ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

দেশ বিদেশ

পঞ্চগড় প্রতিনিধি | ১৩ অক্টোবর ২০১৭, শুক্রবার
অনৈতিক কাজের ভিডিও ফুটেজ প্রকাশের ভয়ে আত্মহত্যা করেছে পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়ার মেধাবী শিক্ষার্থী রহিমা আক্তার সোনিয়া। মায়ের কাছে মানসিক যন্ত্রণার কথা বলেও নিজেকে রক্ষা করতে পারেনি সে। তেঁতুলিয়ার কাজী শাহাবুদ্দিন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের নবম শ্রেণির মেধাবী ওই শিক্ষার্থীকে দুই যুবক প্রতারণার ফাঁদে ফেলে আত্মহত্যায় প্ররোচিত করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। লম্পট ওই দুই যুবক গা-ঢাকা দিয়েছে। এদিকে বুধবার রাতে সোনিয়ার মা সেলিনা আক্তার বাদী হয়ে তেঁতুলিয়া থানায় একটি হত্যার অভিযোগ করলেও আগে অপমৃত্যুর মামলা করায় পুলিশ সেই মামলা রেকর্ড করেনি।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার কালারাম জোত গ্রামের পাথর শ্রমিক জাহেরুল ইসলামের কন্যা সোনিয়া তেঁতুলিয়া কাজী শাহাবুদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। ৩ মাস আগে তেঁতুলিয়ার মৃত সোলায়মান আলীর ছেলে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ওয়ার্ড বয় রাজনের (৩২) সঙ্গে পরিচয় হয় রহিমা আক্তার সোনিয়ার।
পরিচয়ের পর রাজনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর রাজন বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। আর এসব প্রতারণায়  সহযোগিতা দিত রাজনের বন্ধু তেঁতুলিয়ার বাশির উদ্দিনের ছেলে আতিকুর রহমান (৩৪)। বন্ধু আতিকও এক পর্যায়ে সোনিয়াকে ধর্ষণ করেছে বলে তেঁতুলিয়া থানায় দাখিল করা এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে। এই অনৈতিক কাজের ভিডিও ফুটেজ করে রাখে তারা। এদিকে কয়েক মাস পর সোনিয়া নিজের ভুল বুঝতে পেরে রাজন এবং আতিকের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। কিন্তু রাজন এবং আতিক স্কুল যাওয়ার পথে সোনিয়াকে পর পর কয়েকবার রাজনের বাড়িতে যেতে বাধ্য করে। রাজনের সঙ্গে শারীরিক মেলামেশা না করলে ধর্ষণের ছবি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়ার হুমকি দেয় তারা। বেশ কয়েক মাস ধরেই এই প্রতারণা চলে। লজ্জা এবং ভয়ে সোনিয়া এসব বিষয় কাউকে জানায়নি। কিন্তু মানসিক যন্ত্রণা সইতে না পেরে গত ২৭শে সেপ্টেম্বর সোনিয়া বিষয়টি তার মায়ের কাছে প্রকাশ করে। সোনিয়ার মা বিষয়টি রাজন ও আতিকের অভিভাবকদের জানালে তারা অন্যত্র সোনিয়ার বিয়ে দেয়ার পরামর্শ দেয়। বিয়ের সময় কিছু টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে বলে জানায় তারা। এসব জেনে ৯ই অক্টোবর রাজন এবং আতিক আবারো সোনিয়ার ছবি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়ার হুমকি দেয়। ১০ই অক্টোবর সকালে সোনিয়া  তার ঘরে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে। সোনিয়ার একটি ডায়রি উদ্ধার করে পুলিশ। পুলিশ জানায় ডায়রিতে সোনিয়া তার প্রেম ঘটিত নানা ঘটনা উল্লেখ করেছে। তেঁতুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সরেস চন্দ্র জানান, এ ব্যাপারে ইউডি মামলা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলেই আমরা অভিযোগটি নিয়মিত মামলা হিসেবে গ্রহণ করবো।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

শীর্ষ সন্ত্রাসী সাদ্দাম হোসেন গ্রেপ্তার

‘আশ্রয়শিবিরে ৫০০ রোহিঙ্গা নারীর যৌন ব্যবসা’

এম কে আনোয়ারের দাফন আগামীকাল

‘আন্দোলনের দাবিগুলো নিয়ে ক্যাবিনেটে সুপারিশ করা হয়েছে’

জঙ্গি অভিযান শেষ, আটক হয়নি কেউই

খালেদা জিয়া কক্সবাজার যাচ্ছেন রোববার

রোনালদোই সেরাা

সেরা একাদশে যারা

রোহিঙ্গা ইস্যু- ফের  আসছেন চীনের বিশেষ দূত

রোহিঙ্গাদের জন্য ৩০০০ কোটি টাকার প্রতিশ্রুতি

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার ও বাংলাদেশকে একই সাথে খুশি করা ভারতের জন্য কি কূটনীতির পরীক্ষা?

সুষমার সতর্ক কূটনীতি

সেসিপ প্রকল্পে ১৩২ কোটি টাকা লোপাট

রোহিঙ্গাদের পাশে রানী রানিয়া

‘সব বিষয় ইমানদারির সঙ্গে মিটিয়ে ফেলবো’

‘সবুজ বিপ্লবের’ পথে পোশাক শিল্প