রাবি’র অপহৃত ছাত্রী উদ্ধার

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী/রাবি প্রতিনিধি | ১৯ নভেম্বর ২০১৭, রবিবার
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে অপহৃত বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রীকে ৩০ ঘণ্টা পর স্বামীসহ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজশাহী মহানগর মুখপাত্র ও সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) এফতেখায়ের। তিনি বলেন, ঢাকা থেকে স্বামীসহ ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে। তারা এখন পুলিশি হেফাজতে আছে। রাজশাহীতে নিয়ে আসার প্রক্রিয়া চলছে। গতকাল বেলা ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে অপহৃত ছাত্রীকে উদ্ধারের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এসময় তারা দুপুরের মধ্যে অপহৃত ছাত্রীকে উদ্ধারসহ ৭ দফা দাবিতে প্রশাসনকে আল্টিমেটাম দিয়েছেন।
দাবি পূরণ না হলে কঠোর কর্মসূচির ঘোষণার হুঁশিয়ারি দেন।
অন্য দাবিসমূহ হলো- ক্যাম্পাসে সকল শিক্ষার্থীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, ছাত্রী হলগুলোর সামনে পুলিশের চেকপোস্ট বসানো, সব হলের গেটে এবং ক্যাম্পাসের সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা, ছাত্রী হলের সান্ধ্য আইন বাতিল করা, সব হলে অভিভাবক প্রবেশের অনুমতি দেয়া এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভাগগুলোকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের সুবিধা-অসুবিধার বিষয়টি বিবেচনা করা।
এর আগে সকাল ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের তাপসী রাবেয়া হল থেকে ছাত্রীরা বের হতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বাধার মুখে পড়েন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের  প্রো-ভিসি অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা সেখানে আসেন। তিনি ছাত্রীদের বলেন, ওই ছাত্রীর অবস্থান জানা গেছে। খুব তাড়াতাড়ি তাকে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে। আমরা বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখছি।
পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান তাপসী রাবেয়া হলে প্রবেশ করেন। অপহৃত ওই ছাত্রীকে দ্রুত ফেরত আনার আশ্বাস দিয়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন থেকে বিরত থাকতে পরামর্শ দেন। একপর্যায়ে বেলা পৌনে ১১টার দিকে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর নেতৃত্বে ৫০-৬০ জন নেতাকর্মী ওই হলের সামনে আসেন। পরে ওই হলের গেটে ধাক্কাধাক্কি ও স্লোগান দিতে থাকলে ছাত্রীদের বের হতে দেন প্রক্টর। সেখান প্রায় দুইশত ছাত্রী বের হয়ে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এসে মানববন্ধনে মিলিত হয়।
প্রসঙ্গত, গতকাল শুক্রবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা হলের সামনে থেকে বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রীকে অপহরণ করা হয়। ওই ছাত্রীর প্রাক্তন স্বামী সোহেল রানা ও তার সহযোগীরা মাইক্রোবাসে করে তাকে তুলে নিয়ে যায়। পরে ওই ছাত্রীর সন্ধান চেয়ে বিকাল ৪টা থেকে ভিসি বাসভবন ঘেরাও কর্মসূচি পালন করে শিক্ষার্থীরা। পরে ভিসি আশ্বাসের প্রেক্ষিতে সন্ধ্যায় স্থগিত করা হয়। ওইদিন সন্ধ্যায় নগরীর মতিহার থানায় ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে অপহরণ মামলা দায়ের করেন। মামলায় ওই ছাত্রীর সাবেক স্বামী সোহেল রানাসহ কয়েকজনের নাম উল্লেখ করা হয়। পরে রাতে ওই ছাত্রীর শ্বশুর জয়নাল আবেদীনকে আটক পত্নীতলা থেকে আটক করা হয়। তাকে নিয়ে অপহৃত ছাত্রীকে উদ্ধার অভিযান চালায় পুলিশ।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ভারতে তিন তালাক বিরোধী খসড়া আইনে সরকারের অনুমোদন

বিরোধীরা আসলেই কাগুজে বাঘ: মোজাম্মেল হক

গাংনী বিএনপি কার্যালয়ে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ

মহান বিজয় দিবস আজ

চট্টলার সিংহপুরুষের বিদায়

রাজধানীতে বৃদ্ধা ও শিশু খুন

বাংলাদেশ জন্ম নিয়েছিল একটা আদর্শ নিয়ে

সবক্ষেত্রে চাই গুণগত সেবা

বিশ্বকাপে নিষিদ্ধ হতে পারে স্পেন!

কাদের-মওদুদকে ঘিরেই স্বপ্ন দু’দলের

শেষমুহূর্তে তৎপর বিএনপি

ট্রাম্প প্রশাসনের ধর্মীয় পক্ষপাতিত্ব

ইউপিডিএফ ভাঙার নেপথ্যে

মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে দুইয়ে শেখ জামাল

সারা দেশে বিএনপির প্রতিবাদ কর্মসূচি ১৮ ডিসেম্বর

যেভাবে অপহরণকারীদের হাত থেকে মুক্ত হলেন সিলেটের ব্যবসায়ী মুন্না