হঠাৎ নেতিয়ে গেল বাংলাদেশ

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১২ অক্টোবর ২০১৭, বৃহস্পতিবার
অলিম্পিক চ্যাম্পিয়নের তকমা নিয়ে ১৯৮৫ সালে এশিয়া কাপ খেলতে ঢাকায় এসেছিল তৎকালীন বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তান। তারকা ভরা পাকিস্তানকে গ্রুপ পর্বের ম্যাচে নাকানি চুবানি খাইয়ে ছেড়েছিল তরুণ বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ঘাসের মাঠে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ওই ম্যাচটি পাকিস্তান জিতেছিল ১-০ গোলে। ম্যাচের অন্তিম মুহূর্তে জয়সূচক গোলটি করেছিলেন হাসান সরদার। ৩২ বছর পর ঢাকায় ফেরা এশিয়া কাপে শুরুটা তেমনি করেছিল জিমি-চয়নরা। প্রথম কোয়ার্টারে পাকিস্তানকে রুখে দিয়েছিল বাংলাদেশ।
দ্বিতীয় কোয়ার্টারের শুরুতে এক গোল হজমের পর তা শোধ করার সুযোগও এসেছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্য বাংলাদেশের। অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি পাকিস্তানি দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে দুর্দান্ত ফ্লিকও করেছিলেন, তা সাইড পোস্টে লেগে ফিরে এলে হতাশ হয়ে পড়ে লাল-সবুজ শিবির। সেই হতাশায় গ্রাস করে পুরো দলকে, যা আর কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়নি। আর এর খেসারত দিয়ে ৭-০ গোলে হেরে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ। মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এ ম্যাচে সফরকারী দলের আবু মাহমুদ তিনটি গোল করেন। দুটি করে গোল এসেছে শাকিল আহম্মেদ ও আরসালানের স্টিক থেকে।
নিজেদের মাটিতে এশিয়া কাপের আসর, তাই বেশ উজ্জীবিত ছিল বাংলাদেশ শিবির। টুর্নামেন্ট শুরুর আগে এশিয়ার পরাশক্তি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াকু খেলা উপহার দেয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি। কিন্তু প্রস্তুতিতে কোনো ঘাটতি না থাকলেও মাঠে সেটা প্রমাণে ব্যর্থ হয়েছেন। নিজেদের রক্ষণভাগের দুর্বলতা আর অগোছালো আক্রমণই কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। গুনে গুনে সাত গোলের লজ্জা নিয়ে ছাড়তে হয়েছে মাঠ। এরআগে ২০০৭ সালে এশিয়া কাপ হকির সপ্তম আসরে এই পাকিস্তানের কাছে ১০-০ গোলে হেরেছিল লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। এনিয়ে এশিয়া কাপে চার ম্যাচের চারটিতেই হার স্বাগতিকদের।  
গতকাল প্রথম কোয়ার্টারে প্রতিপক্ষ পাকিস্তানের সঙ্গে লড়াইটা দারুণ করেছিল স্বাগতিক শিবির। গোলশূন্য ড্র ছিল ওই কোয়ার্টার। সমান তালে লড়াই করে নিজেদের মাঠে পাকিস্তান শিবিরকে হতাশ করে তুলেছিল। উচ্ছ্বসিত ছিলেন মাঠে ছুটে আসা হাজার তিনেক দর্শকও। কিন্তু সেই ধার খুব বেশি সময় ধরে রাখতে পারেনি বাংলাদেশ।
দ্বিতীয় কোয়ার্টারেই ঘুরে দাঁড়ায় সফরকারীরা। শুরু থেকেই বাংলাদেশ সীমানায় প্রচণ্ড চাপ সৃষ্টি করে তিনবারের চ্যাম্পিয়নরা। ফলও পেয়ে যায় খুব দ্রুত। ম্যাচের ১৮ মিনিটে আবু মাহমুদের পেনাল্টি কর্নারে লাল-সবুজ শিবিরকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যায় পাকিস্তান (১-০)। গোল হজমের পর মাহবুব হারুনের শিষ্যরাও জ্বলে উঠেছিল। পরিকল্পিত আক্রমণে গিয়েছিল তারা। কিন্তু ভাগ্য তাদের সহায় ছিল না। ভাগ্য পক্ষে থাকলে দশ মিনিটের মধ্যেই সমতা ফিরিয়ে আনতে পারতো। কিন্তু অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি পাকিস্তানি দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে দুর্দান্ত হিট নিলেও তা সাইড পোস্টে লেগে ফিরে আসলে হতাশ হয়ে পড়ে লাল-সবুজ শিবির।
ম্যাচের পুরো চিত্র পাল্টে যায় তৃতীয় কোয়ার্টারের প্রথম তিন মিনিটের মধ্যেই। এ কোয়ার্টারে পাকিস্তান তিন গোল আদায় করে নেয়। তবে ম্যাচের ৩৩ মিনিটে টানা দুই গোল করে স্বাগতিকদের ম্যাচ থেকে ছিটকে দেয়।
প্রথমে পেনাল্টি স্ট্রোকে শাকিল আহম্মেদ দলের হয়ে দ্বিতীয় গোল করেন (২-০)। মাত্র ৩০ সেকেন্ডের ব্যবধানে দারুণ এক গোল করে ব্যবধান ৩-০তে নিয়ে যান আরসালান। ম্যাচের ৪১ মিনিটে ৬ষ্ঠ পিসিতে নিজেদের চতুর্থ গোলের দেখা  পায় পাকিস্তান। এ গোলটি এসেছে আবু মাহমুদের স্টিক থেকে (৪-০)। এরপর আর ম্যাচে ফেরা নয়, বরং পরাজয়ের ব্যবধানটা ৪-০ পর্যন্ত ধরে রাখাই ছিল লাল-সবুজ জার্সিধারীদের চেষ্টা। কিন্তু সেই চেষ্টাও সফল হতে দেয়নি সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। ম্যাচের শেষ কোয়ার্টারে আরো তিন গোল করে পাকিস্তান। গোলগুলো এসেছে শাকিল আহম্মেদ, আবু মাহমুদ ও আরসালানের স্টিক থেকে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

সুচির পদত্যাগ করা উচিত

‘প্রশ্ন ফাঁসের মূল হোতারা সরকারদলীয়’

রামের প্রার্থনা করা নারীরা অমুসলিম হয়ে গেছেন

রাজধানীতে ৫ ছিনতাইকারী আটক

টিপু জয়ন্তী নিয়ে কর্নাটকে কংগ্রেস-বিজেপি মুখোমুখি অবস্থানে

পর্যবেক্ষকদের সতর্ক করলেন সিইসি

যুবলীগ নেতাকে গুলি করায় আ’লীগ নেতা আটক, সড়কে ব্যারিকেড

ব্রায়ান ঝড়ে বৃটেনে জীবনযাত্রা বিঘ্নিত

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ১১জনকে জেরার আবেদন নিষ্পত্তি

সন্ত্রাসের সঙ্গে ইসলামপন্থিদের নিয়ে টুইট করে বৃটেনে কড়া সমালোচিত ট্রাম্প

সমকামীদের অধিকার নিশ্চিত করতে চান বিশ্বের সবচেয়ে কম বয়সী প্রধানমন্ত্রী

বিমানবন্দরে নিরাপত্তা জোরদার করছে অস্ট্রেলিয়া

‘৩০ বছরের মধ্যে বিশ্বের সুপারপাওয়ার হবে চীন’

দীঘিনালায় অস্ত্রসহ ইউপিডিএফ’র দুই কর্মী আটক

জাতিসংঘের ফ্যাক্টফাইন্ডিংয়ের কাজ শুরু হচ্ছে কাল থেকে

গ্রেপ্তার হতে পারেন স্বাধীনতা আন্দোলনের আঞ্চলিক প্রেসিডেন্ট