পশ্চিমবঙ্গে মৌরলার চেয়ে কম দামে মিলছে অঢেল ইলিশ

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, বুধবার
বাংলাদেশের পদ্মা-মেঘনার ইলিশের স্বাদ বঞ্চিত হলেও এই মওসুমে পশ্চিমবঙ্গের মানুষ ইলিশ পাচ্ছেন তাদের নাগালের মধ্যে। সমুদ্র থেকে প্রচুর ইলিশ তুলে আনছেন মৎস্যজীবীরা। প্রতিদিন কাকদ্বীপ, ডায়মন্ড হারবার, নামখানা, পাথরপ্রতিমা প্রভৃতি মৎস্যবন্দরে আসছে টন টন ইলিশ। ফলে দামও কমেছে পাল্লা দিয়ে। ইলিশ বিলাসী বাঙালি হামলে পড়েছে বাজারে। সব আড্ডার একটাই আলোচ্য, কত দামে ইলিশ কিনলেন বা কটা ইলিশ কিনলেন।
কলকাতার সব কটি বাজারেই অন্য সব মাছকে মুখ লুকোতে বাধ্য করেছে ইলিশ। অন্য সব মাছের দামও ইলিশের দাপটে কমছে।  মৌরলা, পুঁটির অর্ধেক দামে পাওয়া যাচ্ছে ইলিশ। কলকাতার মানিকতলা, গড়িয়াহাট, লেক মার্কেট, শ্যামবাজারের বাজারে এখন ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে অনেক কম দামে। বাজারে বাজারে এখন একটাই আওয়াজ, ‘দেড়শোয় ইলিশ খান’। অথচ মাত্র দিন পনেরো আগেই কলকাতার বাজারের  ইলিশ চারশ রুপির নীচে পাওয়া যাচ্ছিল না। আর এক কিলো ওজনের ইলিশের দাম ছিল ১৮০০ থেকে ২০০০ রুপি। এখন সেটাই নেমে এসেছে ১২০০ রুপিতে। ইলিশের এই দাম কমার জন্য বেশি বেশি করে ইলিশ ওঠাকেই চিহ্নিত করেছেন কাকদ্বীপের মৎস্যজীবীদের সংগঠনের নেতা সতীনাথ পাত্র। তিনি জানিয়েছেন, প্রতিদিন বিভিন্ন বন্দর মিলিয়ে একশ-দেড়শ টন ইলিশ উঠছে। কিন্তু এই বিপুল পরিমাণ ইলিশ হিমাগারে রাখার কোনও ব্যবস্থা এখনও গড়ে ওঠনি। ফলে অল্প দামেই মাছ পাইকারদের হাতে তুলে দিতে হচ্ছে মৎস্যজীবীদের। পাইকাররা কিছু বড় সাইজের মাছকে তাদের নিজস্ব হিমঘরে রেখে দিচ্ছেন অসময়ে বিক্রির জন্য। বাকী সব মাছ বাজারে চলে যাচ্ছে। মানিকতলা বাজারে মৎস্য ব্যবসায়ী বাবলু দাস জানিয়েছেন, বাজারে এখন ইলিশ মাছের ছড়াছড়ি। অন্য মাছের দিকে মানুষ তাকাচ্ছেনও না। সকলেই ইলিশ কিনতে সকাল থেকে ভিড় করছেন। তবে ৪০০ থেকে ৬০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বেশি বিক্রি হচ্ছে। দেড়শ থেকে সাড়ে তিনশ রুপির মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে এই মাছ। তবে তিনি আফশোসের সঙ্গে জানালেন, আগে ইলিশ মাছের যে স্বাদ ছিল এই সব মাছে তা নেই। তবুও মানুষ ইলিশের নামের মোহে ইলিশ কিনছেন প্রায় দিনই। শ্যামবাজারে দেখা এক ক্রেতার সঙ্গে। রাসবিহারী বিশ্বাস নামের এই ক্রেতা জানিয়েছেন, এই সপ্তাহে প্রতিদিনই বাজারে এসে ইলিশ কিনেছি। এই সুযোগ আর কবে পাবো তা তো জানি না। অনেক বাজারে তো ইলিশ কেনার জন্য লাইনও দিচ্ছেন ক্রেতারা। ইলিশের টানে হেঁসেলে প্রতিদিনের মেনুতেও বদল ঘটেছে। কোন দিন ইলিশ ভাজা, কোনদিন সরষে ইলিশ, কোনদিন ভাপা ইলিশ এমনি নানা পদের আয়োজনে ব্যস্ত গৃহিনীরা।  ইলিশের এই সস্তা দামের সুযোগে পাড়ায় পাড়ায় শুরু হয়েছে ইলিশ উৎসব। চারিদিকে এই ইলিশ ভোজনের ফ্লেক্স আর হোর্ডিং। শুধু তাই নয়, গত মঙ্গলবার শিক্ষক দিবসে রাজ্যের বহু স্কুলের মিড ডে মিলে ছাত্র-ছাত্রীদের ইলিশ খাওয়ানো হয়েছে। শহরের বাইরে তো কোথাও কোথাও একশ রুপি দরেও ছোট ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে বলে জানা গেছে। রাজ্যের ইলিশ আমদানী-রপ্তানী সংস্থার অন্যতম কর্ণধার অতুল চন্দ্র দাস জানিয়েছেন, গত এক দশকে এতো সস্তায় ইলিশ বিক্রি হয়নি । তিনি আশা প্রকাশ করে বলেছেন, ইলিশ মাছকে বংশ বিস্তার করতে দিলে আগামীতে রাজ্যের মানুষ আরও বেশি বেশি ইলিশ মাছ খেতে পারবেন। তিনি আরও জানিয়েছেন, বাংলাদেশের মতই পশ্চিমবঙ্গেও ইলিশ ধরার ক্ষেত্রে নানা বিধি নিষেধ আরোপ হওয়ায় তার সুফল পাওয়া যাচ্ছে। তবে তিনি মনে করেন, নজরদারি আরও বাড়ানো দরকার। রাজ্যের মৎস্য দপ্তরের এক আধিকারিকও জানিয়েছেন, প্রয়োজনের সময় ও সুযোগ দেবার জন্য মৎস্যজীবীদের নানা ভাবে সচেতন করা হচ্ছে। আইনি ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে। এদিকে তিনি জানিয়েছেন, কলকাতার উপকন্ঠে পূর্ব কলকাতার জলাভূমিতে পরীক্ষামূলকভাবে ইলিশ উৎপাদনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আশার আলোও দেখা যাচ্ছে বলে তিনি দাবি করেছেন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Akbar Ali

২০১৭-০৯-০৫ ২৩:৪৮:১৪

দাদা যা লিখেছেন না, দারুন গো। আমারতো রীতিমত আশংকা হচ্ছে যে, পশ্চিমবঙ্গ হতে কালোবাজারে বাংলাদেশে ইলিশ আসা শুরু হয়ে যায় কি না! লিখা পড়ে তেমনটায় মনে হচ্ছে। ব্যাপারটা দারুন জমবে কিন্তু। জিভটায় জল আসছে! বাংলাদেশে ইলিশের দাম বেশী হওয়ায় কত দিন খেতে পারি না। দাঁড়াও বেটা দেশী বেপারীরা। খালি কোলকাতার ইলিশটা কালবাজারে যাইয়া লোক।

আপনার মতামত দিন

মুগাবের পদত্যাগ, জিম্বাবুয়েজুড়ে উল্লাস

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে চীনের প্রস্তাব, যা বললেন মুখপাত্র...

তিন বাহিনীকে আধুনিক করতে সবই করবে সরকার

নিজেদের কার্যালয়ে এজাহার দায়েরের ক্ষমতা চায় দুদক

জাতিসংঘের সম্পৃক্ততায় আপত্তি মিয়ানমারের

চলতি সপ্তাহেই সমঝোতার আশা সুচির

বিচারক রেফারি মাত্র

বাংলাদেশে বসবাসকারী রোহিঙ্গা নেতা নিখোঁজ

অভিশংসনের মুখে মুগাবে

মাঠ গোছাতে ব্যস্ত প্রার্থীরা

নিজাম হাজারীর লোকজন খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলা করে

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের নামে লুটপাট চলছে

দুদকের মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন মেয়র সাক্কু

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন টিটু রায়

আনসারুল্লাহ’র দুই জঙ্গি কলকাতায় গ্রেপ্তার

‘আওয়ামী লীগ ৪০টির বেশি আসন পাবে না’