বাংলাদেশসহ ৩ দেশে তেল কূপ খননে ১৫ কোটি ডলার বিনিয়োগ করছে ভারতের ওএনজিসি বিদেশ

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৮ আগস্ট ২০১৭, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:১১
বাংলাদেশ, কাজাখস্তান ও কলম্বিয়ায়  আরো কূপ খনন করতে ১৫ কোটি ডলার বিনিয়োগের পরিকল্পনা নিয়েছে ভারতের রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস করপোরেশনের বৈদেশিক শাখা ওএনজিসি বিদেশ।  এরই মধ্যে বাংলাদেশে প্রথম কূপের খননের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। কলম্বিয়ায় তারা মারিপোসা-১ নামে একটি কূপের সন্ধান পেয়েছেন। এখন সেখান থেকে তেল উত্তোলনের জন্য পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে ওএনজিসি বিদেশ। এই কূপটি থেকে পরীক্ষামুলকভাবে দিনে ৪৫০০ ব্যারেল হিসেবে তেল উত্তোলনের কাজ শুরু হয়েছে। এ খবর দিয়েছে ভারতের অনলাইন দ্য ইকোনমিক টাইমস। এতে বলা হয়, ওএনজিসি বিদেশ-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক নরেন্দ্র বর্মা বলেছেন, কলম্বিয়ার সিপিও-৫ নম্বর ব্লকে তারা কাজ করছেন।
সেখানেই মারিপোসা-১ কূপের সন্ধান পেয়েছেন তারা। তারপর থেকে কাজ শুরু হয়েছে। সফলতার ধারাবাহিকতায় ওই ব্লকে আরো কূপ পাওয়ার পথ উন্মুক্ত হয়েছে। নরেন্দ্র বর্মা বলেছেন, এখন তারা সেখানে আরো দুটি কূপ ড্রিল বা খনন করার পরিকল্পনা নিয়েছেন। উল্লেখ্য, কলম্বিয়ার সিপিও-৫ ব্লকে ভারতের ওএনজিসির রয়েছে শতকরা ৭০ ভাগ অংশীদারিত্ব বাকি ৩০ ভাগের শেয়ার রয়েছে বৃটেনের আমেরিসুর রিসোর্সের। কলম্বিয়ার মোট ৬টি ব্লকে তেল বা প্রাকৃতিক গ্যাসের সন্ধানে অংশ নিচ্ছে ওএনজিসি। বর্তমানে দিনে ৩৫ হাজার ব্যারেল তেল উৎপাদন হচ্ছে সেখানকার বিভিন্ন কূপ থেকে। রিপোর্টে বলা হয়েছে, এর পাশাপাশি বাংলাদেশ ও কাজাখস্তানে তেল কূপ বা গ্যাস কূপ আবিস্কারের জন্য গতি ত্বরান্বিত করেছে ওএনজিসি। কাস্পিয়ান সাগরে কাজাখস্তানের ব্লকে এরই মধ্যে ড্রিলিং বা খনন কাজ শুরু হয়েছে। অন্যদিকে বাংলাদেশে প্রথম কূপ খননের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। নরেন্দ্র বর্মা বলেন, আমরা আশা করি কাজাখস্তানের খনন কাজে আমরা সফলতা পাবো। সব মিলিয়ে এসব কাজে এ বছর প্রয়োজন হবে ১৫ কোটি ডলার। উল্লেখ্য, ওএনজিসি বিদেশ-এর আওতায় যেসব প্রকল্প আছে এখন তাতে তেল বা গ্যাস কূপ আবিষ্কার, উন্নয়ন ও উৎপাদনে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে মোট ১০০ কোটি ডলার খরচ করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ওএনজিসি বিদেশ-এর উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে শতকরা ৪০ ভাগ। চলতি অর্থবছরে এই উৎপাদন আরো শতকরা ১৫ ভাগ বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করা হচ্ছে। যদি তা-ই হয় তাহলে মোট এক কোটি ৪৩ লাখ ৫০ হাজার টন তেলের সমান সম্পদ উত্তোলন করা সম্ভব হবে। নরেন্দ্র বর্মা বলেন, ২০২০ সাল নাগাদ আমরা ২ কোটি টন তেলের সমান সম্পদ আহরণের টার্গেট নির্ধারণ করেছি। ওএনজিসি বিদেশ এরই মধ্যে নামিবিয়ার তেল ও গ্যাসক্ষেত্রে কাজ করছে। সেখানকার তিনটি ব্লকে কাজ করছে এ কোম্পানি।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বিজয় দিবসে দেশ গড়ার দৃপ্ত শপথ

বঙ্গবন্ধুর গৃহবন্দি পরিবারকে যেভাবে উদ্ধার করেছিলেন কর্নেল তারা

থ্যাংক ইউ জেনারেল, উই আর অলরেডি বার্নিং, ডোন্ট অফার আস ফায়ার

রাহুল গান্ধীর অভিষেক

চাল-পিয়াজের দামে অসহায় ক্রেতারা

সিলেটে চার বন্ধুর একসঙ্গে বিদায়

রহস্য ভূমিকায় জামায়াত

শোকে মলিন চট্টলা

কিশোরগঞ্জে ২ সাংবাদিক ও বান্দরবানে ৪ পুলিশকে পেটালো ছাত্রলীগ

জৈন্তাপুরে লিয়াকত আলীই এখন শেষকথা

রাজধানীতে আওয়ামী লীগের বর্ণাঢ্য র‌্যালি

বড় দু’দলেই একাধিক প্রার্থী

ছায়েদুল হকের জন্য কাঁদছে নাসিরনগর

ব্রাজিল ফুটবলের প্রধান ৯০ দিন নিষিদ্ধ

ঝিকরগাছায় ছাত্রলীগ কর্মী খুন, সড়ক অবরোধ

উৎসবের আমেজে সারাদেশ