কামাল হোসেন মনে করেন এটা শুভ লক্ষণ

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ নভেম্বর ২০১৭, রবিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:৫০
গণফোরামের সভাপতি ও সংবিধানের অন্যতম প্রণেতা ড. কামাল হোসেন বলেছেন দীর্ঘদিন পর বিএনপি সোহ্‌রাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে পেরেছে। আওয়ামী লীগ গতকাল (শনিবার) নাগরিক সমাবেশ করেছে। দলগুলো  সক্রিয়ভাবে ভূমিকা পালন করছে এটিকে  আমরা স্বাগত জানাই । আমরা আশা করবো গণতান্ত্রিক পরিবেশের বিস্তৃতি আরো লালন করা হবে। শুধু এ দু’দল নয়, সকল দল যেন তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার যেটা সংবিধানে নিশ্চিত করা আছে তা ভোগ করতে পারে। বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ তৈরি করা থেকে শুরু করে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে একই মঞ্চে ছিলেন ড. কামাল হোসেন।
বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চে ভাষণকে ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যের প্রামাণ্য দলিল হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া নাগরিক সমাবেশের মঞ্চে আপনি নেই? এমন প্রশ্নের জবাবে কামাল হোসেন বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর কর্মী ছিলাম। আজকে তো আমি এই দলে নাই। ১৯৯৩ সালে আমি অন্য একটি  নতুন দল করেছি। আমরা আজকে যে রাজনীতি করছি সেখানে আমার মূল আবেদন হলো সকল মানুষের কাছে আমাদের মধ্যে যেসব মৌলিক বিষয়ে ঐকমত্য আছে সেগুলোকে কেন্দ্র করে আমারা জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলি। গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার জন্য, সংবিধানকে রক্ষা করার জন্য এবং সংবিধানের যে মূলনীতিগুলো আছে  সেগুলোকে রক্ষা করার জন্য। বিভিন্ন দল থাকবে। বহুদলীয় গণতন্ত্র আমরা বিশ্বাস করি। কিন্তু এর মধ্যে গণতন্ত্র, আইনের শাসন বিচার বিভাগের স্বাধীনতা এসব মৌলিক বিষয়গুলোতে আমরা ঐকমত্য থাকবো। আর কেউ যদি এগুলো পালন না করে। তাহলে আমি বলবো এসব পালন করা উচিত। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণে ছিল আজকের সংগ্রাম, স্বাধীনতার সংগ্রাম। স্বাধীনতাতো আমরা পেয়েছি। এটাতো ঐতিহাসিক অর্জন আমাদের। সংবিধানে লেখা আছে অর্থনৈতিক মুক্তি, সামাজিক ন্যায়বিচারের অধিকার কিভাবে আমরা ভোগ করবো। এই লক্ষ্যগুলো নিয়ে কোনো বির্তক নেই। সংবিধানে এটি বঙ্গবন্ধুর স্বাক্ষরিত দলিল। আমাদের সকলের দায়িত্ব রয়েছে এই লক্ষ্যগুলোকে অর্জন করার জন্য আমরা যথাযথভাবে সচেষ্ট থাকবো। আমরা যে জনগণের ঐক্যের কথা বলে যাচ্ছি অর্থনৈতিক মুক্তি, ন্যায় বিচারের জন্য এটি অপরিহার্য।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

hasantahear

২০১৭-১১-১৯ ১২:৪১:৩৯

1000% r8 sir

আপনার মতামত দিন

ভর্তি জালিয়াতি সন্দেহে রাবির দুই ছাত্রলীগ নেতা আটক

‘এটাও কিন্তু একটা চ্যালেঞ্জের বিষয়’

সৌদিই ব্যতিক্রম

তাদের কি বিবেক বলে কিছু নেই

ঢাকা উত্তরের উপনির্বাচন ফেব্রুয়ারিতে

যেভাবে উগ্রপন্থায় দীক্ষিত হয় আকায়েদ

স্বাস্থ্যসেবার ব্যয় মেটাতে দারিদ্র্যসীমার নিচে ৫ শতাংশ পরিবার

তারা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসটাকে হাইজ্যাক করে ফেলেছে

কুয়ালালামপুর বিমানবন্দর থেকে ৬০০ কর্মকর্তা প্রত্যাহার

আরো বেড়েছে দেশি পিয়াজের দাম

সময় চাইলেন ‘অসুস্থ’ বাচ্চু

ঢাকার আকাশে ঝড়ের ঘনঘটা

বিএনপির প্রচারণায় বাধার অভিযোগ

বিএনপির বিজয় র‌্যালি

ব্যবহারে বংশের পরিচয়

‘উন্নয়ন কথামালায়, মানুষ কষ্টে আছে’