আওয়ামী লীগ-বিএনপিতে মনোনয়ন লড়াই

শেষের পাতা

আনোয়ারুল ইসলাম মিলন, জামালপুর থেকে | ১২ আগস্ট ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:২৮
 আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামালপুর-১ আসন থেকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির একাধিক প্রার্থী দলীয় মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাঁপ করছেন। দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জ উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনটি আওয়ামী লীগের দুর্গ হিসাবে চিহ্নিত। আর তাই এ আসনে লড়তে আওয়ামী লীগে দীর্ঘ লাইন। এর মধ্যে রয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ, বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নূর মোহাম্মদ ও ব্যারিস্টার সামি সাত্তার। অপরদিকে বিএনপি থেকে সাবেক এমপি এম. রশিদুজ্জামান মিল্লাত, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবেক আইজিপি আব্দুল কাইয়ুম ও সাহিদা আক্তার রিতা মনোনয়ন চাইবেন বলে জানা গেছে। এরই মধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা ভোটারদের মন জয় করতে এলাকার প্রতিটি ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন চষে বেড়াচ্ছেন।
তবে আওয়ামী লীগের প্রবীণ রাজনীতিবিদ চারবারের সংসদ সদস্য, সাবেক তথ্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক    
মন্ত্রী এবং বর্তমান পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ তৃণমূল নেতৃবৃন্দ ও সাধারণ ভোটারদের সঙ্গে সব সময় যোগাযোগ রক্ষা করে চলায় এবারও তিনি মনোনয়ন পাওয়ার ক্ষেত্রে এগিয়ে আছেন।
ইতিমধ্যে তিনি বিছিন্ন দেয়ানগঞ্জ-বকশীগঞ্জকে একত্রীকরণে বেশ কয়েকটি বৃহৎ আকারের ব্রিজ নির্মাণ করে যোগাযোগ ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। তার চেষ্টায় নন্দীর বাজার থেকে রৌমারী পর্যন্ত ১১শ’ কোটি টাকা ব্যয়ে দুই লেনের একটি সড়ক নির্মাণের কাজ সমপ্রতি একনেকে অনুমোদন পেয়েছে। অপরদিকে দেশে উপজেলার ক্ষেত্রে দুইটি সরকারি গণগ্রন্থাগার শুধুমাত্র দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জ উপজেলায় স্থাপন করে তিনি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। এ ছাড়াও উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ, দেওয়ানগঞ্জ একেএম মেমোরিয়াল কলেজকে সরকারিকরণ ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়ন করে তিনি শিক্ষানুরাগী হিসেবে এলাকায় সু-খ্যাতি অর্জন করেছেন। তাছাড়াও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলায়  প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত প্রায় ৫০ হাজার শিক্ষার্থীর দুপুরের খাবারের ব্যবস্থাও তিনি করে দিয়েছেন। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের বড় কোনো পদ দখল না করে অন্যদের সুযোগ দিয়েছেন। সাদাসিধে ও নিরীহ প্রকৃতির মানুষ হওয়ায় তিনি সাধারণ ভোটারদের মনে জায়গা করে নিয়েছেন। এরই প্রমাণ চারবার এমপি হওয়া।
অপরদিকে বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নূর মোহাম্মদ ২০০৮ সালে দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে বিপুল ভোটে পরাজিত হন। দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচন করায় তিনি অনেকটা একা। এবারও তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইবেন বলে জানা যায়। এ ছাড়াও সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী আব্দুস সাত্তারের ছেলে ব্যারিস্টার সামি সাত্তারও আওয়ামী লীগ থেকে মেনোনয়ন চাইবেন বলে জানা গেছে।
অপরদিকে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবেক আইজিপি আব্দুল কাইয়ুম ইতিমধ্যে সাধারণ নেতাকর্মীদের সঙ্গে সরকারবিরোধী আন্দোলন-সংগ্রামে অংশ নিয়ে জানান দিচ্ছেন প্রার্থিতার। তিনি উপজেলা বিএনপির পাশাপাশি জেলা বিএনপিকে ঐক্যবদ্ধ করার ক্ষেত্রেও অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলেছেন। এছাড়াও সাবেক এমপি এম. রশিদুজ্জামান মিল্লাতও আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন চাইবেন। যদিও দলীয় কর্মকাণ্ডে তেমন উপস্থিতি তার নেই। অপরদিকে ২০০৮ সালে এই আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করা কেন্দ্রীয় মহিলা নেত্রী ও জেলা মহিলা দলের সভাপতি সাহিদা আক্তার রিতা এবারও মনোনয়ন চাইবেন। সব মিলিয়ে দেওয়ানগঞ্জ-বকশীগঞ্জে নির্বাচনী হাওয়া বইছে। গত রমজান থেকে সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রকাশ্যে মাঠে নেমেছেন। কেউ কেউ পোস্টার-ব্যানার টানিয়ে ঈদের শুভেচ্ছার মাধ্যমে ভোটারদের সামনে হাজির হন।


 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

মসজিদে গুলি ছোড়ার পর পাল্টে গেল এক মার্কিনীর জীবন

দৃশ্যপট একই

আয় বৈষম্য বাড়ায় চাপে মধ্যবিত্ত

নকলা উপজেলা চেয়ারম্যানের লাশ উদ্ধার

রিভিউর প্রস্তুতি

বাংলাদেশির বীরত্বে ধর্ষকদের হাত থেকে রক্ষা পেলো ইতালীয় তরুণী

ঢাবিতে ‘ঘ’ ইউনিটের প্রশ্ন ফাঁস?

সিলেট টার্মিনালে গুলিবর্ষণ নিয়ে পাল্টাপাল্টি

রোহিঙ্গা স্রোত থামছে না

বড় দুই দলেই প্রার্থীর ছড়াছড়ি

সামান্য বৃষ্টিতেই ডুবেছে চট্টগ্রাম

টানা বৃষ্টিতে নগরজুড়ে দুর্ভোগ

নিম্নমানের কাগজে ছাপা হচ্ছে বিনা মূল্যের পাঠ্যবই

দিনে গড়ে দেড় হাজার মামলা

‘বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখার ষড়যন্ত্র চলছে’

পাকিস্তানের ষড়যন্ত্রে রোহিঙ্গাদের উপর আক্রমণ: মতিয়া চৌধুরী