পূজা উদযাপন ও ঐক্য পরিষদের মানববন্ধন

এভাবে হামলা অব্যাহত থাকলে সংখ্যালঘুদের ভোটদান অনিশ্চিত হয়ে পড়বে

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১৫ নভেম্বর ২০১৭, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:১২
অতীতের ঘটনাগুলোর বিচার না হওয়ায় বার বার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনা ঘটছে বলে অভিযোগ করেছেন হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতারা। বলেছেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে রংপুরে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলা ও অগ্নিসংযোগ শুভ  লক্ষ্মণ নয়। নির্বাচনের আগে এসব ঘটনার বিচার না হলে ঐক্য পরিষদ নতুন করে চিন্তা করবে। এমনকি সংখ্যালঘুদের ভোটদান অনিশ্চিত হয়ে পড়বে।
গতকাল বিকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ যৌথভাবে এ মানববন্ধনের আয়োজন করে। রংপুরের গঙ্গাচড়ায় সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার প্রতিবাদে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।
এদিকে কর্মসূচি চলাকালে ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে সংবাদ কর্মীদের দেয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সরকার সাম্প্রদায়িক ধর্মান্ধ মৌলবাদী শক্তিসমূহের বিরুদ্ধে অনতিবিলম্বে দৃঢ় ভূমিকা গ্রহণে ব্যর্থ হলে আগামী নির্বাচনের পূর্বাপর সময়ে বিশেষভাবে সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীকে টার্গেট করে তারা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করবে। যা গণতন্ত্রের জন্য কোনোভাবেই শুভ হবে না। সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর ওপর এ ধরনের সাম্প্রদায়িক হামলা, নির্যাতন নিপীড়ন অব্যাহত থাকলে ভবিষ্যতে সংসদ নির্বাচনে ভোটদানে তারা নিরুৎসাহিত হয়ে পড়বে। এমনকি অংশ নেবেন কিনা তা তারা ভেবে দেখতে বাধ্য হবেন।
মানববন্ধনে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, আমি এসব কর্মকাণ্ডে যারা জড়িত সেসব সামপ্রদায়িক গোষ্ঠী, সন্ত্রাসী গোষ্ঠী বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কারো বিচার চাইতে এখানে আসি নাই। কারণ আমি জানি বিচার চাইলে যারা এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত তারা সুরক্ষা পাবে। এবং যারা প্রশাসনে থাকবে পুলিশ ভাইয়েরা তাদের প্রমোশন হবে। বিচার কখনই দেশের মাটিতে হবে না। ২০১২ সালের পর থেকে এখানে বিচারহীনতার সংস্কৃতি শুরু হয়েছে। তাই আমি দাবি করবো উত্তম বড়ুয়ার ফাঁসি চাই, রস রাজের ফাঁসি চাই, আমি টিটু রায়ের ফাঁসি চাই। এদের ফাঁসি দিয়ে আপনি প্রমাণ করুন যে এই দেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘু সমপ্রদায় আপনার দরকার নাই।
সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা বলেন, জিরো টলারেন্স। জিরো টলারেন্সের নামে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের শূন্য কোটায় নামিয়ে দেয়ার জন্য সকল রকম অপকর্ম করা হচ্ছে।
মানববন্ধনে ঐক্যপরিষদের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজল দেবনাথ বলেন, খুলনার মাওলানার ফেসবুকের পোস্টে লাইক শেয়ার দেয়া হয়। প্রকৃত অপরাধীকে গ্রেপ্তার না করে নির্দোষ নিরক্ষর টিটুকে গ্রেপ্তার করা হয়। এটা কোন ধরনের অবিচার। তিনি বলেন, আমাদের সম্পদ, ঘরবাড়ি পুড়িয়ে সেগুলো হয়তো আবার নির্মাণ করে দিতে পারবেন। কিন্তু আমাদের মনের মন্দিরে যে ক্ষত সেটা কিভাবে নির্মাণ করবেন।
পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তাপস পাল বলেন, রংপুরের হিন্দুদের বসতিতে হামলায় পুলিশ এগিয়ে এসেছে। না হলে আরো বড় ধরনের কিছু ঘটতে পারতো।
পূজা উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক সুভাশিষ বিশ্বাস বলেন, অতীতের ঘটনাগুলোর বিচার না হওয়ার কারণে বার বার এসব ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বিএনপিকে ভোট দিয়ে অশান্তি ফিরিয়ে আনবে না জনগণ: প্রধানমন্ত্রী

অভিযোগ মিথ্যা এতিমখানার টাকা আত্মসাৎ করিনি

আরো ব্লগার হত্যার হিটলিস্ট

আসিফ নজরুলের বিরুদ্ধে মামলা, অতঃপর...

ফের বেড়েছে বিদ্যুতের দাম

চাহিদা নেই, তবুও রাজউকের নতুন ফ্ল্যাট প্রকল্প

‘আনিসুল হককে নিয়ে নেতিবাচক প্রচারণা ভিত্তিহীন’

মৌলভীবাজারে গ্রাহকের কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা ভিডিএন চেয়ারম্যান ও এমডি

সিলেটে জামায়াতের ‘স্বতন্ত্র প্রার্থী’, জল্পনা

সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

রোহিঙ্গা জাতি নিধনের তুমুল সমালোচনা যুক্তরাষ্ট্রের

‘আমি হতবাক’

ডাক্তাররা বেশ প্রভাবশালী ও তদবিরে পাকা: স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী

যশোর জেলা স্পেশাল জজের বিরুদ্ধে ঘুষ নেয়ার অভিযোগ

রোহিঙ্গা শব্দ ব্যবহার না করতে বলা হলো পোপকে

অসুস্থ রাজনীতি বাংলাদেশকে গ্রাস করছে: ড. কামাল হোসেন