হোমনায় ৩০ কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা নাবিক সমবায় সমিতি

দেশ বিদেশ

হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি | ১৩ আগস্ট ২০১৭, রবিবার
কুমিল্লার হোমনায় নাবিক সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি গ্রাহকের প্রায় ৩০ কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা সমিতির সভাপতিসহ সংশ্লিষ্টরা। গত জুন মাসের শেষের দিকে রাতের অন্ধকারে অফিস তালা দিয়ে লা পাত্তা হয় তারা। এ খবর আমানতদার পেয়ে উপজেলার পাঁচ শতাধিক গ্রাহক তাদের আমানতের অর্থ ফেরত পাবার জন্য অফিসের সামনে ভীর করেন । এ দিকে নাবিক হোমনা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় যে জমিতে এপার্টমেন্ট করা হবে বলে জনগনের নিকট থেকে এ আমানত সংগ্রহ করত সে জমি গত ২রা আগস্ট ইসলামিক ফাইন্যান্স এন্ড ইনভেস্টমেন্ট লিঃ এদের সাড়ে তিন কোটি টাকার জন্য দৈনিক ইত্তেফাক ও দৈনিক সমকাল পত্রিকায় নিলাম বিজ্ঞপ্তি প্রচার করেছে।
জানা গেছে ২০১২ সালে উপজেলার চৌরাস্তা এলাকায় তোতা মিয়া প্লাজার দ্বিতীয় তলায় নাবিক সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির নামে সমবায় অধিদপ্তর থেকে নিবন্ধন নিয়ে এর কার্যক্রম শুরু করে। সমিতির সভাপতি (চেয়ারম্যান) মো. সফিউল্লাহ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তারই ছোট ভাই আবু হানিফ এবং পরিচালক আ. মান্নান তাদের বাড়ি উপজেলার নিলখী গ্রামে। তারা স্থানীয় যুবক ছেলেদের চাকরি দিয়ে তাদের মাধ্যমে এ আমানত সংগ্রহ করতো।
গত পাঁচ বছরে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার পাঁচ শতাধিক মানুষের কাছ থেকে কমপক্ষে ২০ থেকে ৩০ কোটি টাকার আমানত সংগ্রহ করেছে। কিন্তু গত মাসে কাউকে না জানিয়ে রাতের অন্ধকারে অফিসে তালা ঝুলিয়ে লা পাত্তা। এ ব্যাপারের ভুক্তভোগী গ্রাহকরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ দিয়েছে। আমানতদার মো. সিরাজুল টম সুডেন বলেন, নাবিক বিল্ডার্সের দোকান বরাদ্দ দেয়ার নাম করে আমার স্ত্রী মনোয়ারার বেগমের নিকট থেকে পাঁচ লাখ টাকা নিয়েছে। আমি চাপ দেয়াতে সে আমাকে ভুয়া চেক দিয়ে জালিয়াতি করেছে। সিরাজুল টম সুডেন জানান নাবিক আমাকে ৫ লাখ টাকার চেক দিয়েছিল কিন্তু ব্যাংকে কোনো টাকা নেই। গতকাল সমিতির ভাড়া করা কার্যালয়ের গিয়ে দেখা গেছে অফিসের দরজায় তালা ঝুলছে। অফিসের সামনে কয়েক জন গ্রাহক অপেক্ষা করছে। তাদের একজন কামাল উদ্দিন বলেন, হানিফের শশুর (শাহজাহান)কে জিজ্ঞাসা দুই লাখ টাকা জমা রেখেছি। এখন তাকে পাওয়া যাচ্ছে না। এ ব্যাপারে সমিতির সভাপতি মো. সফিউল্লাহ’র মেবাইলে (০১৯৪০২০৩১৩৫) ফোন করে বন্ধ পাওয়া গেছে। তবে একজন চাকরিজীবী জানান, আমাকে বলেছে সমিতির সম্পাদ আছে বিক্রি করে গ্রাহকের ঋণ পরিশোধ করবেন।

উপজেলাা সমবায় অফিসার তানভির আহম্মদ বলেন, পালিয়ে যাওয়া সমিতিকে নোটিশ করা হয়েছে। সমিতির কার্যক্রম চলমান অবস্থায় বিষয়টি ধরা পড়েনি। আমি এর দ্রুত ব্যবস্থা নিচ্ছি ।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী শহিদুল ইসলাম জানান, অভিযোগ পেয়েছি এর ফয়সালার জন্য মেয়রকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তবে যে সমিতি আমানত নিয়ে পালিয়ে গেছে তাদের খোঁজখবর এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এবং চলমান প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিও নজরদারি রাখা হবে।



 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

অস্ট্রেলিয়া গেলেন প্রধান বিচারপতির স্ত্রী সুষমা সিনহা

মৌলভীবাজারে শোকের মাতম

বিয়ানীবাজারের খালেদের দুঃসহ ইউরোপ যাত্রা

১১ দফা প্রস্তাব নিয়ে ইসিতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ

‘প্রধান বিচারপতি ফিরে এসেই কাজে যোগ দিতে পারবেন’

খালেদা জিয়া ফিরছেন আজ

ব্লু হোয়েলের ফাঁদে আরো এক কিশোর

তিন ইস্যু গুরুত্ব পাবে সুষমার সফরে

প্রি-পেইডে সুবিধা বেশি আগ্রহ কম

ভারত থেকে ৩৭৮ কোটি টাকার চাল কিনছে সরকার

ছাত্রলীগ কর্মী মিয়াদ খুন নিয়ে উত্তপ্ত সিলেট

ইস্যু হতে পারে সমস্যার পাহাড়

দ্বিতীয়বার সংসার না করায় খুন

যেভাবে পালিয়ে আসছে রোহিঙ্গারা, ড্রোন থেকে নেয়া ভিডিও

সিলেটে কাল থেকে পরিবহন ধর্মঘট

ফুটবলকে বিদায় জানালেন কাকা