চাল আমদানিতে কৃষককে সংকটে পড়তে হবে না

দেশ বিদেশ

সংসদ রিপোর্টার | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বুধবার
চাল আমদানিতে কৃষককে কোনো ধরনের সংকটে পড়তে হবে না বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তিনি আরো জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে ট্যারিফ কমিয়ে দেয়া হলেও আগামীতে উৎপাদনের পর তা পুনর্বহাল করা হবে। গতকাল সংসদ অধিবেশনে জরুরি জনগুরুত্বপূর্ণ নোটিশের জবাবে তিনি একথা বলেন। ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে চলা অধিবেশনে এ সংক্রান্ত নোটিশটি উত্থাপন করেন বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য নূরুল ইসলাম মিলন। নোটিশে তিনি বলেন, দেশের খাদ্য ঘাটতি মোকাবিলায় চাল আমদানির পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। অতিরিক্ত চাল আমদানি যাতে না করা হয়, সে বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী পরামর্শ দিয়েছেন।
কারণ দেশের উৎপাদিত চালের সঠিক মূল্য যাতে কৃষক পায় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আপৎকালীন সময়ের জন্য খাদ্য আমদানির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে খাদ্য ঘাটতি মোকাবিলায় ১৫ লাখ টন চাল ও ৫ লাখ টন গম আমদানির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। চালের সংকট যাতে না হয়, সেজন্য ট্যারিফ ২৮ শতাংশ থেকে প্রথমে ১০ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়। পরে দুই শতাংশ করা হয়। শুধু হিসাব রাখতে এটা করা হয়েছে। এখন সরকারের পাশাপাশি বেসরকারিভাবেও চাল আমদানি হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, এটা সাময়িক সময়ের জন্য করা হয়েছে। খাদ্য উৎপাদন হলে আবার ওই ট্যারিফ বহাল করা হবে। বিএনপি-জামায়াত সরকারের আমলে দেশের খাদ্য সংকটের কথা তুলে ধরে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, সরকারের কার্যকর পদক্ষেপের ফলে দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়। কিন্তু প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে এবার ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। যে কারণে এবার আমরা চাহিদা অনুযায়ী খাদ্য মজুদ করতে পারি নাই।

তাই চাল আমদানির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, বন্যার পর ফসল ভালো হয়। এবারো তাই হবে বলে আশা করছি। প্রধানমন্ত্রীরও নির্দেশনা রয়েছে, কোনো ভাবেই কৃষক যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। সে বিষয়ে আমরাও সতর্ক রয়েছি। তাই কৃষদের স্বার্থ রক্ষায় আবারো চাল আমদানির উপর পূর্ব নির্ধারিত ট্যারিফ পুনর্বহাল করা হবে।
বন্ধ বস্ত্রকলগুলো চালুর পরিকল্পনা
দেশের বন্ধ বস্ত্রকলগুলো পুনরায় চালুর পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে বলে জানিয়েছেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে সরকারি দলের সদস্য এম. আবদুল লতিফের লিখিত প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো জানান, বেকার শ্রমিকদের পুনর্বাসনের লক্ষ্যে বিটিএমসি’র নিয়ন্ত্রণাধীন বন্ধ বস্ত্রকলগুলো পুনরায় চালু করা হবে। একই প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জানান, দেশি-বিদেশি যৌথ উদ্যোগে বা পিপিপি-এর মাধ্যমে এসব বন্ধ বস্ত্রকল সচল রাখার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে বিটিএমসি’র কার্যক্রম চলমান রয়েছে। তিনি আরো জানান, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়াধীন বিজেএমসি’র আওতায় ২৬টি পাটকল রয়েছে। সবক’টি পাটকল বর্তমানে চালু রয়েছে।
 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

মুগাবের পদত্যাগ, জিম্বাবুয়েজুড়ে উল্লাস

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে চীনের প্রস্তাব, যা বললেন মুখপাত্র...

তিন বাহিনীকে আধুনিক করতে সবই করবে সরকার

নিজেদের কার্যালয়ে এজাহার দায়েরের ক্ষমতা চায় দুদক

জাতিসংঘের সম্পৃক্ততায় আপত্তি মিয়ানমারের

চলতি সপ্তাহেই সমঝোতার আশা সুচির

বিচারক রেফারি মাত্র

বাংলাদেশে বসবাসকারী রোহিঙ্গা নেতা নিখোঁজ

অভিশংসনের মুখে মুগাবে

মাঠ গোছাতে ব্যস্ত প্রার্থীরা

নিজাম হাজারীর লোকজন খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলা করে

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের নামে লুটপাট চলছে

দুদকের মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন মেয়র সাক্কু

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন টিটু রায়

আনসারুল্লাহ’র দুই জঙ্গি কলকাতায় গ্রেপ্তার

‘আওয়ামী লীগ ৪০টির বেশি আসন পাবে না’