১৫৪ আসন অবৈধ হওয়ার আশঙ্কায় প্রধান বিচারপতিকে পদত্যাগ: মোশাররফ

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৫ নভেম্বর ২০১৭, বুধবার
বর্তমান সংসদের ১৫৪ আসন অবৈধ ঘোষণার আশঙ্কায় প্রধান বিচারপতিকে পদত্যাগে বাধ্য করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেছেন, ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনে ১৫৪টি আসনে যেসব প্রার্থী ছিল, জনগণ সেখানে কাউকে ভোট দেয়নি। সংবিধানে লেখা আছে জাতীয় সংসদ সদস্য তিনি, যিনি সরাসরি জনগণের ভোটে নির্বাচিত। সুতরাং ১৫৪ জন জনগণের ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত নয়। আর প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা ছুটি থেকে ফিরে ওই ১৫৪ জনের বৈধতার প্রশ্নে দায়েরকৃত একটি রিটের শুনানি নিয়ে তাদের অবৈধ ঘোষণা করতে পারেন- এমন আশঙ্কা থেকেই তাকে পদত্যাগে বাধ্য করা হয়েছে। ‘জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে জাতীয় প্রেস ক্লাবে কৃষক দল আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।
ড. মোশাররফ বলেন, বর্তমান সংসদে বিনাভোটে নির্বাচিত ১৫৪ এমপির বৈধতা নিয়ে হাইকোর্টে একটি রিট রয়েছে। আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম, প্রধান বিচারপতি ছুটি থেকে ফিরে সেই রিট মামলার শুনানি করবেন। হয়তো সিদ্ধান্তে আসতে পারে ১৫৪ আসন অবৈধ। তাহলে সরকার অবৈধ হয়ে যায়। প্রধান বিচারপতিকে নজিরবিহীনভাবে ন্যক্কারজনক কায়দায় জোর করে পদত্যাগ করিয়ে আজকে বলেছেন, প্রেসিডেন্ট পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন। তিনি বলেন, আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই। তিনি (সুরেন্দ্র কুমার সিনহা) ইচ্ছাকৃতভাবে এই পদত্যাগপত্র দেননি। সরকার প্রথমে সুস্থ মানুষকে অসুস্থ বানিয়ে ছুটির দরখাস্ত করিয়ে নিলো, পরে তাকে গায়ের জোরে দেশ থেকে তাড়িয়ে দিলো। প্রধান বিচারপতি অস্ট্রেলিয়া থেকে দেশে ফিরছিলেন, কিন্তু সরকারের লোকজন সিঙ্গাপুর গিয়ে জোর করে তার কাছ থেকে পদত্যাগপত্র নিয়েছে। তবে প্রধান বিচারপতির পদত্যাগপত্র গ্রহণ অশনিসংকেত ও জাতির জন্য কলঙ্কজনক। উচ্চতর আদালতে যে নজিরবিহীন, খারাপ, হীন একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করা হলো তা বাংলাদেশের মানুষ কখনো গ্রহণ করবে না। ড. মোশাররফ বলেন, মানুষের শেষ আশা-ভরসারস্থল বিচারালয়। এই প্রধান বিচারপতি বলেছিলেন এই সরকার নিম্নস্তরের সকল আদালতকে নিয়ন্ত্রণ করে ফেলেছে, আর উচ্চ আদালতকে নিয়ন্ত্রণ করতে চাচ্ছে। আমরা ফলাফল দেখলাম। এভাবে রাষ্ট্রের তিনটি স্তম্ভকে ধ্বংস করে আওয়ামী লীগ অলিখিত বাকশাল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দেশে একটা জঙ্গল আইন করতে চায়। ড. মোশাররফ বলেন, জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি আয়োজিত সমাবেশ থেকে জনগণ সরকার ও আওয়ামী লীগকে বার্তা দিয়েছে যে, সরকার আর বেশি দিন ক্ষমতায় থাকতে পারবে না। তাদের দিন শেষ। সুতরাং আওয়ামী লীগের সময় শেষ হয়ে গেছে। ২০১৪ সাল থেকে তারা (আওয়ামী লীগ) গায়ের জোরে ক্ষমতায় রয়েছে। জনগণ সেটা এবার আর হতে দেবে না। বিএনপি নীতিনির্ধারক ফোরামের এ সদস্য বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন জনগণ আর শেখ হাসিনার অধীনে হতে দেবে না। আগামী নির্বাচন হবে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে। আর এ জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সহায়ক সরকারের রূপরেখা যথাসময় ঘোষণা করবেন। আর সেই রূপরেখা নিয়ে আমরা জনগণের কাছে যাবো। জনগণ রাস্তায় নামবে। জাতীয়তাবাদী শক্তির নেত্রী খালেদা জিয়া সেই জনগণকে নেতৃত্ব দেবেন। রাস্তায় এসে জনগণ তাদের প্রস্তাবিত নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের দাবি আদায় করে একাদশ সংসদ নির্বাচন হবে। সেই নির্বাচনে ইনশাআল্লাহ জাতীয়তাবাদী শক্তিকে গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার, ভোটের অধিকার, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধ ও গুম-খুন থেকে রক্ষা পাবার জন্য জনগণ বিএনপিকে ক্ষমতায় বসাবে। জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান দুদুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, সৈয়দ মেহেদি আহমেদ রুমী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, কৃষক দলের সহ- সভাপতি এমএ তাহের, নাজিমউদ্দিন মাস্টার, যুগ্ম সম্পাদক তকদির হোসেন জসিম ও জামালউদ্দিন খান মিলন বক্তব্য দেন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রবি-সোমবার সব সরকারি কলেজে কর্মবিরতি

‘বিএনপি নির্বাচনে না আসলে অস্তিত্ব সংকটে পড়বে’

আনন্দ শোভাযাত্রার রুট ম্যাপ দেখে চলাচলের অনুরোধ ডিএমপির

‘হাইকোর্টে রুল নিষ্পত্তি না হওয়ায় আমারদেশ প্রকাশে বিলম্ব হচ্ছে’

সমঝোতা স্বাক্ষরের পরও রোহিঙ্গারা প্রবেশ করছে

কাউন্টারে টিকেট নেই, দ্বিগুণ দামে মিলছে ফেসবুকে!

৭ই মার্চের ভাষণের ইউনেস্কো স্বীকৃতি সরকারিভাবে উদযাপন আগামীকাল

‘প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য প্রমাণ করে তারা গুমের সঙ্গে জড়িত’

শপথ নিলেন মানাঙ্গাগওয়া

বাণিজ্য, জ্বালানী ও যোগাযোগ খাতে সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা

‘বিএনপির ভোট পাওয়ার মতো এমন কোনো কাজের নিদর্শন নেই’

তাজরীন ট্র্যাজেডির ৫ বছর, শেষ হয়নি বিচার

দুই দফা জানাজা শেষে নেত্রকোনার পথে বারী সিদ্দিকীর মরদেহ

রোহিঙ্গা ফেরতের চুক্তি ‘স্টান্ট’: এইচআরডব্লিউ

‘আমি হতবাক’

ডাক্তাররা বেশ প্রভাবশালী ও তদবিরে পাকা: স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী