রোহিঙ্গা ইস্যুতে নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক কাল

শেষের পাতা

মানবজমিন ডেস্ক | ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:২১
রাখাইন সহিংসতা ইস্যুতে বৃহস্পতিবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ বৈঠকে বসছে। এতে বক্তব্য রাখবেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরাঁ। মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতাকে তিনি এর আগেই জাতি নিধন হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। তবু সুইডেন, যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন, ফ্রান্স, মিশর, সেনেগাল ও কাজাখস্তানের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার ওই বৈঠক বসছে। এর প্রস্তুতি হিসেবে মঙ্গলবার জাতিসংঘের রাজনৈতিক বিষয়ক প্রধান জেফ্রে ফেল্টম্যান পরিষদকে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করার কথা। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।
এতে বলা হয়, ২৫শে আগস্ট রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে সহিংসতা শুরুর পর কমপক্ষে চার লাখ ৩৬ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষে কথা বলেছেন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স। তিনি গত বুধবার বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প চাইছেন এই সহিংসতা দ্রুত বন্ধে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের কঠোর ও দ্রুততর পদক্ষেপ। এরই মধ্যে রোহিঙ্গা ইস্যুতে নিরাপত্তা পরিষদ দু’দফা বৈঠক করেছে। তা ছিল রুদ্ধদ্বার বৈঠক। প্রথম বৈঠকের বিষয়ে কোনো আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দেয়া হয়নি। তবে পরের বৈঠক থেকে দেয়া অনানুষ্ঠানিক বিবৃতিতে পরিস্থিতির নিন্দা জানানো হয়। সহিংসতা বন্ধ করতে আহ্বান জানানো হয় মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে। সেখানে যদি অবস্থার উন্নতি না হয় তাহলে আনুষ্ঠানিকভাবে একটি বিবৃতি বিবেচনা করতে পারে নিরাপত্তা পরিষদ। কিন্তু মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কঠোর কোনো পদক্ষেপ চীন ও রাশিয়া সম্মত হবে বলে মনে হচ্ছে না। যেকোনো প্রস্তাব বা রেজুলেশনে তাদের ভেটো দেয়ার ক্ষমতা আছে। তারা ভেটো দিলেই রেজুলেশন মাঠে মারা যাবে। নিরাপত্তা পরিষদে কোনো রেজুলেশন বা প্রস্তাব পাস হতে হলে ১৫ সদস্যের মধ্যে কমপক্ষে ৯টি ভোট পেতে হবে। তবে এ পরিষদে রয়েছে ৫টি স্থায়ী সদস্য দেশ। তারা হলো রাশিয়া, চীন, যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন ও ফ্রান্স। তাদের কেউ কোনো প্রস্তাবে ভেটো দিলে তা আর পাস হয় না। এদিক থেকে জাতিসংঘে রক্ষার জন্য চীন ও রাশিয়ার আগেভাগেই দ্বারস্থ হয়েছে মিয়ানমার। তাদেরকে নিজেদের দলে ভেড়ানোর দূতিয়ালি শুরু করে বেশ কিছুদিন আগে, যাতে তারা মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ জাতিসংঘ গ্রহণ করলেই তাতে ভেটো দেয়।
 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা হিমঘরে পাঠালেন আরো এক বিচারক

পেপ্যালের জুম সেবার উদ্বোধন

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে দায়ী করলো যুক্তরাষ্ট্র

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি মজনু গ্রেপ্তার

ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা কাল

কুয়েতে এসি বিস্ফোরণে নিহত পাঁচজনের মরদেহ দেশে,বিকালে দাফন

আমাদের অনেক এমপি অত্যাচারী, অসৎ : অর্থমন্ত্রী

মিয়ানমার থেকে শূন্য হাতে ফিরলেন জাতিসংঘ কর্মকর্তা

‘এ নিয়ে আমার কোনো আফসোস নেই’

সোমালিয়ায় হামলায় নিহত ৩ শতাধিক, বৈশ্বিক সংহতি কোথায়?

মেসির সেঞ্চুরি, বার্সেলোনার জয়

ম্যানইউ’র জয়ের ধারা অব্যাহত

ইভিএম চায় আওয়ামী লীগ সীমানায় অনীহা

আরো একটি পরাজয়

আরো অর্থায়ন না হলে রোহিঙ্গা শিশুদের সহায়তায় বিপর্যয়

চীন-রাশিয়া পাশে আছে