গাজীপুরবাসীর ভোগান্তি জয়দেবপুর রেলক্রসিং

এক্সক্লুসিভ

ইকবাল আহমদ সরকার, গাজীপুর থেকে | ১২ আগস্ট ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:২৮
 গাজীপুর মহানগর ও জেলার প্রাণকেন্দ্রের মূল সড়কের ওপর ফ্লাইওভার না থাকায় জয়দেবপুর রেলক্রসিংয়ের দুপাশে প্রতিদিনই দুর্ভোগে পড়ছেন লাখো মানুষ। এই রেলক্রসিংয়ে আটকে থেকে নষ্ট হচ্ছে দিনে সাত থেকে আট ঘণ্টা। পাশাপাশি নাকাল হচ্ছেন নগরবাসী। নগর প্রাণকেন্দ্রের  প্রধান সড়ক রাজবাড়ী সড়কের রেলক্রসিংটি এখন হয়ে উঠেছে ‘গাজীপুরের ভোগান্তি’।
গাজীপুর মহানগরের প্রাণকেন্দ্র জয়দেবপুরে ঢাকা-ময়মনসিংহ রেল সড়কের রেল লাইনের পূর্ব পাশে অবস্থিত নগর ভবন, জেলা প্রশাসক ও জেলা প্রশাসনের অধিকাংশ সংশ্লিষ্ট অফিস, জজ আদালত, জয়দেবপুর ফায়ার সার্ভিস, সিভিল সার্জন অফিস, শহীদ তাজউদ্দীন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, পুলিশ সুপার কার্যালয়, সরকারি মহিলা কলেজ, কাজী আজিম উদ্দীন কলেজসহ আরো কয়েকটি কলেজ, রানী বিলাসমনি সরকারি উচ্চ বালক ও জয়দেবপুর সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়সহ অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান। এছাড়া উত্তর ও দক্ষিণ ছায়াবীথি আবাসিক এলাকায় হাড়িনাল বাজারও রয়েছে। এসবের অধিকাংশ চাকুরে, কর্মজীবী ও শিক্ষার্থীদের প্রতিদিনই আসতে হয় রেললাইনের পশ্চিম পাশ থেকে।  আর রেললাইনের পশ্চিম দিকে রয়েছে মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি, সমরাস্ত্র কারখানা, টাকশাল, কৃষি ও ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট, জয়দেবপুর বাজার, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কসহ সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং শিল্প-কারখানা।
ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে জেলার পাঁচটি থানার লোকজনকেও আসতে হয় একই পাশ থেকে। অফিস-আদালত, স্কুল-কলেজ, ব্যবসায়ী-কর্মজীবীসহ নানা শ্রেণি-পেশার লোকজনকে ভোগান্তি সইতে হচ্ছে অনেক বছর ধরে। দিনে দিনে মানুষের সংখ্যা, যানবাহনের সংখ্যা, নানা ধরনের প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় দুর্ভোগ এখন চরমে উঠেছে।
দীর্ঘদিন ধরে শহরবাসী শুনে আসছেন শিগগিরই ফ্লাইওভার নির্মাণ হবে কিন্তু সরকারের পর সরকার বদলেছে, মহানগর হয়েছে, এখনো স্বপ্নের ফ্লাইওভার স্বপ্নই থেকে যাচ্ছে। এই এলাকার কৃতিসন্তান আ ক ম মোজাম্মেল হক ইউপি চেয়ারম্যান থেকে পৌর চেয়ারম্যান, পৌর চেয়ারম্যান থেকে এমপি, আবার এমপি হয়ে মন্ত্রী হয়েছেন। তিনি পৌর চেয়ারম্যান থাকাকালেই শোনা যাচ্ছিল জয়দেবপুরে ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হবে। এরপরও শুরু হয়নি এই ফ্লাইওভার নির্মাণকাজ। লাখ লাখ মানুষ বছরের পর বছর ধরে ফ্লাইওভার বা ওভারপাস নির্মাণের কথা বলে আসছেন।
সরেজমিনে দেখা যায়, একটি ট্রেন আসা-যাওয়ায় জয়দেবপুর রেলগেট আটকে থাকতে হচ্ছে সব ধরনের যানবাহনে চলাচলকারীদের। রাজবাড়ী সড়কের গাজীপুর প্রধান ডাকঘরের সামনের সড়ক বিভাজকের কাটা দিয়ে কখনো এম্বুলেন্স জরুরি হর্ন বাজিয়ে উল্টোপথে ছুটছে। কিন্তু রেলগেট পর্যন্ত গিয়েই রোগীবাহী এম্বুলেন্সটিকে থামতে হচ্ছে। শিববাড়ী মোড় থেকে পুলিশ সুপারের অফিস পর্যন্ত সড়ক বিভাজক থাকায় ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশের গাড়িসহ জরুরি পরিবহনগুলো সড়কের রং সাইড দিয়ে চলতে দেখা যায়। এতে কখনো কখনো বিড়ম্বনা আরো বেড়ে যায়। জয়দেবপুর জংশন সংলগ্ন রেলক্রসিংয়ের ওপর ফ্লাইওভার না থাকায় প্রায় প্রতিদিনই মুমূর্ষু রোগীবাহী এম্বুলেন্সেরও  বসে থাকতে হয় যানজটের কবলে পড়ে। রেলক্রসিংয়ের দুর্ভোগ এখন নিত্য ঘটনা। এলাকাবাসীরা মনে করছেন, নগর প্রশাসনের এই প্রাণকেন্দ্র অফিস-আদালতে প্রবেশের একটি বিকল্প সড়ক এবং রেলক্রসিং-এ ওভারপাস নির্মাণ করা অত্যন্ত জরুরি।
 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বিজয় দিবসে দেশ গড়ার দৃপ্ত শপথ

বঙ্গবন্ধুর গৃহবন্দি পরিবারকে যেভাবে উদ্ধার করেছিলেন কর্নেল তারা

থ্যাংক ইউ জেনারেল, উই আর অলরেডি বার্নিং, ডোন্ট অফার আস ফায়ার

রাহুল গান্ধীর অভিষেক

চাল-পিয়াজের দামে অসহায় ক্রেতারা

সিলেটে চার বন্ধুর একসঙ্গে বিদায়

রহস্য ভূমিকায় জামায়াত

শোকে মলিন চট্টলা

কিশোরগঞ্জে ২ সাংবাদিক ও বান্দরবানে ৪ পুলিশকে পেটালো ছাত্রলীগ

জৈন্তাপুরে লিয়াকত আলীই এখন শেষকথা

রাজধানীতে আওয়ামী লীগের বর্ণাঢ্য র‌্যালি

বড় দু’দলেই একাধিক প্রার্থী

ছায়েদুল হকের জন্য কাঁদছে নাসিরনগর

ব্রাজিল ফুটবলের প্রধান ৯০ দিন নিষিদ্ধ

ঝিকরগাছায় ছাত্রলীগ কর্মী খুন, সড়ক অবরোধ

উৎসবের আমেজে সারাদেশ