আবাসিকে পোল্ট্রি খামার দূষণের প্রতিবাদ করায় হামলা

বাংলারজমিন

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি | ১২ আগস্ট ২০১৭, শনিবার
সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানার সোদিয়া চাঁদপুর ইউনিয়নের খামারগ্রামে আবাসিক এলাকায় পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই গড়ে উঠেছে প্রভাবশালী আব্দুস সালাম ওরফে দোতলা সালামের মুরগির খামার। পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র না থাকলেও সরকার দলীয় লোকজনকে বকশিশ দিয়ে বেশ ক’মাস থেকে চালু রাখা হয়েছে খামারটি। খামারের মুরগির বিষ্টা, মলমূত্র ও বর্জ্য যত্রতত্র ফেলায় এলাকার পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। গ্রাম্য সালিশে  স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ কতিপয় মুরব্বিরা খামারটি সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত দিলেও মানেনি দোতলা সালাম। অবশেষে এ বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়ায় প্রতিবেশী সালাম ও তার ভাই রফিকুলকে শুক্রবার সকালে লাঞ্ছিত করেছে। এদিকে, বিষয়টি নিয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় থানায় সালিশ ডেকেছে পুলিশ। খামারগ্রামের রফিকুল ইসলাম জানান, গত প্রায় এক বছর থেকে গায়ের  জোরে গড়ে উঠেছে মুরগির খামার। খামারের লোকজন মুরগির বিষ্টা, মলমূত্র ও বর্জ্য যত্রতত্র ফেলায় দুর্গন্ধে আমরা এলাকায় কোনভাবে বাস করলেও মানবেতর অবস্থায় রয়েছি। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় একাধিকার দরবার-সালিশ হয়েছে। দোতলা সালাম ও তার ছেলে সুজনকে খামারটি সরিয়ে নিয়ে যেতেও বলা হয়েছে। কিন্তু চেয়ারম্যান ও মুরুব্বিদের কথায় তারা কর্ণপাত করছেন না। অবশেষে অসহায় হয়ে আমরা বৃহস্পতিবার রাতে থানায় লিখিত অভিযোগ দেই। শুক্রবার সকালে বাড়ি থেকে বাজারে যাবার পথে আমার ভাই সালামকে  সুজন, ভগ্নিপতি মুুনছের সরকার ও আরো কয়েকজন মিলে বেধড়ক মারধর করে। এনায়েতপুর থানার সোদিয়া চাদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রাশেদুল ইসলাম সিরাজ দুপুরে বলেন, আবাসিক এলাকায় প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়া গায়ের জোরে মুরগির খামার গড়ার বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার সালিশও করেছি। খামারটি সরিয়ে নিয়ে যেতে বলা হলেও তারা তা না করে প্রতিবেশীদের মারপিটের বিষয়টি অনাঙ্ক্ষিত। এনায়েতপুর থানার ওসি রাশেদুল ইসলাম বিশ্বাস বলেন, মারপিটের খবর পেয়ে ওই এলাকায় পুলিশ পাঠিয়ে উভয় পক্ষকে সন্ধ্যার পর থানায় আসতে বলা হয়েছে।


 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন