বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিটির রিপোর্ট

এমসি’র শতবর্ষী ছাত্রাবাস জ্বালিয়ে দিয়েছিল ছাত্রলীগ

এক্সক্লুসিভ

ওয়েছ খছরু, সিলেট থেকে | ১৯ নভেম্বর ২০১৭, রবিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৩৪
সিলেটের ঐতিহ্যবাহী এমসি কলেজের শতবর্ষী ছাত্রাবাস জ্বালিয়ে দেয়ার ঘটনায় জড়িত ছিল ছাত্রলীগ। ওই সময়ের ছাত্রলীগের সভাপতি পংকজ পুরকায়স্থসহ ছাত্রলীগের সিনিয়র নেতাদের নেতৃত্বে এমসি’র ছাত্রাবাসে আগুন দেয়া হয়। আর ছাত্রলীগ ও ছাত্রশিবিরের বিরোধের ঘটনার জের ধরেই এ ঘটনা ঘটেছিল। এমসি ছাত্রাবাস জ্বালিয়ে দেয়ার ঘটনায় বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিটির রিপোর্টে এসব বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে। তদন্ত রিপোর্টে আদালতে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি পংকজ পুরকায়স্থ, বর্তমান মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাংশু দাশ মিঠু, ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম ও ট্রাক শ্রমিক লীগ নেতা আবু সরকারের নাম সহ ২৯ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এদিকে, আদালত বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটির ওই রিপোর্ট গ্রহণ করে আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন।
ঘটনা ২০১২ সালের ৮ই জুলাইয়ের।  দেশজুড়ে আলোচিত ঘটনা ছিল রাতের আঁধারে এমসি কলেজের আসাম আদলের শতবর্ষী ছাত্রাবাস জ্বালিয়ে দেয়া। এমসি ছাত্রাবাস দখলে নেয়াকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্বে জড়ায় ছাত্রলীগ ও ছাত্রশিবির। এ দ্বন্দ্বের জের ধরে ছাত্রাবাস ছাত্রলীগ দখলে নিতে চাইলে শিবিরের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়। এ সংঘর্ষের একপর্যায়ে ছাত্রাবাসের বিভিন্ন কক্ষে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। ওই অগ্নিকাণ্ডে ছাত্রাবাসের এ ও বি ব্লকের অর্ধশতাধিক কক্ষ পুড়ে ছাই হয়ে যায়। সেই ছাত্রাবাস এখন আর নেই। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ পূর্বের আদল ঠিক রেখে নতুন করে এমসি’র ছাত্রাবাস নির্মাণ করেছেন। চলতি বছরে এই ছাত্রাবাস উদ্বোধন করা হয়েছে। এখন ছাত্ররা ওই ছাত্রাবাসে আবাসিক হিসেবে বসবাস করছে। কিন্তু এমসি’র ওই ছাত্রাবাস জ্বালিয়ে দেয়ার ঘটনায় দেশজুড়ে ধিক্কার শুরু হয়। খোদ শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এসে এমসি’র ছাত্রাবাসের পুড়ানো অংশ দেখে  কেদে ফেলেন। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতও দোষীদের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ দেন। এ ঘটনায় হল সুপার বশির আহমদ বাদী হয়ে সিলেটের শাহ্‌পরাণ থানায় ২০১২ সালের মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার প্রেক্ষিতে প্রথমে পুলিশ তদন্ত শুরু করে। পুলিশের তদন্ত চলার সময়ই মামলার তদন্তের দায়িত্বভাব দেয়া হয় সিলেটের সিআইডিকে। ২০১৩ সালে সিআইডি মামলার ফাইনাল রিপোর্ট দাখিল করে। ওই রিপোর্টে কোনো আসামির নাম উল্লেখ করা হয়নি। কিন্তু আদালতের ওই রিপোর্ট মনঃপুত না হওয়ার কারণে ফের তদন্তের নির্দেশ দেন। সিআইডি পুনরায় তদন্ত করে ২০১৫ সালের ৯ই আগস্ট আরেকটি ফাইনাল রিপোর্ট দাখিল করে। পরে আদালত মামলার তদন্তভার দেন পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন-পিবিআইয়ের কাছে। পরবর্তীতে পিবিআইয়ের একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের তদন্তে আসামিদের নাম আসেনি। এরপর আদালতে গত ৩১শে আলোচিত এ ঘটনায় দায়ের করা মামলাটির বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেন। গত বুধবার বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি সিলেটের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক সরাবন তহুরার আদালতে ২৯ জনের নাম উল্লেখ করে তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করে। বৃহস্পতিবার আদালত ওই ২৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন। গ্রেপ্তারি পরোয়ানাপ্রাপ্তরা হচ্ছে-  মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাংশু দাস মিঠু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি পংকজ পুরকায়স্থ, ট্রাক শ্রমিকলীগ নেতা আবু সরকার সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, ছাত্রলীগ নেতা মৃদুল কান্তি সরকার, কামরুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা বাবলা, মো. আতিকুর রহমান, লায়েক আহম্মেদ, সিদ্দিক আহম্মেদ ইউসুফ, জহিরুল ইসলাম, আক্তারুল ইসলাম, জসিম উদ্দিন, আসাদুজ্জামান শাহিন, মোহাম্মদ বিন মামুন বুলবুল, আউলাদ, আছরাফ আহমেদ শিপন, নজরুল ইসলাম, অলিউল্লাহ ওরফে ওলিউর রহমান, খুরশেদ আলম, বাছিদ ওরফে আবদুল বাছিদ, আবদুস সালাম, ইমতিয়াজ রফিক চৌধুরী, আবদুল্লাহ ফারুক, কয়েছ ওরফে কয়েছুজ্জামান তালুকদার, আবু রেহান, রুবেল ও জ্যোতির্ময় দাস সৌরভ। বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি ঘটনাকালীন সময়ের উপস্থিত থাকা ব্যক্তিদের মৌখিক সাক্ষ্য, ওই সময় ধারণ করা ভিডিও ফুটেজ ও ছবি তদন্তকালে সংগ্রহ ও পর্যালোচনা করেন। এছাড়া জেলা প্রশাসনের গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্টও পর্যালোচনা করা হয়। শাহ্‌পরাণ থানার জিআরও সমীর দাশ গতকাল বিকেলে জানিয়েছেন- গ্রেপ্তারি পরোয়ানা এখনো তাদের কাছে আসেনি। এলে পরবর্তী কার্যক্রম চালানো হবে। রিপোর্ট দাখিল হয়েছে বলে জানান তিনি।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ভর্তি জালিয়াতি সন্দেহে রাবির দুই ছাত্রলীগ নেতা আটক

‘এটাও কিন্তু একটা চ্যালেঞ্জের বিষয়’

সৌদিই ব্যতিক্রম

তাদের কি বিবেক বলে কিছু নেই

ঢাকা উত্তরের উপনির্বাচন ফেব্রুয়ারিতে

যেভাবে উগ্রপন্থায় দীক্ষিত হয় আকায়েদ

স্বাস্থ্যসেবার ব্যয় মেটাতে দারিদ্র্যসীমার নিচে ৫ শতাংশ পরিবার

তারা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসটাকে হাইজ্যাক করে ফেলেছে

কুয়ালালামপুর বিমানবন্দর থেকে ৬০০ কর্মকর্তা প্রত্যাহার

আরো বেড়েছে দেশি পিয়াজের দাম

সময় চাইলেন ‘অসুস্থ’ বাচ্চু

ঢাকার আকাশে ঝড়ের ঘনঘটা

বিএনপির প্রচারণায় বাধার অভিযোগ

বিএনপির বিজয় র‌্যালি

ব্যবহারে বংশের পরিচয়

‘উন্নয়ন কথামালায়, মানুষ কষ্টে আছে’