ব্লু হোয়েলে আসক্ত চবি’র আরো ৪ শিক্ষার্থী

প্রথম পাতা

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি | ১৩ অক্টোবর ২০১৭, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৭:৪৯
ভয়ঙ্কর সুইসাইড গেম ব্লু হোয়েলের বিভিন্ন ধাপে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরো চার শিক্ষার্থীর খোঁজ মিলেছে। এ ব্যাপারে স্বীকারোক্তি দিলেও আসক্ত শিক্ষার্থীদের নাম প্রকাশে ইচ্ছুক নন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ। এ প্রসঙ্গে চবি’র ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার ড. কামরুল হুদা বলেন, ব্লু-হোয়েল সুইসাইড গেম। ন্যক্কারজনক এ গেমে জড়িতদের নাম প্রকাশে সহপাঠীও সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন হতে পারে। এই সুইসাইড গেম সম্পর্কে জানতে অজানা শিক্ষার্থীরাও কৌতূহলী হয়ে আসক্ত শিক্ষার্থীদের কাছে যাবে।
তিনি জানান, ব্লু-হোয়েল গেমে আসক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের আরো ৪ শিক্ষার্থীর সন্ধান মিলেছে। তাদের বিষয়ে কর্তৃপক্ষ পুলিশকে অবগত করেছে।
তবে তাদের নাম কোনোভাবেই প্রকাশ করা যাবে না।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী ব্লু-হোয়েল গেমে আসক্ত হওয়ার বিষয়টি গত বুধবার সাংবাদিকদের জানান চট্টগ্রাম জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) মসিউদ্দৌলা রেজা। তাকে পুলিশ হেফাজতে নেয়ার পর এ বিষয়ে কোনো শিক্ষার্থীও মুখ খুলছে না।
গতকাল বৃহস্পতিবার সরজমিন দেখা যায়, চবি ক্যাম্পাসে ঘুরাফেরার সময় এক শিক্ষার্থী আরেক শিক্ষার্থীকে বলছে-‘এই তুই কত ধাপে আছিস’। আবার কোনো কোনো শিক্ষার্থী তার দিকে তাকানোয় ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন- ‘এই আমার দিকে তাকালি কেন?’ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এ এফ রহমান হলের শিক্ষার্থী ফাহিম জানান, ব্লু- হোয়েলে আসক্ত ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থীকে পুলিশ হেফাজতে নেয়ার আগে কয়েকজন শিক্ষার্থীর মুখে এ বিষয়ে শুনেছি। এরা তখন কে কত ধাপে ছিল-তা বলাবলি করতো। তবে তাদের কেউ এখনো বিপজ্জনক পরিস্থিতিতে যায়নি বলে মনে হয়।
তিনি বলেন, যে শিক্ষার্থী ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থীর বিষয়ে পুলিশকে খবর দিয়েছে, সে নিজেও এ খেলা খেলেছে। আমি তাকে চিনি। তবে সে এলার্ট। সে ওই শিক্ষার্থীর সহপাঠীও। একই অনুষদে পড়েন তারা। বন্ধুর বিপদ দেখে তিনি পুলিশকে খবর দেন।
ওই শিক্ষার্থীকে পুলিশ হেফাজতে নেয়ার পর ব্লু-হোয়েল আসক্তরা এখন নিজেদের আড়াল করছেন বলে জানান ফাহিম। এ ব্যাপারে কথা হয় চবি’র শাহ আমানত হলের শিক্ষার্থী মহিউদ্দিন বাবরের সঙ্গে। তিনি বলেন, এ গেম আমিও চার ধাপ পর্যন্ত খেলেছি। তবে সতর্কভাবে। গেমের এডমিনরা আমাকে যা করতে বলেছে তা না করে উত্তর দেয়ায় আমাকে নট এলাউড করেছে। সোহরাওয়ার্দী হলের আরেক শিক্ষার্থী বলেন, এ গেমের ১৩ ধাপ পর্যন্ত আমি খেলেছি। এতে ৫০ ধাপ পর্যন্ত আছে। প্রতিটি ধাপে অনুভূতি যাচাই করে সঠিক উত্তর পেলেই পরবর্তী ধাপ খেলা যায়। এ গেমের প্রতিটি ধাপই বিপজ্জনক। এই গেমের শেষ ধাপে আত্মহত্যার নির্দেশ দেয়া হয়।
গেম খেলা কয়েকজন শিক্ষার্থী অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন, এ গেমে যারা আসক্ত তারা অন্যমনস্ক। ধাপগুলোতে হাত-পা কাটার মতো বিপজ্জনক কাজও আছে। শুধু কাজ করলেই হয় না। উপযুক্ত প্রমাণ হিসেবে ছবিও তুলতে হয়। তবেই চ্যালেঞ্জ পূর্ণ হয়েছে বলে ধরা হবে। এ থেকে গেমে আসক্তিদের সহজে শনাক্ত করা সম্ভব। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আখতারুজ্জামান বলেন, ব্লু-হোয়েলে আসক্ত খবর পেয়ে চবি’র এক শিক্ষার্থীকে আমরা কাউন্সেলিং করেছি। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের মাধমে আরো চার শিক্ষার্থীর এ গেমে আসক্তির খবর পেয়েছি। তাদের প্রতি আমাদের নজরদারি রয়েছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

শীর্ষ সন্ত্রাসী সাদ্দাম হোসেন গ্রেপ্তার

‘আশ্রয়শিবিরে ৫০০ রোহিঙ্গা নারীর যৌন ব্যবসা’

এম কে আনোয়ারের দাফন আগামীকাল

‘আন্দোলনের দাবিগুলো নিয়ে ক্যাবিনেটে সুপারিশ করা হয়েছে’

জঙ্গি অভিযান শেষ, আটক হয়নি কেউই

খালেদা জিয়া কক্সবাজার যাচ্ছেন রোববার

রোনালদোই সেরাা

সেরা একাদশে যারা

রোহিঙ্গা ইস্যু- ফের  আসছেন চীনের বিশেষ দূত

রোহিঙ্গাদের জন্য ৩০০০ কোটি টাকার প্রতিশ্রুতি

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার ও বাংলাদেশকে একই সাথে খুশি করা ভারতের জন্য কি কূটনীতির পরীক্ষা?

সুষমার সতর্ক কূটনীতি

সেসিপ প্রকল্পে ১৩২ কোটি টাকা লোপাট

রোহিঙ্গাদের পাশে রানী রানিয়া

‘সব বিষয় ইমানদারির সঙ্গে মিটিয়ে ফেলবো’

‘সবুজ বিপ্লবের’ পথে পোশাক শিল্প