হোমনায় ৩০ কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা নাবিক সমবায় সমিতি

দেশ বিদেশ

হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি | ১৩ আগস্ট ২০১৭, রবিবার
কুমিল্লার হোমনায় নাবিক সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি গ্রাহকের প্রায় ৩০ কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা সমিতির সভাপতিসহ সংশ্লিষ্টরা। গত জুন মাসের শেষের দিকে রাতের অন্ধকারে অফিস তালা দিয়ে লা পাত্তা হয় তারা। এ খবর আমানতদার পেয়ে উপজেলার পাঁচ শতাধিক গ্রাহক তাদের আমানতের অর্থ ফেরত পাবার জন্য অফিসের সামনে ভীর করেন । এ দিকে নাবিক হোমনা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় যে জমিতে এপার্টমেন্ট করা হবে বলে জনগনের নিকট থেকে এ আমানত সংগ্রহ করত সে জমি গত ২রা আগস্ট ইসলামিক ফাইন্যান্স এন্ড ইনভেস্টমেন্ট লিঃ এদের সাড়ে তিন কোটি টাকার জন্য দৈনিক ইত্তেফাক ও দৈনিক সমকাল পত্রিকায় নিলাম বিজ্ঞপ্তি প্রচার করেছে।
জানা গেছে ২০১২ সালে উপজেলার চৌরাস্তা এলাকায় তোতা মিয়া প্লাজার দ্বিতীয় তলায় নাবিক সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির নামে সমবায় অধিদপ্তর থেকে নিবন্ধন নিয়ে এর কার্যক্রম শুরু করে। সমিতির সভাপতি (চেয়ারম্যান) মো. সফিউল্লাহ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তারই ছোট ভাই আবু হানিফ এবং পরিচালক আ. মান্নান তাদের বাড়ি উপজেলার নিলখী গ্রামে। তারা স্থানীয় যুবক ছেলেদের চাকরি দিয়ে তাদের মাধ্যমে এ আমানত সংগ্রহ করতো।
গত পাঁচ বছরে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার পাঁচ শতাধিক মানুষের কাছ থেকে কমপক্ষে ২০ থেকে ৩০ কোটি টাকার আমানত সংগ্রহ করেছে। কিন্তু গত মাসে কাউকে না জানিয়ে রাতের অন্ধকারে অফিসে তালা ঝুলিয়ে লা পাত্তা। এ ব্যাপারের ভুক্তভোগী গ্রাহকরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ দিয়েছে। আমানতদার মো. সিরাজুল টম সুডেন বলেন, নাবিক বিল্ডার্সের দোকান বরাদ্দ দেয়ার নাম করে আমার স্ত্রী মনোয়ারার বেগমের নিকট থেকে পাঁচ লাখ টাকা নিয়েছে। আমি চাপ দেয়াতে সে আমাকে ভুয়া চেক দিয়ে জালিয়াতি করেছে। সিরাজুল টম সুডেন জানান নাবিক আমাকে ৫ লাখ টাকার চেক দিয়েছিল কিন্তু ব্যাংকে কোনো টাকা নেই। গতকাল সমিতির ভাড়া করা কার্যালয়ের গিয়ে দেখা গেছে অফিসের দরজায় তালা ঝুলছে। অফিসের সামনে কয়েক জন গ্রাহক অপেক্ষা করছে। তাদের একজন কামাল উদ্দিন বলেন, হানিফের শশুর (শাহজাহান)কে জিজ্ঞাসা দুই লাখ টাকা জমা রেখেছি। এখন তাকে পাওয়া যাচ্ছে না। এ ব্যাপারে সমিতির সভাপতি মো. সফিউল্লাহ’র মেবাইলে (০১৯৪০২০৩১৩৫) ফোন করে বন্ধ পাওয়া গেছে। তবে একজন চাকরিজীবী জানান, আমাকে বলেছে সমিতির সম্পাদ আছে বিক্রি করে গ্রাহকের ঋণ পরিশোধ করবেন।

উপজেলাা সমবায় অফিসার তানভির আহম্মদ বলেন, পালিয়ে যাওয়া সমিতিকে নোটিশ করা হয়েছে। সমিতির কার্যক্রম চলমান অবস্থায় বিষয়টি ধরা পড়েনি। আমি এর দ্রুত ব্যবস্থা নিচ্ছি ।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী শহিদুল ইসলাম জানান, অভিযোগ পেয়েছি এর ফয়সালার জন্য মেয়রকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তবে যে সমিতি আমানত নিয়ে পালিয়ে গেছে তাদের খোঁজখবর এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এবং চলমান প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিও নজরদারি রাখা হবে।



 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বিজয় দিবসে দেশ গড়ার দৃপ্ত শপথ

বঙ্গবন্ধুর গৃহবন্দি পরিবারকে যেভাবে উদ্ধার করেছিলেন কর্নেল তারা

থ্যাংক ইউ জেনারেল, উই আর অলরেডি বার্নিং, ডোন্ট অফার আস ফায়ার

রাহুল গান্ধীর অভিষেক

চাল-পিয়াজের দামে অসহায় ক্রেতারা

সিলেটে চার বন্ধুর একসঙ্গে বিদায়

রহস্য ভূমিকায় জামায়াত

শোকে মলিন চট্টলা

কিশোরগঞ্জে ২ সাংবাদিক ও বান্দরবানে ৪ পুলিশকে পেটালো ছাত্রলীগ

জৈন্তাপুরে লিয়াকত আলীই এখন শেষকথা

রাজধানীতে আওয়ামী লীগের বর্ণাঢ্য র‌্যালি

বড় দু’দলেই একাধিক প্রার্থী

ছায়েদুল হকের জন্য কাঁদছে নাসিরনগর

ব্রাজিল ফুটবলের প্রধান ৯০ দিন নিষিদ্ধ

ঝিকরগাছায় ছাত্রলীগ কর্মী খুন, সড়ক অবরোধ

উৎসবের আমেজে সারাদেশ