মিয়ানমারে আটক সেই ২ বিদেশী সাংবাদিকের জেল

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১১ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:১৩
আদালতে তোলার আগে শুক্রবার অং নাইং সোই-এর সঙ্গে মায়ের সাক্ষাত
পার্লামেন্টের কাছে ড্রোন উড়ানোর চেষ্টাকারী সেই দুই বিদেশী সাংবাদিক ও তাদের দু’সহযোগীকে দু’মাসের জেল দিয়েছে মিয়ানমারের আদালত। বিদেশী ওই দু’সাংবাদিক হলেন লাউ হন মেং এবং মোক চোই লিন। এর মধ্যে প্রথমজন সিঙ্গাপুরের সাংবাদিক। দ্বিতীয়জন মালয়েশিয়ার। তাদের বিরুদ্ধে ঔপনিবেশিক আমলের অর্থাৎ ১৯৩৪ সালের মিয়ানমার এয়ারক্রাফট অ্যাক্টের অধীনে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন দ্য ইরাবতী।
এতে বলা হয়েছে, অভিযুক্ত হয়েছেন মিয়ানমারের নাগরিক, দোভাষী অং নাইং সোই এবং তাদের গাড়ির চালক হ্লা টিন। অবৈধভাবে তারা মিয়ানমারে ড্রোন নিয়েছেন এমন অভিযোগ আনা হয়েছে। ২০১২ সালে আমদানি-রপ্তানি আইনের অধীনে এ অভিযোগ গঠন করা হয়। এমন অপরাধে কোনো ব্যক্তির ৩ বছর পর্যন্ত জেল হওয়ার বিধান আছে। উল্লেখ্য, ২৭ শে অক্টোবর থেকে এই দু’সাংবাদিক সহ এই চারজন পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন। শুক্রবার তাদের বিরুদ্ধে বিচার চলাকালে বিবাদী ও তাদের আইনজীবীরা আদালতকে জানান যে, তারা আমদানি-রফতানি বিষয়ক অভিযোগের বিষয়ে জানেন। কিন্তু অকস্মাৎ শুক্রবার আদালতে বাদিপক্ষের আইনজীবী অন্য একটি অভিযোগ উত্থাপন করেন। এ অভিযোগ এয়ারক্রাফট অ্যাক্টের অধীনে। এ সময় তাদেরকে এই আইন লঙ্ঘন করে শাস্তি দেয়া হচ্ছে অভিযোগ করেন অভিযুক্ত সাংবাদিক মোক চোই লিন। এ অভিযোগে তিন মাসের জেল অথবা ৫০ হাজার কিয়াত জরিমানার বিধান রয়েছে। এ পর্যায়ে অভিযুক্ত সাংবাদিকরা তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ স্বীকার করেন এবং মোক চোই লিন এবং লাউ হন মেং জরিমানা দিতে রাজি হন। কিন্তু আদালতে অং নাইং সোই এবং হ্লা টিন তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেন। তারা বলেন, তারা সাংবাদিক নন। এ অবস্থায় বিচারক ওই দোভাষী ও গাড়ির চালককে বলেন, তিনি প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষ্য নেবেন। যাচাই করে দেখবেন তারা এয়ারক্রাফট বিষয়ক আইন লঙ্ঘন করেছেন কিনা। এর ফলে তাদের বিরুদ্ধে এই বিচার দীর্ঘায়িত হতে পারে। এ অবস্থায় অভিযুক্ত দোভাষী ও গাড়িচালক তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ স্বীকার করে নেন। ফলে বিচারক দু’সাংবাদিক সহ চারজনকেই দু’মাসের জেল দেন। তাদের আইনজীবী বলেন, আমরা এমন অভিযোগ প্রত্যাশা করি না।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন