সুচি-গুতেরাঁ বৈঠক

আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা নষ্ট হতে পারে, রোহিঙ্গাদের ফেরত নিন

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৪ নভেম্বর ২০১৭, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:২৯
নৃশংসতার হাত থেকে বাঁচতে পালিয়ে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরতে দেয়ার জন্য আবারো মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচির প্রতি আহ্বান জানালেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরাঁ। মঙ্গলবার সকালে ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলায় সুচির সঙ্গে সাক্ষাতে এ আহ্বান জানান গুতেরাঁ। ম্যানিলায় ১০ জাতির আসিয়ান সম্মেলন চলছে। তাতে যোগ দেন তারা। তবে বিস্মিত হওয়ার বিষয় হলো, দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার তথা বিশ্বের সবচেয়ে বড় শরণার্থী সঙ্কট রোহিঙ্গা ইস্যুটি নেই এই সম্মেলনের এজেন্ডায়। এ সঙ্কট এই অঞ্চলেরই।
আসিয়ানের অন্যতম সদস্য মিয়ানমার। সমস্যাটির সৃষ্টি সেখান থেকেই। কিন্তু আসিয়ানের এজেন্ডায় এ ইস্যুটি না থাকায় এর সমালোচনা হচ্ছে বিশ্বজুড়ে। বিভিন্ন দেশে এ ঘটনা সংবাদ শিরোনাম হয়েছে। কিন্তু সম্মেলনে যোগ দিয়ে রোহিঙ্গা ইস্যুটি উত্থাপন করেছেন অ্যান্তনিও গুতেরাঁ। তিনি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন এ ইস্যুতে। তিনি বলেছেন, কয়েক লাখ রোহিঙ্গার জোরপূর্বক বাস্তুহারা হওয়া একটি ট্রাজেডির ক্রমঅবনতি। এতে তিনি উদ্বিগ্ন। তিনি এ সঙ্কটকে এ অঞ্চলের অস্থিতিশীলতার জন্য একটি শক্তিশালী উৎস বা রশদ বলে আখ্যায়িত করেন। বলেন, এতে উগ্রপন্থার উত্থানও হতে পারে। এর মধ্য দিয়ে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে সুচির ওপর জোরালো হলো আন্তর্জাতিক চাপ। এর ওপর মঙ্গলবারই যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনের সঙ্গে ওই ম্যানিলাতেই বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে অং সান সুচির। এরপর টিলারসন মিয়ানমারে উড়ে আসবেন। ধারণা করা হচ্ছে, এ সময়ে টিলারসন রোহিঙ্গা ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়ে দেবেন সুচিকে। জানিয়ে দেবেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থের বিরুদ্ধে অবরোধ দিতে পারে যুক্তরাষ্ট্র। তবে জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরাঁ ও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বৈঠকের আগে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা নৃশংসতা নিয়ে তাদের নিজস্ব তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতে দাবি করা হয়েছে, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে তারা কোনো কিচ্ছুই করে নি। কিন্তু বিশ্ব তো চোখ বন্ধ করে ছিল না, নেই। তারা সব দেখেছে। সব প্রামাণ্য আকারে উপস্থাপন করেছে। অং সান সুচির সঙ্গে অ্যান্তনিও গুতেরাঁর বৈঠকের সারসংক্ষেপ প্রকাশ করা হয়েছে জাতিসংঘের এক বিবৃতিতে। তাতে বলা হয়েছে, সুচির সঙ্গে বৈঠকে রোহিঙ্গাদের কাছে মানবিক সহায়তা পৌঁছে দেয়ার জন্য অধিকতর শক্তিশালী প্রচেষ্টা নিশ্চিত করতে আহ্বান জানিয়েছেন গুতেরছা। বলেছেন, রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, মর্যাদার সঙ্গে ও স্বেচ্ছায় ফিরতে দেয়া নিশ্চিত করতে হবে। ফেরার পর তাদের স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করতে হবে। একই সঙ্গে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে সত্যিকার পুনঃএকত্রীকরণ করতে হবে। এটা প্রয়োজনীয় বিষয়। উল্লেখ্য, ২৫ শে আগস্ট আরাকান রোহিঙ্গা সালভেশন আর্মির (আরসা) হামলায় নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর ১১ জন সদস্য নিহত হওয়ার পর প্রতিশোধ নিতে রোহিঙ্গাদের ওপর অকথ্য নির্যাতন শুরু হয়। তাদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয়া হয়। গণ ধর্ষণ করা হয় যুবতী ও নারীদের। গণহারে গুলি করে হত্যা করা হয় মানুষ। লুটে নেয়া হয় সব কিছু। এমন অবস্থায় জীবন বাঁচাতে স্রোতের মতো রোহিঙ্গার ঢল নামে বাংলাদেশে। প্রায় আড়াই মাসে বাংলাদেশে নতুন করে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা দাঁড়ায় কমপক্ষে ৬ লাখ। তারা সাংবাদিক ও জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের জানিয়েছেন নৃশংসতা সম্পর্কে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে চীনের তিন দফা প্রস্তাব

সিএনজি অটোরিকশার ৪৮ঘন্টার ধর্মঘট

শাহজালালে ৩ কোটি টাকা মূল্যের স্বর্ণসহ আটক ১

দীপিকার মাথা কাটলে পুরস্কার ১০ কোটি রুপি!

নিউ ক্যালেডোনিয়ায় ৭ মাত্রার ভূমিকম্প

কেন সৌদি আরব ও ইরান পরস্পরের প্রতিপক্ষ?

বন্দুকের নলের মুখেও ক্ষমতা ছাড়তে রাজি নন মুগাবে

বাংলাদেশের বন্ধু, মার্কিন কূটনীতিক হাওয়ার্ড বি শেফার আর নেই

তারেক রহমানসহ তিনজনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

গেদে সীমান্তে পিতা-পুত্রের মিলন, আবেগঘন এক দৃশ্য

বিএনপির নেতার বাসার সামনে থেকে বোমা উদ্ধার

‘পুরুষের চেয়ে নারীরা বেশি যৌন নিপীড়ক’

দুদকের মামলায় গ্রেপ্তার পঙ্কজ রায়

কেক কেটে তারেক রহমানের জন্মদিন পালন

মা ও ছেলেকে কুপিয়ে হত্যা করলো যুবক

কানাডার উন্নয়নমন্ত্রী আসছেন মঙ্গলবার