ভর্তি পরীক্ষায় ‘র‌্যাগের’ বিরুদ্ধে রাবি প্রশাসনের কঠোর অবস্থান

শিক্ষাঙ্গন

হাসান মাহমুদ, রবি প্রতিনিধি | ২১ অক্টোবর ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:৩৭
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হবে আগামী ২২-২৬ অক্টোবর। ভর্তি পরীক্ষার সময় ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী, তাদের সাথে আসা কোনো ব্যাক্তি বা অবিভাবককে র‌্যাগের মাধ্যমে মানসিক চাপ সৃষ্টি করে। অথবা অপমান-অপদস্ত করা, আতঙ্ক, ভয় বা সংশয়ের সৃষ্টি করার মতো কোন অভিযোগ কারো বিরুদ্ধে পেলে কঠোর ব্যবস্থরা কথা জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বিগত ভর্তি পরীক্ষাগুলোতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু শিক্ষার্থী ও বহিরাগতরা ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী বা তার সাথে আসা অবিভাবকদের র‌্যাগের মাধ্যমে নানা ভাবে হয়রানি করে। পরিচিত হবার কথা বলে নোংড়ামীর মাধ্যমে পরীক্ষার্থীর চোখে পানি আনতে বাধ্য করে। হলে, মেসে এমনকি পরীক্ষা কেন্দ্রের সামনেও চলে তাদের এই কর্মকান্ড।
এতে শিক্ষার্থীরা ভীত হলে তারা আনন্দ উল্লাস করে। এতে ভর্তিচ্ছুদের মধ্যে মানসিক চাপের কারণে ফল খারাপ করার আশঙ্কা থাকে। তাই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবার। রাবি ছাত্র ফেডারেশানের সাংগঠনির সম্পাদক সুমন মোড়ল বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যলয়গুলোর মধ্যে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা আলাদা ভাবমূর্তি আছে। আমরা চাই গুটিকয়েক শিক্ষার্থী বা ব্যাক্তির কারণে এ ভাবমূর্তি যেন নষ্ট না হয়। এ জন্য প্রশাসনের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদেরও এগিয়ে আসতে হবে। রাবি শাখা ছাত্রালীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু বলেন, ইতমধ্যে শাখা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে আমাদের নেতা-কর্মীদের র‌্যাগের বিষয়ে সতর্ক করা হয়েছে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তির স্বার্থে আমরা এর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছি। ভর্তি পরীক্ষার দিনগুলোতে আমাদের নেতা-কর্মীরা ক্যাম্পাসের বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান করবে। যদি তারা এমন কিছু দেখতে পাই বা আমাদের কাছে অভিযোগ আসে তাহলে আমরা দোষীদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। হলগুলোতেও এ বিষয়ে সতর্ক অবস্থানে থাকবে হল প্রশাসন। এ বিষয়ে মাদার বখ্শ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. তাজুল ইসলাম বলেন, আমরা ইতমধ্যে র‌্যাগিং নিয়ে হলের সিনিয়র শিক্ষার্থী ও ছাত্রসংগঠনগুলোর সাথে সাক্ষাৎ করেছি। তাছাড়া ভর্তিচ্ছুদের সার্থে রাতেও আমরা হলে অবস্থান করবো। হলে র‌্যাগ দেওয়ার কোনো তথ্য বা অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ বিষয়ে রাবি ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, আমরা চাই বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে শিক্ষার্থীরা তাদের সর্বোচ্চটা দিয়েই ভর্তি যুদ্ধে অবতীর্ণ হোক। এ যুদ্ধে র‌্যাগের মাধ্যমে কেই যদি এই সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশ নষ্ট করতে চাই তাহলে আমরা তাকে সাথে সাথে পুলিশের হতে তুলে দেব। এখানে কে আমাদের শিক্ষার্থী কে বহিরাগত তা আমাদের দেখার বিষয় নয়। রাবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান বলেন, র‌্যাগ দেওয়া একটা জঘন্ন অপরাধ। এর মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি নষ্ট হয় ও শিক্ষার্থীদের উপর মানসিক চাপ সৃষ্টি হয়। তাই আমরা এর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছি। যেহেতু এখানে ভর্তি পরিক্ষা চলাকালীন সময় ভ্রাম্যমান আদালত ও পুলিশের টিম কাজ করবে। সেহেতু আমাদের কাছে যদি এ ধরণের অভিযোগ আসে তাহলে আমরা সাথে সাথে তাকে ভ্রাম্যমান আদালতের হাতে তুলে দিয়ে বিচারের মুখমুখি করবো। সেই সাথে তিনি র‌্যাগের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ভিডিও দেখে অস্ত্রধারীদের খোঁজা হচ্ছে

‘অতিষ্ঠ হয়ে প্রেমিককে ছুরিকাঘাত’

ফল প্রকাশের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, অবরোধ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সময় লাগবে ৯ বছর!

মত প্রকাশের স্বাধীনতা সীমিত, আক্রমণের শিকার নাগরিক সমাজ

মেয়র আইভী হাসপাতালে

জিয়াউর রহমানের ৮২ তম জন্মবার্ষিকী আজ

এবার আটকে গেল দক্ষিণের ১৮ ওয়ার্ডের নির্বাচনও

হাথুরুকে দেখিয়ে দেয়ার লড়াই

‘আপনার এত তাড়াহুড়া কিসের?’

সংবাদটি আমাকেও শোকে মুহ্যমান করে ফেলে

‘নেতৃত্ব তৈরির প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করতেই ছাত্র সংসদ নির্বাচন বন্ধ রাখা হয়েছিল’

৬ মাসের প্রাণ পেলো যশোর রোডের গাছগুলো

সিলেটে রাজনীতির আড়ালে সক্রিয় ‘চিহ্নিত’ অপরাধীরা

‘নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে ৮০ শতাংশ ভোট পাবে বিএনপি’

কাজাখস্তানে বাসে আগুন লেগে ৫২ জনের মৃত্যু