রাবিতে হলের সামনে থেকে ছাত্রী অপহৃত

প্রথম পাতা

আসলাম-উদ-দৌলা/জহিরুল ইসলাম জাহিদ, রাজশাহী থেকে | ১৮ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:৫৯
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের এক ছাত্রীকে হলের সামনে থেকে জোরপূর্বক মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল সকাল সোয়া ৮টার দিকে 
বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা হলের সামনে এ ঘটনা ঘটে।
অপহরণের শিকার হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের স্নাতক চূড়ান্তবর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি তাপসী রাবেয়া হলের আবাসিক শিক্ষার্থী। তিনি স্নাতক পরীক্ষায় অংশ নেয়ার জন্য সহপাঠীদের সঙ্গে হল থেকে বের হলে কিছুক্ষণ পরেই ঘটনাটি ঘটে। তার বাড়ি নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার মাতাজি এলাকায়।
এদিকে, অপহরণের ঘটনা বাংলা বিভাগে জানানো হলেও তাকে ছাড়াই পরীক্ষা নেয়ায় শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। বিকাল ৫টার দিকে আবাসিক হলগুলো থেকে ছাত্রীরা বেরিয়ে এসে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল বের করে।
এতে বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা যোগ দেয়। তারা অপহৃত শিক্ষার্থীকে উদ্ধারের দাবিতে উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও করে রাখে। পরে উপাচার্যের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে অবরোধ তুলে নেন শিক্ষার্থীরা।
এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক খন্দকার ফরহাদ হোসেন মানবজমিনকে জানান, ‘ওই শিক্ষার্থীর সামনের বছর পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ রয়েছে। আর এটা পাবলিক পরীক্ষা, তাই একজনের জন্য ৯৯ জন শিক্ষার্থীর পরীক্ষা বন্ধ করা হয়নি।’
ঘটনাস্থলে উপস্থিত সহপাঠীরা জানান, সকাল সোয়া ৮টায় আমরা পরীক্ষার উদ্দেশ্যে বের হই। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা হলের সামনে পৌঁছলে পেছনে থেকে একটি সাদা মাইক্রোবাসে ওই শিক্ষার্থীর সাবেক স্বামী সোহেল রানাসহ ৫-৬ জন যুবক তার পথরোধ করে তার সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করে। পরে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে জোর করে তাকে গাড়িতে করে নিয়ে যায়। মাইক্রোবাসটি সকাল থেকে হলের সামনে দাঁড়িয়েছিল বলে জানান সহপাঠীরা। সোহেল রানার সঙ্গে তার গত বছরের ডিসেম্বরে বিয়ে হয়। এরপর থেকে যৌতুকের জন্য প্রায় সময় চাপ প্রয়োগ করতো। সোহেলের সঙ্গে অক্টোবর মাসের ১০ তারিখ তালাক হয়। তালাকের দুই মাস চলছে। তিন মাস হলে তালাক কার্যকর হয়ে যায়। আগামী মাসের ১০ তারিখ তালাক কার্যকর হবে। তবে, সোহেল চাচ্ছে যাতে তালাক না হয়। এজন্য সোহেল তাকে ফোনে প্রায়ই বিরক্ত করত। তার স্বামী সোহেল রানা পেশায় একজন আইনজীবী। সোহেলের বাড়ি নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলা নজিপুরে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি জানার সঙ্গে সঙ্গে আমি পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থা ও র‌্যাবকে জানিয়েছি। দ্রুত তাকে উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। মেয়ের বাবা এসেছে। মামলার বিষয়টি তিনিই দেখবেন।’
মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী হাসান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের জানিয়েছেন তারা স্বামী-স্ত্রী। স্বামীই নাকি নিয়ে গেছে। প্রাথমিকভাবে বলা হয় খোঁজাখুঁজি করতে। সঙ্গে সঙ্গেই সব জায়গায় মেসেজ পাঠানো হয়েছে। পরে সন্ধ্যায় মতিহার থানায় ছাত্রীর পিতা আমজাদ হেসেন বাদী হয়ে অপহরণের মামলা করেছেন। ছাত্রীকে উদ্ধার ও আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।’

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ওআইসি’র ঘোষণা নেতানিয়াহু’র প্রত্যাখ্যান

প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরেছেন

ট্রাম্পের কড়া সমালোচনা

গাজীপুরে মসজিদের ভেতর নৈশ প্রহরীকে গলা কেটে হত্যা

‘প্রেম’ করে বিয়ে, চাকরি হারালেন শিক্ষক দম্পতি

চবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির সত্যতা মিলেছে

প্রশ্ন ফাঁস হতো প্রেস থেকে

আবাসিক এলাকায় রাতে হর্ন বাজানোয় নিষেধাজ্ঞা

‘বিএনপি প্রার্থীর নির্বাচনে বাধা নেই’

কুয়ালালামপুরে গ্রেপ্তার ২ ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা

জামিনে আপন জুয়েলার্সের তিন মালিক

নারী সহশিল্পীর সঙ্গে যৌন সম্পর্কে বাধ্য করা হয় আমাকে

বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্ক নিষিদ্ধ করার আবেদন প্রত্যাখ্যাত ইন্দোনেশিয়ায়

প্রথম ১ মাসে ৬৭০০ রোহিঙ্গাকে হত্যা

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে মিয়ানমার, বাংলাদেশ সফরের আহ্বান

৪ সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় ভূমিমন্ত্রীপুত্র কারাগারে