‘মাইনাস ফর্মুলায় গিয়ে কেউ কখনো বড় হয় না’

বিনোদন

কামরুজ্জামান মিলু | ২৪ জুলাই ২০১৭, সোমবার
শাপলা মিডিয়ার তিনটি ছবিতে কয়েকদিন আগে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন শাকিব খান। উত্তম আকাশ নতুন এ ছবি তিনটি পরিচালনা করতে যাচ্ছেন। এদিকে এফডিসির ১৮টি সংগঠনের কেউই যেন শাকিবের সঙ্গে কাজ না করে সে বিষয়টি কয়েকদিন আগে ঘোষণা করেছিলেন চলচ্চিত্র পরিবারের আহ্বায়ক চলচ্চিত্র অভিনেতা ফারুক। আর গত শুক্রবার শিল্পী সমিতি কর্তৃক পিয়নকে দিয়ে শাকিব খানের উদ্দেশ্যে তার গুলশানের বাসার ঠিকানায় একটি চিঠি পাঠানো হয়। এ চিঠির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান। গতকাল তিনি মানবজমিনকে বলেন, চলচ্চিত্র পরিবারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকে (শাকিব খান) চলচ্চিত্র সংক্রান্ত সব ধরনের নেতিবাচক কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। শিল্পী সমিতির গঠনতন্ত্রের একটা ধারার বিষয়ও চিঠিতে উল্লেখ রয়েছে। যেখানে শিল্পী সমিতির প্রতি আরো শ্রদ্ধাশীল হওয়ার বিষয়টি চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। না হলে প্রয়োজনে শাকিব খানের সদস্যপদ বাতিল করা হবে। শাকিব খান এসব প্রসঙ্গে মানবজমিনকে বলেন, শাপলা মিডিয়ার প্রযোজক সেলিম ভাই আদালতে রিট করেন বলে জেনেছি। মূলত তার প্রযোজনায় আমার নতুন তিনটি ছবি নির্মাণাধীন। এই তিনটি ছবি হলো ‘আমি নেতা হব’, ‘মামলা, হামলা, ঝামেলা’, ‘কথা দিয়ে কেউ কথা রাখে না’। আমার অভিনয়ের ওপর বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিবারের দেয়া নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। সেসঙ্গে চলচ্চিত্র পরিবারের দেয়া নিষেধাজ্ঞাকে কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে গতকাল রুল জারি করা হয়েছে। বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হক সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এই আদেশ দেন। এর ফলে আমার নতুন ছবিগুলোতে অভিনয় করতে কোনো সমস্যা নেই। আইনজীবী হিসেবে রয়েছেন মনিরুজ্জামান আসাদ। শাকিব আরো বলেন, কাজ না করলে তো চলবে না, তাই না। শিল্পী সমিতি গত শুক্রবার চিঠি দিয়ে বিশেষভাবে অনুরোধ করেছে, বর্তমান সমস্যার সুষ্ঠু সমাধান না হওয়া পর্যন্ত আমি যেন কাজ থেকে বিরত থাকি। আবারও বলছি, ‘বিশেষভাবে অনুরোধ’ করা হয়েছে। কিন্তু তারা সব জায়গায় বলছে সতর্ক বার্তামূলক চিঠি দেয়া হয়েছে আমাকে। এখানে সতর্কমূলক চিঠি আসলো কোথা থেকে। বিতর্ক তো তারা সৃষ্টি করছে। তারা করছে একটা কাজ কিন্তু বলছে আরেকটা। শাকিব নতুন কাজের বিষয়ে আরো বলেন, সকলে তো বুঝেছে বিষয়টি। আন্দোলনের মূল লক্ষ্য কি ছিল শাকিবকে ঠেকাও? বিশেষ করে মাইনাস ফর্মুলায় গিয়ে কেউ কখনও বড় হয় না। আর যাকে প্রয়োজন তাকে বাদ দিয়ে কাজ করা যায় না। কারণ একটা মেধা আর একটা জায়গা তৈরি করতে অনেক সময় লাগে। এই ইন্ডাস্ট্রিতে ১০০ জন লোক কাজ করে। দিন শেষে তো কাজ করতে হবে, চলতে হবে তাদের। উত্তমদার ছবিতে নতুন একটা মেয়েকে নিয়ে কাজ করার কথা। সেখানে ওই মেয়েকে অনেকেই বলেছে, তুমি নতুন এ ছবিতে কাজ করলে তো তোমার উপরে নিষেধাজ্ঞা আসতে পারে। তখন মেয়েটি জবাবে বলেছে, ভাই আমি কাজ করতে এসেছি। কাজ করলে আমি পয়সা পাব। আর শিল্পী সমিতিতে তো উল্টো সদস্যদের চাঁদা দিতে হয়। এই সমিতি যদি আমাকে কাজে বাধা দেয় তাহলে ওই সমিতি দিয়ে আমার কি হবে? সমিতির দায়িত্ব হচ্ছে আমি যেন সুন্দরভাবে কাজ করতে পারি সেটা দেখার। সেখানে যদি আমি সদস্য হয়ে চাঁদা দিয়ে কাজ করতে না পারি। উল্টো কাজে বাধা দিলে ওই সমিতিতে থাকার চেয়ে না থাকাতো ভালো। নতুন এক অভিনেত্রী এমন করেই জবাব দিয়েছে বলে জানালেন শাকিব খান। এমনিতেই সিনেমা দেশে কম হচ্ছে। আর যা হচ্ছে তাতে যদি কেউ বাধা দেয় তাহলে সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি থাকবে কিভাবে? শাকিব বলেন, অনেক টেকনিশিয়ান বলেছেন, আমরা কাজ করবো না ঠিক আছে তাহলে আমাদের পারিশ্রমিক দিয়ে দেয়া হোক। অনেকেই তো উল্টো চিঠি দিয়েছে শুনলাম। কারণ ছবিতে কাজ করলে তো সবাই পয়সা পাবে। কাজ না করে কেউই ঘরে বসে থাকতে চায় না এখন।


 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন