বেনাপোল-পেট্রাপোল সীমান্তে ২৪ ঘণ্টার বাণিজ্য পরিষেবা শুরু

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১ আগস্ট ২০১৭, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৮:৫৪
বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে অবস্থিত ব্যস্ততম বেনাপোল-পেট্রাপোল সীমান্ত চেক পোস্ট দিয়ে গতকাল থেকে ২৪ ঘণ্টা বাণিজ্য পরিষেবা শুরু হয়েছে। পণ্য আমদানি-রফতানির জট কমাতেই  দিনে ১২ ঘন্টার পরিবের্তে ২৪ ঘন্টার পরিষেবা চালু করার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ ও ভারত। কিছুদিন আগেই দুই দেশের শীর্ষ পর্যায়ে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছিল। ভারতের শুল্ক দপ্তর সুত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার থেকেই ২৪ ঘন্টা আমদানি-রফতানি পরিষেবা চালু হয়েছে। বছরের ৩৬৫ দিনই চলবে এই পরিষেবা।  বর্তমানে সপ্তাহে শুক্রবার ছাড়া বাকি ছয়দিন সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত পণ্যবাহী ট্রাক দুই দেশে আসা-যাওয়া করে।
এখন থেকে অনেক বেশি ট্রাক দুই দেশে পণ্য নিয়ে প্রবেশ করতে পারবে। ফরে সীমান্তের দুই পারে পণ্যবাহী ট্রাকের জট অনেকটাই কমে যাবে। স্বাভাবিকভাবেই সরকারের এই সিদ্ধান্তে খুশি রপ্তানী- আমদানিকারকরা। একই সঙ্গে সীমান্তে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত সংশ্লিষ্টরাও এই সিদ্ধান্তে খুশি। এই ব্যবস্থা চালু করার আগে সীমান্তের দুই পারেই পরিকাঠামোগত কিছু পরিবর্তন সাধনের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। সীমান্ত বানিজ্য জট জটিলতায় মাঝে মাঝেই স্থবির হয়ে পড়ছিল। জানা গেছে, গড়ে প্রতিদিন ৩৫০টি ট্রাক ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করে, বিপরীতে বাংলাদেশ থেকে আসে ১৫০ থেকে ২০০টি ট্রাক। কিন্তু, এর বাইরে আরও কয়েক শ ট্রাক পণ্য নিয়ে সীমান্তের উভয় পাশেই দাঁড়িয়ে থাকে, সিরিয়াল না পেয়ে। ফলে সীমান্তের এপারে শয়ে শয়ে ট্রাক পন্য নিয়ে দিনের পর দিন দাঁড়িয়ে থাকতে বাধ্য হত। এর ফলে পচনশীল সামগ্রী নষ্ট হয়ে বিশাল ক্ষতির সম্মুখীণ হতে হচ্ছিল রপ্তানী কারকদের। এজন্য রপ্তানীকারকরা  সরকারের উচ্চ পর্যায়ে বারে বারে আবেদন করেছে। তবে ২৪ ঘন্টা বাণিজ্য পরিষেবা চালু হওয়ায় সীমান্ত বানিজ্যের ক্ষেত্রে জট জটিলতার খানিকটা অবসান হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট মহল। পেট্রাপোলের ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরওয়াডিং প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দুই দেশের বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়ানোর ক্ষেত্রে এটি একটি ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত বলে আমরা মনে করছি । সময়ের জন্য প্িরতদিন কোটি কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছিল। ২৪ ঘণ্টার সীমান্ত বাণিজ্য শুরু হওয়ায় এই সমস্যা খুব দ্রুত মিটে যাবে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন