রোহিঙ্গা ইস্যুতে কূটনৈতিক তৎপরতা বাড়ানোর পরামর্শ

৩ এনজিওকে ত্রাণে মানা

দেশ বিদেশ

সংসদ রিপোর্টার | ১২ অক্টোবর ২০১৭, বৃহস্পতিবার
বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া বলপূর্বক বাস্তচ্যুত রোহিঙ্গা নাগরিকদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টিতে কূটনৈতিক তৎপরতা আরো জোরদার করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে তিনটি বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাকে (এনজিও) রোহিঙ্গাদের মধ্যে ত্রাণ-তৎপরতা চালাতে নিষেধ করেছে সরকার। এগুলো হচ্ছে মুসলিম এইড বাংলাদেশ, ইসলামিক রিলিফ এবং আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশন। গতকাল সংসদ সচিবলয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে এসব তথ্য জানানো হয়। বৈঠক শেষে কমিটির সদস্য মাহজাবিন খালেদ সাংবাদিকদের বলেন, মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তিনটি এনজিওকে রোহিঙ্গাদের মধ্যে ত্রাণ-তৎপরতা চালাতে নিষেধ করা হয়েছে। তারা অন্য কোনো কারণে সেখানে কাজ করছিল বলে মনে হয়েছে।
তিনি জানান, এনজিও হিসেবে কাজ করতে এনজিও বিষয়ক ব্যুরো থেকে অনুমতি নেওয়ার কথা থাকলেও তা তারা নেয়নি। অনেকে পারমিশন না নিয়ে সরাসরি চলে যাচ্ছে। সেগুলোও বন্ধ করতে বলা হয়েছে। দীপু মনির সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, কমিটির সদস্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম, মুহাম্মদ ফারুক খান, গোলাম ফারুক খন্দকার প্রিন্স এবং বেগম মাহজাবিন খালেদ। বৈঠকে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে নেয়া পদক্ষেপ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা হয়। মিয়ানমারের অভ্যন্তরে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর সাম্প্রতিক নৃশংস নির্যাতনের পরিপ্রেক্ষিতে আবারো বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পালিয়ে এসে আশ্রয় গ্রহণ, জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে এ বিষয়ে বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া বিশ্লেষণ করা হয়। পাশাপাশি মিয়ানমার, ইন্দোনেশিয়া, তুরস্ক, বৃটেন, সুইজারল্যান্ড, ইউনিসেফ, ইউনেসকো, ইউএনএফপিএসহ বিভিন্ন দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থা থেকে আসা প্রতিনিধিদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বৈঠক এবং বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিদের বলপূর্বক মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিকদের আশ্রয় শিবির পরিদর্শন বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়। বৈঠকে রোহিঙ্গা চ্যালেঞ্জকে বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। বৈঠকে রোহিঙ্গারা যে এ দেশে অস্থায়ী ভিত্তিতে বসবাস করছে এ বিষয়টি আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে প্রচার ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সম্পৃক্ততা বৃদ্ধির মাধ্যমে মিয়ানমারের ওপর চাপ বৃদ্ধি করার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। এ সময় ্প্রতিবেশী দেশ হিসেবে মিয়ানমার ও ভারতসহ সব প্রতিবেশী দেশসমূহের সঙ্গে প্রতিবেশীসুলভ বন্ধুত্বপূর্ণ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক বজায় রাখার ওপরও গুরুত্বারোপ করা হয়। এসময় দেশের জনগণের মধ্যে রোহিঙ্গা সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা দিতে পাঠ্যপুস্তকে একটি অধ্যায় সংযোজন করতে মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়। এ ছাড়াও যেসব প্রতিনিধি আইপিইউ এবং সিপিএসহ বিভিন্ন প্রতিনিধিদলে যোগদান করবেন তারা যাতে রোহিঙ্গা ইস্যুটি আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে উত্থাপন করতে পারেন সে লক্ষ্যে তাদের জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে রোহিঙ্গা বিষয়ে একটি সংক্ষিপ্তসার সরবরাহ করার সুপারিশ করা হয়। কমিটির বৈঠকে রোহিঙ্গাদের বিষয়ে জাতিসংঘ মহাসচিবের ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি, এ বিষয়ে জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাব উত্থাপন এবং নিরাপত্তা পরিষদে এ ইস্যুতে ১৫টি দেশের মধ্যে ১২ দেশের অকুণ্ঠ সমর্থন এবং জাতিসংঘে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলকে বিশ্ব সম্প্রদায়ের বিশেষ সম্মান প্রদর্শন বাংলাদেশের কূটনৈতিক সফলতা হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘এখন ভালো কথা ও সুরের চেয়ে মিউজিকটাকেই বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়’

ডেমরায় অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ আটজন

‘অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন প্রত্যাশা করে ভারত’

আরো একটি লজ্জা

শাসন যেখানে বাছবিচারহীন

উচ্চ ব্যয়ের ঢাকায় নিম্নমানের জীবন

সৌদি আরবে অনাহারে-অর্ধাহারে তাদের দিন

জলাবদ্ধতার কী দেখেছেন কলকাতা-মুম্বই যান

চট্টগ্রামে যুবলীগ নেতার পায়ে আওয়ামী লীগ নেতার গুলি

গ্রাহক টানতে পারছে না ‘দোয়েল’

সিলেটে যে ছবিটি এখন ভাইরাল

পর্যবেক্ষকদের সতর্ক করলেন সিইসি

লড়াই হবে ত্রিমুখী

পাহাড়ে হঠাৎ বেপরোয়া সশস্ত্র সংগঠনগুলো

পাঁচ বিভাগীয় শহরে বিটিভি’র স্টেশন হচ্ছে

প্রধানমন্ত্রীকে লেখা এক প্রধান শিক্ষকের খোলা চিঠি