রাজধানীতে দু’জনের অপমৃত্যু

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ আগস্ট ২০১৭, রবিবার
রাজধানীর পৃথকস্থানে দু’জনের অপমৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন, হোসেন আলী (১৮) ও নূর আলম (৪২)। পুলিশ নিহতদের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, লালবাগের কামালবাগের মদিনা বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে কাজ করতেন হোসেন আলী। গতকাল সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ফাক্টরিতে কাজ করার সময় তিনি বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। অচেতন অবস্থায় সহকর্মীরা উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
ফাক্টরির কর্মচারী শাহজাহান হোসেন জানান, সকালে ফাক্টরির মূল মেশিনের সুইচ দিতে গেলে কামাল দুর্ঘটনার শিকার হন। তিনি ফাক্টরির স্টাফ কোয়ার্টারে থাকতেন। তার বাবার নাম ঈসমাঈল হোসেন। গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা জেলার লাকসামের ফুলগাঁও এলাকায়। এদিকে, যাত্রাবাড়ী থানাধীন মাতুয়াইলের মাঝপাড়ার নিজ বাড়িতে থাকতেন নূর আলম। সকাল ৭টার দিকে পরিবারের সদস্যরা তাকে অনেক ডাকাডাকি করে কোনো সাড়া শব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙ্গে দেখেন তিনি সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় ঝুলে আছেন। তখন অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত নূর আলমের আত্মীয় বশির আহমেদ খান ঢামেক হাসপাতালে সাংবাদিকদের জানান, নুর আলম মাতুয়াইল মেডিকেলে চাকরি করত। পারিবারিক কলহে তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তিনি ৩ সন্তানের জনক ছিলেন। পৃথক ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় অপমৃত্যুর মামলা দায়ের হয়েছে।


 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

অস্ট্রেলিয়া গেলেন প্রধান বিচারপতির স্ত্রী সুষমা সিনহা

মৌলভীবাজারে শোকের মাতম

বিয়ানীবাজারের খালেদের দুঃসহ ইউরোপ যাত্রা

১১ দফা প্রস্তাব নিয়ে ইসিতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ

‘প্রধান বিচারপতি ফিরে এসেই কাজে যোগ দিতে পারবেন’

খালেদা জিয়া ফিরছেন আজ

ব্লু হোয়েলের ফাঁদে আরো এক কিশোর

তিন ইস্যু গুরুত্ব পাবে সুষমার সফরে

প্রি-পেইডে সুবিধা বেশি আগ্রহ কম

ভারত থেকে ৩৭৮ কোটি টাকার চাল কিনছে সরকার

ছাত্রলীগ কর্মী মিয়াদ খুন নিয়ে উত্তপ্ত সিলেট

ইস্যু হতে পারে সমস্যার পাহাড়

দ্বিতীয়বার সংসার না করায় খুন

যেভাবে পালিয়ে আসছে রোহিঙ্গারা, ড্রোন থেকে নেয়া ভিডিও

সিলেটে কাল থেকে পরিবহন ধর্মঘট

ফুটবলকে বিদায় জানালেন কাকা