নি র্বা চ নী হা ল চা ল, চুয়াডাঙ্গা ১

কে হচ্ছেন আওয়ামী লীগ বিএনপি’র প্রার্থী

শেষের পাতা

জিসান আহমেদ, চুয়াডাঙ্গা থেকে | ১৩ আগস্ট ২০১৭, রবিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:২৮
 নির্বাচনের এখনও দেড় বছর বাকি, তবুও নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চুয়াডাঙ্গায় আলোচনা জমে উঠেছে। গ্রাম-গঞ্জে, বাজারে, চায়ের দোকান গুলোতে নির্বাচনী আলোচনায় মেতে উঠছেন ভোটাররা। পাশাপাশি আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদের সম্ভাব্য প্রার্থীরা গ্রামে গ্রামে কাজ শুরু করেছেন। তবে সবচেয়ে বেশি তৎপর আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।
অনেকটা আগেভাগেই নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন তারা। সাধারণ ভোটারদের পাশাপাশি দলীয় নেতা-কর্মীদের নিজেদের পক্ষে ভেড়াতে চলছে রীতিমতো প্রতিযোগিতা। অন্যদিকে বিএনপি জেলা শহর থেকে শুরু করে তৃণমূলে কোন্দল উপদলের কারণে তেমন সুবিধা করতে পারছেন না। অনেকে আবার ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও হামলা মামলার কারণে আগাম প্রচারণায় নামছেন না।
চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য জাতীয় সংসদের হুইপ সোলাইমান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন। দীর্ঘ তিন যুগ ধরে তিনি আওয়ামী লীগকে এক সুতোয় গেঁথে রাখলেও বর্তমান সময়ে এসে সেই পরিস্থিতিতে অনেকটা ভাটা পড়েছে। দশম জাতীয় সংসদের পর এই দলেও কোন্দল বাসা বেঁধেছে অনেকটা বড় পরিসরে। আর গত প্রায় ৫ বছরে সেই কোন্দলের ডালপালা ছড়িয়ে পড়েছে উপজেলা ইউনিয়ন এমনকি ওয়ার্ড পর্যায়েও। সেই হিসাবে চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থীর দাবিদার এবার থাকছেন না এমনটাই বলছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। আর এই সুযোগেই বর্তমান সংসদ সদস্যের পাশাপাশি মাঠে নেমেছেন সরকারি দলের প্রায় আধা ডজন নেতা। তবে, সরকারি দলের প্রভাবশালী সংসদ সদস্য আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী প্রচারণায় না নামলেও তার পক্ষে বিগত দিনের নানা উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ধরছেন তার কর্মী-সমর্থকরা। অপরদিকে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা তৃণমূলে উন্নয়নসহ নানা ফিরিস্তি তুলে ধরে সাধারণ ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করছেন। একই সঙ্গে নিজ দলের নেতাকর্মীদের নিজের পক্ষে ভেড়াতে চালিয়ে যাচ্ছেন নানা কার্যক্রম। তাদের উদ্দেশ্য বেশি কর্মী সংগ্রহ করে নিজের অবস্থান সুদৃঢ় ও মনোনয়ন লাভের সহায়ক হতে পারবেন।
চুয়াডাঙ্গা-১ আসনটি গঠিত সদর ও আলমডাঙ্গা উপজেলা নিয়ে। এখানে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকায় রয়েছেন- বর্তমান সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ সামসুল আবেদীন খোকন, চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু, এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক, বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা, কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের দপ্তর সম্পাদক হারদী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নাজমুল ইসলাম পানু, জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক প্রফেসর ডা. মাহবুব হোসেন মেহেদী ও আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আলমডাঙ্গা পৌর মেয়র হাসান কাদির গনু।
ওদিকে ভিন্ন চিত্র বিএনপির ক্ষেত্রে। অনেকটা হ য ব র ল ভাবে চলছে বিএনপির সাংগাঠনিক কার্যক্রম। নিজেদের মধ্যে কোন্দল উপদল ও গ্রুপিং-এর কারণে বিপর্যস্ত তারা। দলের কোন্দল মেটানোই তাদের জন্য অনেকটা বড় চ্যালেঞ্জ। বিগত ৮ বছরে বিএনপির সাংগাঠনিক কোনো কার্যক্রম ঠিকমতো পরিচালিত না হওয়ারও অভিযোগ সাধারণ নেতাকর্মীদের। আর এ নিয়ে সাধারণ নেতাকর্মীদের ক্ষোভেরও অন্ত নেই। ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরই চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির রাজনীতি চারটি ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। কেন্দ্রীয় নেতাদের কয়েক দফা উদ্যোগের পরও ৮ বছরে এর থেকে উত্তরণ ঘটেনি বৃহত এই দলটির। এর পাশাপাশি সরকারি দলের হামলা মামলা তো আছেই। আর এ কারণে ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও এক সময়ের বিএনপির দুর্গখ্যাত চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে বিএনপির কোনো প্রার্থীর মাঠ পর্যায়ে তেমন নির্বাচনী তৎপরতা পরিলক্ষিত হচ্ছে না। তবে তাদের পক্ষে নির্বাচনী ব্যানার-ফেস্টুন নির্বাচনী এলাকায় শোভা পাচ্ছে।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই দলের প্রায় ৭ জন প্রার্থীর নাম আলোচনায় রয়েছে। তারা হলেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবেক এমপি, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অহিদুল ইসলাম বিশ্বাস, ওই কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ও শামসুজ্জামান দুদুর সহোদর ওয়াহেদুজ্জামান বুলা, পিলখানা বিডিআর বিদ্রোহের সময় প্রাণে বেঁচে যাওয়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির নির্বাহী সদস্য লে. কর্নেল অব. সৈয়দ কামরুজ্জামান, আলমডাঙ্গা পৌরসভার সাবেক মেয়র মীর মহিউদ্দিন, বিএনপি নেতা শহিদুল কাউনাইন টিলু ও জেলা বিএনপির সদস্য শরিফুজ্জামান শরীফ।
এ ছাড়া মহাজোটের অন্যতম শরিক জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন, সাংগাঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দুলু, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমান্ডার শহিদুর রহমান (পিএসসি নেভী) চুয়াডাঙ্গা-১ আসন থেকে নির্বাচন করবেন বলে শোনা যাচ্ছে।
 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন