সংবাদ সম্মেলনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে নির্বাচনের ঘোষণা কাউছারের

বাংলারজমিন

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি | ১৩ আগস্ট ২০১৭, রবিবার
 সরাইলের সন্তান শহীদ বুদ্ধিজীবী সৈয়দ আকবর হোসেন বকুল মিয়ার ছেলে অ্যাডভোকেট সৈয়দ তানভীর হোসেন কাউছার আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন চাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। গতকাল বিকালে তিনি সরাইলের বিশ্বরোড মোড়ের রশিদ মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় এক সংবাদ সম্মেলনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন চাওয়া ও পাওয়ার শতভাগ নিশ্চয়তার ঘোষণা দিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে সৈয়দ তানভীর বলেন, আমি আওয়ামী লীগ তথা দেশের জন্য জীবন উৎসর্গকারী শহীদ পরিবারের সন্তান। আমার পিতা ১৯৫৫ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য ছিলেন। পরবর্তীকালে ঢাকা বারের সদস্য হন। এক সময় তিনি বৃহত্তর কুমিল্লা জেলা আওয়ামী লীগের সম্মানিত সদস্য পদ পান।
১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীনতার পক্ষে কাজ করায় পাক বাহিনী আমার বাবা সৈয়দ আকবর হোসেন ও ছোট চাচা সৈয়দ আফজাল হোসেনকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে কুরুলিয়া খালপাড়ে নির্মমভাবে হত্যা করে। অল্প বয়সে বিধবার শাড়ি পরেন আমার মা। আমরা ভাই-বোন দুনিয়া সম্পর্কে কিছু বুঝে ওঠার আগেই এতিম হয়ে যাই। অনেক কষ্টে মা আমাদেরকে মানুষ করেছেন। আমার বাবা-চাচাসহ ৬ জনের নামে ঢাকা বারের সামনে ‘হৃদয়ে বাংলাদেশ’ স্মৃতিফলক ও ১৯৯৮ সালে বাংলাদেশ ডাক বিভাগ আমার প্রয়াত পিতার নামে ‘স্মারক ডাক টিকিট’ উন্মোচন করে। সুভাগ্যক্রমে আমি সেই পিতারই সন্তান। বর্তমানে শহীদ পরিবারের প্রতি দেশরত্ন শেখ হাসিনার সহানুভূতি, ভালোবাসা ও মূল্যায়নের অনেক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত রয়েছে। আমাদের বেলায়ও এর ব্যতিক্রম হবে না বলে বিশ্বাস। যে দেশের জন্য বাবা দিয়েছেন জীবন, আমি সেই দেশের মাটি ও মানুষের জন্য কিছু করতে চাই। এ লক্ষ্যে আমি দীর্ঘদিন ধরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের দলীয় সব নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছি। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসন থেকে আমি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী। আমি আশাবাদী বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য উত্তরসূরি জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে ফিরিয়ে দেবেন না। মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে আমি সব সাংবাদিক ও সাধারণ মানুষের সার্বিক সহযোগিতা চাই। সম্মেলন পূর্ব-আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ নেতা মো. কুতুব উদ্দিন ভূঁইয়া, অ্যাডভোকেট ওসমান গণি, মো. শফিকুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা জিয়াউল হক জজ মিয়া, মো. দেলোয়ার হোসেন, মো. ইকবাল হোসেন, শ্রমিকলীগ নেতা মো. ইনু মিয়া ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা অ্যাডভোকেট বেলায়েত হোসেন মিল্লাত।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ভারতীয় সেনাবাহিনীর সঙ্গে যৌথভাবে যুদ্ধ করেছিল মুক্তিযোদ্ধারা

বিছানায় তুরস্কের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মেসুতের বড়ছেলের মৃতদেহ

গোয়া: যৌন ব্যবসায়ও আধার কার্ড

ট্রাম্প শিবিরের হাজার হাজার ইমেইল মুয়েলারের হাতে

পেট্রলবোমায় দুজন দগ্ধ

যেভাবে উগ্রপন্থায় দীক্ষিত হন আকায়েদ উল্লাহ

ঝন্টুর পেশা রাজনীতি

রিয়াল মাদ্রিদই চ্যাম্পিয়ন

‘জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা অবশ্যই বাতিল করতে হবে’

উড়ে গেল টটেনহ্যমও

ছায়েদুল হকের জানাজা সম্পন্ন

ভারতে 'ছয় মাসের মধ্যে' ধর্ষকদের ফাঁসির দাবি করলেন নারী অধিকারকর্মী

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশী শ্রমিক পাচার চক্র, কুয়ালালামপুর বিমানবন্দর থেকে ৬০০ কর্মকর্তা বদলি

জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে নোটিশ জারিতে ইন্টারপোলের অস্বীকৃতি

ব্রাজিল ফুটবলের প্রধান ৯০ দিন নিষিদ্ধ

ঝিকরগাছায় ছাত্রলীগ কর্মী খুন, সড়ক অবরোধ