ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের দক্ষতায় বাঁচলো প্রাণ

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ থেকে | ১২ আগস্ট ২০১৭, শনিবার
 মুন্সীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের দক্ষতায় ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যার চেষ্টা করেও বেঁচে গেলেন আলী আহম্মেদ ঢালী (৪৫) নামে এক প্রবাসী। আমগাছে উঠে ফাঁসিতে ঝুলা মাত্রই ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা মুহূর্তের মধ্যে প্রবাসীকে ধরে ফেলেন। ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যার চেষ্টাকারী প্রবাসীকে বাঁচাতে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা প্রায় ৪০ মিনিট উদ্ধার অভিযান চালায়। বৃহস্পতিবার রাতে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের ভট্টাচার্যের বাগ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মুন্সীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার শওকত আলী চোকদার ও স্থানীয় মেম্বার শহীদুল ঢালী জানান, ভট্টাচার্যের বাগ গ্রামের মৃত সালামত ঢালীর ছেলে আলী আহম্মেদ ঢালী গত ৪ বছর আগে মালয়েশিয়া পাড়ি জমান। গত এক বছর আগে আলী আহম্মেদ ঢালীকে বাংলাদেশি ও মালয়েশিয়ানরা মিলে আটক করে ৯০ হাজার টাকা মুক্তিপণ আদায় করে তার পাসপোর্টসহ অন্যান্য কাগজপত্র নিয়ে যায়। এর ১০ দিন পর মালয়েশিয়া পুলিশ আলী আহম্মেদকে আটক করে কারাগারে পাঠায়। সেখানে ৯ মাস কারাগারে বন্দি থাকার পর মালয়েশিয়ান সরকার তাকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেয়। মুক্তিপণ ও বিমানের ভাড়া বাংলাদেশ থেকে পাঠানো হয়। দেশে ফিরে আলী আহম্মদ মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। গত ৪ দিন ধরে আলী আহম্মেদ পুলিশ এসে তাকে ধরে নিয়ে যাবে বলে বলতে থাকেন। বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় বাড়ির আমগাছে উঠে আবোল-তাবোল বলতে থাকেন। স্থানীয়রা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়। রাত সাড়ে ১১টায় ফায়ার সার্ভিসের ২টি ইউনিটের প্রায় ১৫ জন উদ্ধার কর্মী ভট্টাচার্যের বাগ গ্রামে পৌঁছেন। রাত ১২টা ১০ মিনিটের সময় আলী আহম্মেদ গলায় গামছা ও গেঞ্জি প্যাঁচিয়ে গাছের ঢালের সঙ্গে ফাঁস দিয়ে ঝাঁপ দেয়। মুহূর্তের মধ্যে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধার কর্মীরা লেডারের (মই) সহায়তায় দ্রুত গাছে উঠে তাকে উদ্ধার করে। এরপর বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দেড়টায় আলী আহম্মেদকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে এনে চিকিৎসা দেয়া হয়।

 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন