগানিয়া। এতে ব্যবহৃত বোমাটি প্রথমটির চেয়েও দশ গুন বেশি শক্তিশালী। উত্তর কোরিয়ার এ ধরণের শক্তিশালী বোমা তৈরির সক্ষমতা কি পর্যায়ের হতে পারে তা উল্লেখ করতে গিয়ে সেইফ্রেড বলেন, এ মুহূর্তে উত্তর কোরিয়ার হাতে থাকা মজুদ হিসেব করে ধারণা করা যায় যে, ওইরকম ২৫-৩০ টি বোমা তৈরি করার সব উপকরণ দেশটির হাতে রয়েছে। তারা প্রতি বছরে ৬-৭টি বোমা তৈরি করতে পারবে বলে মত দেন তিনি।  
অতীত থেকে বর্তমানে
উত্তর কোরিয়া অতীতে ক্ষেপণাস্ত্র এবং পারমাণবিক সক্ষমতায় অনেক পিছিয়ে ছিলো। আশির দশকের মধ্যভাগে স্বল্পপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির প্রচেষ্টা শুরু হয়। তবে দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রের ক্ষেত্রে দেশটির যে অগ্রগতি, তা গত অল্প কিছুদিনে। গত দুই বছরে উত্তর কোরিয়া ৪০টিরও বেশি মধ্য ও দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে। বর্তমানে পারমাণবিক সক্ষমতার পথে উত্তর কোরিয়ার এগিয়ে যাবার পথে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো- নানা ধরণের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষায় দেশটির উত্তরোত্তর সাফল্য। ২০১৪ সালের জুলাইয়ে ৩৪০০ মাইল দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম হাইসুং-১৪ নামের আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের সফল উৎক্ষেপণ করে উত্তর কোরিয়া। গত সপ্তাহে তার দ্বিগুণের চেয়েও বেশি শক্তিশালী হাইসুং-১৫ এর সফল উৎক্ষেপণ করে। ওই ক্ষেপণাস্ত্রটি ৮০০০ মাইল দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম বলে দাবি করেছে উত্তর কোরিয়া। যদি ওই দাবি সত্যি বলে ধরে নেয়া হয়, তবে যুক্তরাষ্ট্র এখন উত্তর কোরিয়ার হাতের নাগালে।
সার্বিকভাবে, বর্তমানে উত্তর কোরিয়ার যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে আঘাত হানার সক্ষমতার দাবির সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন থাকলেও, ওই পর্যায়ে উত্তর কোরিয়ার পৌঁছুতে খুব বেশি সময় লাগবে না বলেই ধারণা করা যায়।
(ফরেইন অ্যাফেয়ার্স অবলম্বনে)

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন