ভার্জিনিয়ায় শ্বেতাঙ্গ-বর্ণবাদ বিরোধীদের সংঘর্ষ, নিহত ৩, জরুরি অবস্থা জারি

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৩ আগস্ট ২০১৭, রবিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৮:০৭
যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়াতে উগ্র ডানপন্থি শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদীদের সঙ্গে বর্ণবাদ বিরোধীদের ব্যাপক সহিংসতা হয়েছে। এতে কমপক্ষে একজন নারীসহ কমপক্ষে ৩ জন নিহত হয়েছেন। এরপরই ঘটনাস্থল শার্লোটসভিল শহরে জারি করা হয়েছে জরুরি অবস্থা। রাজ্যের গভর্নর টেরি ম্যাকঅলিফে শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদীদের ঘরে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। অনলাইন বিবিসি, বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর দিয়েছে। এতে বলা হয়, শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদীদের সঙ্গে বর্ণবাদ বিরোধীদের ব্যাপক সহিংসতা সামলাতে পুলিশকে কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে অনেককে। স্থানীয় সময় শুক্রবার সকালে কনফেডারেম পতাকা, বর্ম আর হেলমেট পড়ে একটি মিছিল বের করে চরম ডানপন্থি শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদীরা। গৃহযুদ্ধের সময়কার জেনারেল রবার্ট ই লি’র একটি ভাস্কর্য সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ওই মিছিলের আয়োজন করে ডানপন্থিরা। ১৮৬১-৬৫ সালের গৃহযুদ্ধে দাসত্ব প্রথার পক্ষে লড়াই করে কনফেডারেট বাহিনী পরিচালনা করেন জেনারেল লি। বর্ণবাদ বিরোধী সংগঠনগুলোও এ সময় আলাদা মিছিল বের করেন। বিবিসি লিখেছে, একপর্যায়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়।

শহরে অনেক রাস্তায় সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে।  বর্ণবাদ বিরোধী কর্মীদের একটি সমাবেশের উপর চলন্ত গাড়ি তুলে দেয়া হলে ৩২ বছর বয়সী একজন নারী নিহত হন। আহত হন কমপক্ষে ১৯ জন। এসব সমাবেশের জন্য কোন অনুমতি নেয়া হয়নি বলে পুলিশ জানিয়েছে এবং বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, দুই পক্ষই একে অপরের উপর বোতল, পাথর ছুড়ে মারে। এমনকি তারা পিপার স্প্রেও ব্যবহার করে। এর আগে শুক্রবার রাতেও মশাল মিছিল বের করেছিল শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদীরা। যদিও শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে, কিন্তু অনেক স্থানে বিছিন্নভাবে সহিংসতার খবর পাওয়া যাচ্ছিল। এই সহিংসতার নিন্দা জানিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প একটি টুইটার বার্তায় বলেছেন, আমাদের সবার ঐক্যবদ্ধভাবে সব ধরণের বিদ্বেষের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো উচিত। আমেরিকায় এ রকম সহিংসতার কোন জায়গা নেই। শার্লোটসভিল একটি উদারপন্থী শহর হিসাবেই পরিচিত। যুক্তরাষ্ট্রের গত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এই শহরের ৮৬ শতাংশ ভোট পেয়েছিলেন হিলারি ক্লিনটন। তবে এখানকার কাউন্সিল কর্তৃপক্ষ জেনারেল লি’র ভাস্কর্য সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ার পর, শহরটি শ্বেতাঙ্গ জাতীয়তাবাদীদের লক্ষ্য হয়ে ওঠে।
 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন