আদালতের নির্দেশ অমান্য করে রাস্তা নির্মাণ

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে | ১২ অক্টোবর ২০১৭, বৃহস্পতিবার
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের তারুয়া গ্রামে ব্যক্তির জায়গা দখল করে রাস্তা বানিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান। আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রাতের অন্ধকারে রাস্তাটি বানানো হয়। পুলিশের বাধাও মানা হয়নি। এখন জায়গার মালিককে দেয়া হচ্ছে হুমকি। এ নিয়ে বিরাজ করছে এলাকায় উত্তেজনা।
জানা যায়- তারুয়া মৌজার ১০২৬ দাগের ৩৪ শতক ভিটা ভূমি হালে পুকুর শ্রেণির জায়গার মালিক মো. মন্নাফ মিয়া।
এই জায়গার দক্ষিণাংশে রয়েছে খাস জায়গা। মন্নাফ মিয়া অভিযোগ করেন খাসের ওই জায়গা ফেলে তার জায়গা দখল করে রাস্তা বানানো হয়েছে। এ নিয়ে ৩রা অক্টোবর আদালতে একটি মামলা করেন তিনি। এই মামলায় আদালত ওই জায়গায় ১৪৪ ধারা জারি করার আদেশ দেন। উভয়পক্ষকে স্ব-স্ব স্থানে অবস্থান করে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখতে বলা হয় আদেশে। আদালতের এই আদেশের বিষয়টি আশুগঞ্জ থানা থেকে মামলার বিবাদী তারুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইদ্রিস হাসান, ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য আলামিন ও ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য হাবিব মিয়াকে জানিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু আদালতের আদেশ অমান্য করে গত ৫ই অক্টোবর দিবাগত রাতে রাস্তা নির্মাণের কাজ শুরু করা হয়। পরদিনও চলে রাস্তা নির্মাণের কাজ। খবর পেয়ে পুলিশ এসে বাধা দিলেও পরোয়া করেননি চেয়ারম্যান। মন্নাফ মিয়া জানান- ১০/১৫ বছর ধরে জায়গাটিতে মৌসুম অনুসারে ধান আবাদ, বীজতলা এবং মাছ চাষ করে আসছেন তিনি। তিনি বলেন, রাস্তা করায় আমার আপত্তি ছিল না। দক্ষিণ পাশে আমার জমির সীমানা শেষে খাস জায়গা রয়েছে। সেটি বাদ দিয়ে তারা আমার জায়গার ওপর দিয়ে রাস্তা করে ফেলেছে। এতে আমার জায়গা বিভক্ত হয়ে ২৫ ফুট অংশ পড়েছে রাস্তার অপর পাশে অর্থাৎ দক্ষিণদিকে। তিনি অভিযোগ করেন রাতের অন্ধকারে চেয়ারম্যান তার বংশের লোকজনকে নিয়ে রাস্তাটি ঢালাই করেন। সকালে ঘুম থেকে উঠে এ অবস্থা দেখে আমি থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে তাদেরকে কাজ করতে থাকা অবস্থায় দেখতে পায়। এরপর নিষেধ করে গেলেও তারা কাজ চালিয়ে যায়। আদালতের নির্দেশে বিবাদী পক্ষকে নোটিশ প্রদানকারী আশুগঞ্জ থানার সাব-ইন্সপেক্টর মো. আবদুল মান্নান বলেন- আদালতের নির্দেশে ১৪৪ ধারা নোটিশ জারি করে কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়। এরপর আমি সেখানে ২ ঘণ্টা অবস্থান করে অন্যত্র চলে যাওয়ার পর তারা আদালতের নির্দেশ অমান্য করে আবার কাজটি করে ফেলে। এ ব্যাপারে আমরা একটা প্রতিবেদন দেব। ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আবুল কালামও জানিয়েছেন পুলিশ বাধা দেয়ার পরও রাস্তার কাজ হয়েছে। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান ইদ্রিস হাসান বলেন- আদালত আমার কাছে পরে এসেছে। কাজ করার পর আমি নোটিশ পেয়েছি। পরে আবার বলেন, কাজ আমি না জনগণ করেছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বৃটিশ নারী এমপিদের যৌন নির্যাতনের কাহিনী

প্রাণ-আরএফএল’র মহিলা শ্রমিককে গণধর্ষণ

মাও সেতুংয়ের পর সবচেয়ে শক্তিশালী প্রেসিডেন্ট সি জিনপিং

সাবেকদের সঙ্গে ইসির সংলাপ শুরু

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে নতুন অবরোধ আরোপের কথা ভাবছে যুক্তরাষ্ট্র

শীর্ষ সন্ত্রাসী সাদ্দাম হোসেন গ্রেপ্তার

আশ্রয়শিবিরে রোহিঙ্গা নারীদের যৌন ব্যবসা, খদ্দের বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া থেকে স্থানীয় রাজনীতিক

এম কে আনোয়ারের দাফন আগামীকাল

‘আন্দোলনের দাবিগুলো নিয়ে ক্যাবিনেটে সুপারিশ করা হয়েছে’

জঙ্গি অভিযান শেষ, আটক হয়নি কেউই

খালেদা জিয়া কক্সবাজার যাচ্ছেন রোববার

রোনালদোই সেরাা

সেরা একাদশে যারা

রোহিঙ্গা ইস্যু- ফের  আসছেন চীনের বিশেষ দূত

রোহিঙ্গাদের জন্য ৩০০০ কোটি টাকার প্রতিশ্রুতি

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার ও বাংলাদেশকে একই সাথে খুশি করা ভারতের জন্য কি কূটনীতির পরীক্ষা?