চিকুনগুনিয়ার চিকিৎসা

শরীর ও মন

অধ্যাপক ডা. খাজা নাজিম উদ্দীন | ২৩ আগস্ট ২০১৭, বুধবার
কয়েক বছর ধরে ডেঙ্গুর প্রকোপ নিয়মিত দেখা যাচ্ছে। সম্প্রতি এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে নতুন ভাইরাস জ্বর চিকুনগুনিয়া। চিকুনগুনিয়া ভাইরাস শরীরে প্রবেশের দুই থেকে চার দিনের মধ্যে আকস্মিক জ্বর শুরু হয় এবং এর সঙ্গে অস্থিসন্ধিতে ব্যথা থাকে যা কয়েক সপ্তাহ কিংবা মাস স্থায়ী হতে পারে। এই ভাইরাসটি মশার কামড়ের মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করে। আক্রান্ত ব্যক্তির জ্বরটি ডেঙ্গু নাকি চিকুনগুনিয়া এটা নিয়ে বিভ্রান্ত হওয়া খুব স্বাভাবিক কারণ এই দুই ধরনের ভাইরাস প্রায় এই সময়ে দেখা দেয়া। এদের জীবাণুবাহী মশাও একই প্রজাতির, এডিস।
রোগের লক্ষণ ও উপসর্গেও নানা মিল আছে। এখন জ্বর, গায়ে ব্যথা, র‌্যাশ বা ফুসকুড়ি দেখা দিলে অনেকেরই মধ্যে আতঙ্ক কাজ করে। এটা ডেঙ্গু, নাকি চিকুনগুনিয়া!
চিকুনগুনিয়া চেনা
ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া দুটোই ভাইরাস জ্বর। পাশাপাশি থাকে তীব্র শরীর ব্যথা। তবে পার্থক্য হলো, ডেঙ্গুজ্বরে চোখ ও মাথায় প্রচ- ব্যথা হয়, মাংসপেশি ও হাড়েও ব্যথা হয়, তবে গিরা তেমন ফোলে না ব্যথাও কম থাকে। কিন্তু চিকুনগুনিয়ার বৈশিষ্টই হচ্ছে গিরায় ব্যথা। আফ্রিকার আঞ্চলিক ভাষায় এই চিকুনগুনিয়ার মানে বাঁকা হয়ে যাওয়া। কেউ বলেন ল্যাংড়া জ্বর। কারণ এতে আক্রান্ত রোগীর ঘাড়, পিঠ, মাজায় এত তীব্র ব্যথা হয় যে সোজা হয়ে দাঁড়াতেও কষ্ট হয়। তখন কেউ কেউ খুঁড়িয়ে হাঁটতে বাধ্য হন। চলতি বছর বাংলাদেশে রোগটির আকস্মিক বিস্তার দেখা দিয়েছে। সাধারণ চিকুনগুনিয়ায় জ্বর, ত্বকে র‌্যাশ, সন্ধি বা হাড়ের জোড়ায় ব্যথা ও গায়ে ব্যথা করে। এর চেয়ে তীব্র হলে সন্ধি ফুলে যায়, গায়ে তীব্র ব্যথা, চোখে ব্যথা, রক্তচাপ ও প্র¯্রাব হ্রাস প্রভৃতি সমস্যা হতে পারে। রোগটি সবথেকে জটিল রূপ নিলে উচ্চমাত্রার জ্বর, সন্ধি ব্যথা ও ফোলা, বমি এবং ডায়রিয়ায় রোগী অচেতনও হয়ে যেতে পারে। চিকুনগুনিয়ায় ডেঙ্গুর চেয়ে মৃত্যুঝুঁকি কিছুটা কম। ডেঙ্গু সাধারণত ৫ থেকে ৭ দিনের মধ্যে সেরে যায়। তবে চিকুনগুনিয়ার রোগী ৭ থেকে ১০ দিনে সেরে উঠলেও ব্যথা কিছু ক্ষেত্রে দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে। এমনকি জ্বরটা সেরে গিয়ে আবারও হতে পারে।
ব্যবস্থাপত্র
ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা প্রায় একই রকমের। ডেঙ্গু এন এস ওয়ান অ্যান্টিজেন বা ডেঙ্গু আইজিএম অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করে রোগনির্ণয় করতে হয়। তার আগ পর্যন্ত চিকিৎসার কোন হেরফের নেই। সমস্য তীব্র না হলে বাড়িতেই থাকুন। প্রচুর পরিমাণে পানি ও তরল পান করুন (দিনে দুই লিটার, সঙ্গে লবণ-জল, ডাবের পানি, স্যালাইন ইত্যাদি)। জ্বর ও ব্যথা কমাতে প্যারাসিটামল খেতে পারেন। পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন। সন্ধি ব্যথা কমাতে ঠা-া ছ্যাঁক নিতে পারেন, হালকা ব্যায়াম করা যায়। রোগনির্ণয়ের আগেই অ্যাসপিরিন বা বাথ্যানাশক সেবন করা যাবে না।
হাসপাতালে যাবেন যখন
এমনিতে চিকুনগুনিয়া ডেঙ্গুর মতো জটিল না হলেও ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তি বা ছোট শিশু, অন্তসত্ত্বা বা নারী এবং কিডনি, যকৃৎ বা হৃদযন্ত্রের রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির ঝুঁকি থাকে। রক্তচাপ কমে গেলে বা প্র¯্রাবের পরিমান দিনে ৫০০ মিলিলিটারের কম হলে, তিন দিন বাড়িতে চিকিৎসার পরও ব্যথা তীব্র রয়ে গেলে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া প্রয়োজন। এক্ষেত্রে শিরায় স্যালাইন দিতে হতে পারে। উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।
[লেখক
 
পরিচিতি: অধ্যাপক ডা. খাজা নাজিম উদ্দীন,  অধ্যাপক, মেডিসিন বিভাগ, ডায়াবেটিক হাসপাতাল (বারডেম), ঢাকা।]
 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

নবীনগরে আওয়ামী লীগ নেত্রী খুন

রোহিঙ্গাদের সঙ্গে দেখা হবে পোপের

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তনে বিশ্বজনমত গঠিত হয়েছে

৬৯ মাসে তদন্ত প্রতিবেদন পেছালো ৫২ বার

মসনদে বসছেন ‘কুমির মানব’

রোহিঙ্গাদের ফেরাতে সমঝোতার কাছাকাছি বাংলাদেশ-মিয়ানমার

তনুর পরিবারের সদস্যদের ঢাকায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ

স্বপ্ন দেখাচ্ছে সৌর বিদ্যুৎ

আসন ধরে রাখতে চায় আওয়ামী লীগ, ফিরে পেতে মরিয়া বিএনপি

মেয়র পদে ১৩ জনের মনোনয়নপত্র জমা

জিদান খুনের রোমহর্ষক বর্ণনা আবু বকরের

অসহনীয় শব্দ দূষণে বেহাল নগরবাসী

সব স্কুলে ছাত্রলীগের কমিটি দেয়ার নির্দেশ

একতরফা নির্বাচন কোন নির্বাচনী প্রক্রিয়া নয়

‘অনুমোদনহীন বারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা’

কি পেলাম কি পেলাম না সেই হিসাব মেলাতে আসিনি: প্রধানমন্ত্রী