পাবনায় বন্ধুর হাতে খুন দুই মাস পর লাশ উদ্ধার

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, পাবনা থেকে | ১৮ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার
পাবনার সুজানগরে নিখোঁজের দুই মাস পর এক কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহতের নাম রবিউল ইসলাম (২৩)। তার বন্ধু উপজেলার উলাট গ্রামের মামুন (২৫) এর ঘরের মেঝের মাটির নিচে মিলল এই লাশ। শুক্রবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে মেঝের মাটি খুঁড়ে মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় মামুনকে আটক করা হয়েছে। প্রেমঘটিত বিষয় নিয়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে প্রাথমিক তদন্তে জানতে পেরেছে পুলিশ।
স্বজনরা জানান, গত ২০শে সেপ্টেম্বর সকালে বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয় সুজানগরের মালিফা-সেলিম রেজা হাবিব ডিগ্রি কলেজের বিবিএ দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রবিউল ইসলাম।
তার খোঁজ না পেয়ে পরদিন ২২শে সেপ্টেম্বর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন স্বজনরা। এরমধ্যে দু’টি মোবাইল থেকে ফোন করে ও ম্যাসেজ দিয়ে রবিউলের পরিবারের কাছে ৫০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারী চক্র। টাকা না পেলে রবিউলকে হত্যার হুমকিও দেয়া হয়। এরপর নিখোঁজ রবিউলের বড় ভাই নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে হৃদয় নামের এক যুবককে আসামি করে ৫ই অক্টোবর সুজানগর থানায় একটি মামলা করেন। মামলার পর বিভিন্ন সময় এজাহার নামীয় আসামি হৃদয়সহ চারজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
সুজানগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবায়দুল হক জানান, নিহত রবিউল স্থানীয় সেলিম রেজা হাবিব ডিগ্রি কলেজের বিবিএ দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন। তিনি মানিক হাট ইউনিয়নের উলাট গ্রামের আবদুল মালেকের ছেলে। গত দুই মাস আগে গত ২০শে সেপ্টেম্বর সে নিখোঁজ হয়। এ ব্যপারে রবিউলের বাবা থানায় একটি সাধারণ ডাইরি করে। পরে রবিউলের বড় ভাই নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে হৃদয় নামের এক যুবককে আসামি করে ৫ই অক্টোবর সুজানগর থানায় একটি মামলা করে। পুলিশ বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করে।
মামলার পর বিভিন্ন সময় এজাহার নামীয় আসামি হৃদয় সহ চারজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদে ও মোবাইল ট্র্যাকিং করে তার বন্ধু পাশের বাড়ির মামুন হোসেনকে সন্দেহ করে। মূল আসামি মামুন শেখকে গতকাল বৃহস্পতিবার পাবনা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। সে জানায় রবিউলকে মেরে তার ঘরের মেঝের মাটিতে পুঁতে রাখা হয়েছিল। পরে তার স্বীকারোক্তিতে গতকাল সকালে আসামি মামুনের শোবার ঘরের মেঝেতে পুঁতে রাখা রবিউলের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। আটক মামুন একই এলাকার রাজ্জাক শেখের ছেলে। জিজ্ঞাসাবাদে ও পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে হত্যার কারণ সম্পর্কে পুলিশ কর্মকর্তা জানান, মূলত প্রেমঘটিত বিষয় নিয়ে কলেজছাত্র রবিউল ও তার প্রতিবেশী মামুনের মধ্যে দ্বন্দ্ব ছিল। এরই জেরে ঘুমের ট্যাবলেট খাইয়ে ও পরে শ্বাসরোধে রবিউলকে হত্যা করে মামুন। এরপর ঘরের মেঝেতে মাটি খুঁড়ে লাশ চাপা দিয়ে রাখে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ভারতে তিন তালাক বিরোধী খসড়া আইনে সরকারের অনুমোদন

বিরোধীরা আসলেই কাগুজে বাঘ: মোজাম্মেল হক

গাংনী বিএনপি কার্যালয়ে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ

মহান বিজয় দিবস আজ

চট্টলার সিংহপুরুষের বিদায়

রাজধানীতে বৃদ্ধা ও শিশু খুন

বাংলাদেশ জন্ম নিয়েছিল একটা আদর্শ নিয়ে

সবক্ষেত্রে চাই গুণগত সেবা

বিশ্বকাপে নিষিদ্ধ হতে পারে স্পেন!

কাদের-মওদুদকে ঘিরেই স্বপ্ন দু’দলের

শেষমুহূর্তে তৎপর বিএনপি

ট্রাম্প প্রশাসনের ধর্মীয় পক্ষপাতিত্ব

ইউপিডিএফ ভাঙার নেপথ্যে

মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে দুইয়ে শেখ জামাল

সারা দেশে বিএনপির প্রতিবাদ কর্মসূচি ১৮ ডিসেম্বর

যেভাবে অপহরণকারীদের হাত থেকে মুক্ত হলেন সিলেটের ব্যবসায়ী মুন্না