বিএটির কর ফাঁকির বিচার দাবিতে রংপুরে মানববন্ধন

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, মঙ্গলবার
ট্যাক্স ফাঁকি দেয়াসহ কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করায় বৃটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানির (বিএটি) বিচার দাবিতে মানববন্ধন করেছে রংপুর জেলার বিড়ি শ্রমিকরা। মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি পেশ করা হয়। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ের সামনে  বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশন, রংপুর এই মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের রংপুর জেলা সভাপতি আমিন উদ্দিন বিএসসি। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন হারাগাছের বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক  আবুল হাসনাত লাভলু ও বিড়ি শ্রমিক নেতা রাশেদুল হক। মানববন্ধন শেষে আয়োজিত সমাবেশে বক্তারা বলেন, বৃটিশ আমেরিকান  টোব্যাকো কোম্পানি (বিএটি) ট্যাক্স ফাঁকির মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে।
সেই অর্থ তুলতে সরকার বিড়ির ওপর অযৌক্তিক কর বসিয়ে শত বছরের পুরনো  কুটির শিল্পকে ধ্বংসের পাঁয়তারা করছে। বক্তারা বলেন, নব্য ইস্টইন্ডিয়া (বিএটি) এই কাজে সহযোগিতা করছে দেশের আমলাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিরা। সমাবেশে বক্তারা বলেন, বিএটিসহ এর সঙ্গে জড়িতদের অবিলম্বে আইনের আওতায় আনার দাবি জানানো হয় মানববন্ধন কর্মসূচিতে। পরে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি পেশ করা হয়।
উল্লেখ বিভিন্ন দেশে বৃটিশ আমেরিকান  টোব্যাকোর (বিএটি) একের পর এক ঘুষ ও দুর্নীতির অভিযোগ ফাঁস হওয়ার পর বাংলাদেশে কোম্পানির বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। অভিযোগ উঠেছে বাজেটে রাজস্ব বা কর কম বসানোর জন্য সরকারের উচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিদের তারা ব্যবহার করছে। এমনকি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (্‌এনবিআর) সঙ্গে বাজেটের আগে তারা কয়েক দফা গোপন বৈঠকও করেছে বলে সংশ্লিষ্টরা অভিযোগ করেছেন। বিশেষ করে দামি সিগারেটের দাম ২০১৪-১৫ অর্থবছরে প্রতি প্যাকেটে ছিল ৯০ টাকা। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে এক লাফে সেই সিগারেটের দাম করা হয়েছে ৭০ টাকা। অভিযোগ করা হচ্ছে এই দাম কমানোর পেছনে বিএটি সরকারি কর্তাদের ব্যবহার করেছেন। এছাড়াও তাদের বিরুদ্ধে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন প্রণয়নে প্রভাব খাটিয়ে সিগারেটের প্যাকেটে সচিত্র সতর্কবাণী প্রকাশে বিলম্বের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও বিড়ি শিল্প ধ্বংসের পাশাপাশি দেশীয় সিগারেটের বাজারকে ক্ষতিগ্রস্ত করার জন্য নানাবিধ কৌশল অবলম্বন করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও বৃটিশ আমেরিকান কোম্পানি নানাভাবে রাজস্বনীতিতে প্রভাব ফেলছে। এমনকি তামাকবিরোধী আইন প্রণয়নের ব্যাপারেও তারা সরাসরি হস্তক্ষেপ করে। বর্তমানে সরকারের প্রভাবশালী কিছু কার্যালয় ব্যবহার করে তারা এই কাজগুলো করে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটি জানায়, এদিকে বাজেটে নির্ধারিত দামেও তারা সিগারেট বিক্রি করছে না। দেশি-বিদেশি সিগারেটের দাম সমান করতে তারা বিভিন্ন ব্যক্তির মাধ্যমে লবিং করছে। বিএটির এসব কার্যক্রমের তদন্তের দাবি উঠেছে বিভিন্ন তামাকবিরোধী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা হিমঘরে পাঠালেন আরো এক বিচারক

পেপ্যালের জুম সেবার উদ্বোধন

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে দায়ী করলো যুক্তরাষ্ট্র

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি মজনু গ্রেপ্তার

ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা কাল

কুয়েতে এসি বিস্ফোরণে নিহত পাঁচজনের মরদেহ দেশে,বিকালে দাফন

আমাদের অনেক এমপি অত্যাচারী, অসৎ : অর্থমন্ত্রী

মিয়ানমার থেকে শূন্য হাতে ফিরলেন জাতিসংঘ কর্মকর্তা

‘এ নিয়ে আমার কোনো আফসোস নেই’

সোমালিয়ায় হামলায় নিহত ৩ শতাধিক, বৈশ্বিক সংহতি কোথায়?

মেসির সেঞ্চুরি, বার্সেলোনার জয়

ম্যানইউ’র জয়ের ধারা অব্যাহত

ইভিএম চায় আওয়ামী লীগ সীমানায় অনীহা

আরো একটি পরাজয়

আরো অর্থায়ন না হলে রোহিঙ্গা শিশুদের সহায়তায় বিপর্যয়

চীন-রাশিয়া পাশে আছে