ঢাকা রক্ষা বাঁধ উপচে দোহার-নবাবগঞ্জের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

অনলাইন

নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি | ১৬ আগস্ট ২০১৭, বুধবার, ৮:৩৩
ঢাকার দোহারের নয়াবাড়ি ইউনিয়নের ধোয়াইরের দেওয়ান বাড়ির মোড় এলাকায় মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১২টা থেকে বেড়িবাঁধের উপর দিয়ে বন্যার পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এতে দোহার নবাবগঞ্জের নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে ৫ শতাধিক পরিবার। বন্যা পূর্বাভাস কেন্দ্রের ভাগ্যকুল গেইজ স্টেশনের সতর্কবার্তায় জানা গেছে, গত ৩৬ ঘণ্টায় পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদ সীমার ১৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।  
অপরদিকে, ঢাকা রক্ষা বাঁধ নামে পরিচিত কাশিয়াখালী বেড়িবাঁধের নবাবগঞ্জের জয়কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের বালেঙ্গা এলাকায় বাঁধ চুইয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এতে আতংকে রয়েছে দোহার নবাবগঞ্জের ৫ লক্ষাধিক মানুষ। খবর পেয়ে বুধবার বেলা সাড়ে ১২টায় স্থানীয় সংসদ সদস্য সালমা ইসলামসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের দোহার, নবাবগঞ্জ ও কেরানীগঞ্জের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং স্থানীয় প্রশাসন বাঁধ পরিদর্শন করেন। কাশিয়াখালী বেড়িবাঁধ রক্ষা মঞ্চের এডমিন প্যানেলের সদস্য আনিসুর রহমান খান বলেন, কাশিয়াখালী বেড়িবাঁধের ৩টি স্থান সোনাবাজু, ঘোষাইল বাজার ও দোয়াইর বাজার পয়েন্ট বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। গত মাসে আমরা বেড়িবাঁধ সংস্কারের জন্য বিশাল গণজমায়েত করেছি। সেই সময় স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ ও প্রশাসন আমাদেরকে দ্রুত বাঁধ সংস্কারের ওয়াদা করেছিল। কিন্তু আজ অবধি এর আলামত দেখতে পাচ্ছি না। দ্রুত এই বাধ সংস্কার করা না হলে পুরো নবাবগঞ্জ বন্যার পানিতে তলিয়ে যাবে।  বন্যা পূর্বাভাস কেন্দ্রের ভাগ্যকুল গেইজ স্টেশনের সতর্কবার্তায় জানা গেছে, বুধবার দুপুর ২টা পর্যন্ত পদ্মার ৬.৪৮ উচ্চতায় পানি প্রবাহিত হচ্ছে। যা বিপদ সীমার ১৮ সেন্টিমিটার উপরে। আগামী ৪৮ ঘণ্টার পদ্মার পানি আরো ২১ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এদিকে দুপুর আড়াইটার দিকে নবাবগঞ্জ উপজেলা সভা কক্ষে কাশিয়াখালী বেড়িবাঁধ রক্ষায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাকিল আহমেদকে আহ্বায়ক করে ১১ সদস্যের পর্যবেক্ষণ কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের দোহার, নবাবগঞ্জ ও কেরানীগঞ্জের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো.  মৈনদ্দিন।


 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

শেরতাজ হোসেইন খান।

২০১৭-০৮-১৬ ০৯:৫১:১৯

সবাই আমাদের আশার বাণী শুনিয়ে কেউ গিঞ্জে, কেউ রাজধানীতে চলে। আমরা তাদের ভাগ্য রচয়িতা হতভাগার দল তীর্থেরকাকের মত আশায় থাকি। আমাদের ভাগ্যের চাকা ঘুড়ে না।

আপনার মতামত দিন