মোবাইল ও ৬০০ টাকার জন্য খুন হয় শুভ্র

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:১৭
নারায়ণগঞ্জে সরকারি তোলারাম কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র শাহ রিয়াজ মাহমুদ শুভ্রকে হত্যার ঘটনায় ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। শুভ্রর সঙ্গে থাকা ৬০০ টাকা ও একটি মোবাইল ফোন সেট ছিনিয়ে নিতেই ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটেছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে গ্রেপ্তারকৃতরা। বুধবার দুপুরে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন উপ-পরিদর্শক (এসআই) মফিজুল ইসলাম। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- কুমিল্লা তিতাস উপজেলার মঙ্গলকান্দি এলাকার বেলায়েত হোসেনের ছেলে সিএনজি চালক মো. ইয়ামিন ওরফে আল আমিন (২৩), কুমিল্লা দেবীদ্বার উজালী কান্দি এলাকার কেসমত আলীর ছেলে মো. জালাল (৩০), কুমিল্লা চান্দিনা হোসেনপুর এলাকার আলম মিয়ার ছেলে জুয়েল (২২), সিদ্ধিরগঞ্জের দক্ষিণ নিমাই কাশারী এলাকার বাবুল মিয়া খানের ছেলে মো. রবিন (২৮)।
ডিবির কর্মকর্তা মফিজুল ইসলাম জানান, নিহত শাহ রিয়াজ শুভ্রর মোবাইল ফোনের সূত্রধরে মঙ্গলবার রাত আড়াইটায় যাত্রাবাড়ী থানার শনির আখড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় ছিনতাই কাজে ব্যবহৃত ১টি সিএনজি অটোরিকশা, ২টি চাকু এবং শুভ্রর মোবাইল ফোনসহ আসামিদের ৪টি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়। তিনি আরো জানান, গত ৮ই সেপ্টেম্বর সকালে শুভ্র ঢাকা যাওয়ার জন্য শিবু মার্কেট এলাকা থেকে ১০ টাকা ভাড়ায় সাইনবোর্ড যাওয়ার উদ্দেশ্যে সিএনজি অটো রিকশাতে উঠে। ওই অটো রিকশাটি মূলত ছিনতাইয়ের কাজে ব্যবহৃত হতো। চালক ও যাত্রীবেশী তিনজন মিলে রাস্তার মধ্যে চাকু ও ছুরি দিয়ে ভয় দেখিয়ে শুভ্রর চোখ ও হাত বেঁধে ফেলে। সে চিৎকার দেয়ার চেষ্টা করলে মুখ চেপে ধরে। পরে তার কাছ থেকে ৬০০ টাকা ও একটি মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে শুভ্রকে রাস্তার পাশে ফেলে দেয় ছিনতাইকারীরা। সেখান থেকে শুভ্র পানিতে পড়ে যায়। তবে তারা ছিনতাইয়ের কথা স্বীকার করলেও হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেনি।’ ডিবির এই কর্মকর্তা আরো বলেন, ‘আসামিদের আরো জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হবে।’ গত ৮ই সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকালে ফতুল্লার লালপুরের বাসা থেকে ঢাকার মীরপুর যাওয়ার উদ্দেশ্যে বের হয়ে নিখোঁজ হয় শাহ রিয়াজ শুভ্র। শনিবার শুভ্রর বাবা কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ফতুল্লা মডেল থানায় একটি জিডি করেন। এদিকে শনিবার নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা লিংক রোডের ফতুল্লার ভুঁইগড় এলাকায় একটি ডোবা থেকে অজ্ঞাত লাশ হিসেবে শুভ্রর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে রোববার সকালে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে লাশের পরনের জামা, প্যান্ট ও জুতা দেখে শুভ্রর লাশ বলে শনাক্ত করে পরিবারের সদস্যরা। নিহত শাহ রিয়াজ মাহমুদ শুভ্র নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ও বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন ফতুল্লা থানার প্রাথমিক সদস্য। এ ছাড়াও সে নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রকাশিত যুগের চিন্তা অনলাইনের অপারেটর হিসাবে কাজ করতো।
শুভ্রর ঘাতকদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি ত্বকি মঞ্চের
এদিকে সরকারি তোলারাম কলেজের ছাত্র শাহ রিয়াজ শুভ্র হত্যার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকি মঞ্চ। তারা বলেন, আমরা আশা করবো গ্রেপ্তারকৃত ঘাতকরা যাতে আইনের ফাঁক-ফোঁকর দিয়ে বেরিয়ে আসতে না পারে সেভাবে পুলিশ তাদের অভিযোগ পত্র তৈরি করবে এবং আদালতে পেশ করবে। আমরা অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করছি এবং নিহতের পরিবারের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করছি।

 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন