ভালোবাসায় লাকী আখান্দকে স্মরণ করলেন প্রিয়জনেরা

বিনোদন

স্টাফ রিপোর্টার | ২৪ জুলাই ২০১৭, সোমবার
টুকরো মধুর স্মৃতিচারণ আর তার সৃষ্টিপাগল দিনগুলো স্মরণের মধ্য দিয়ে সদ্যপ্রয়াত শিল্পী লাকী আখান্দকে ‘নাগরিক শ্রদ্ধা’ জানালেন সর্বস্তরের নাগরিক। শনিবার সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে হয় এ স্মরণ অনুষ্ঠান। যার সহযোগিতায় ছিল বাংলাদেশ মিউজিক্যাল ব্যান্ডস অ্যাসোসিয়েশন (বামবা) এবং শিল্পীর পাশে ফাউন্ডেশন। একাডেমির জাতীয় সংগীত, নৃত্য ও আবৃত্তিকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে ভালোবাসায় লাকী আখান্দকে স্মরণ করলেন তার প্রিয়জনেরা। গানে কথায় তাকে শ্রদ্ধা জানান সবাই। বক্তারা বলেন, লাকী আখান্দ নতুন সংগীত ধারায় এদেশের সংগীত ভুবনকে সমৃদ্ধ করেছেন। তার রেখে যাওয়া গান অমর, চিরসবুজ। এসব গানের মৃত্যু নেই। শিল্পীকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক। আরো বক্তব্য রাখেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। এক মিনিট নীরবতা পালনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ‘নাগরিক শ্রদ্ধা’ অনুষ্ঠান। লাকী আখান্দের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, সবাইকে একদিন চলে যেতে হবে, কিন্তু সময়ের আগে কেউ চলে গেলে সবাই কাঁদে। তেমনি আমরাও কাঁদি লাকী আখান্দের এমন বিদায়ে। তিনি গানে বলেছেন ‘আমায় ডেকো না’। তবুও আমরা তাকে ডাকবো। শিল্পী-সাহিত্যিকরা সব সময় কালোত্তীর্ণ। শিল্পীদেরও দেশ, জাত, ধর্ম আছে। প্রয়াত লাকী আখান্দের চলে যাওয়াকে বাংলা সংগীত জগতে অনেক বড় একটা শূন্যতা আখ্যায়িত করে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, এমন একটা সময় ছিল, যখন গানের ভালো তাল, সুরের বড়ই অভাব ছিল। আর তখনই লাকীর আবির্ভাব ঘটে। আরেক প্রয়াত শিল্পী আজম খানের কথা স্বরণ করে মন্ত্রী আরো বলেন, শিল্পীর সৃষ্টির মাঝে একটা যন্ত্রণা থাকে, আর এ যন্ত্রণা লাকী এবং আজম খানের মধ্যে ছিল। এ ধরনের মেধাবী শিল্পীদের স্মরণীয় কর্মগুলো আর্কাইভ করে রাখার আশ্বাস দেন তিনি। মেয়র আনিসুল হক বলেন, লাকীরা হারায় না, মারা যায় না। তারা বেঁচে থাকে স্মৃতি হয়ে। লাকীর গানকে সংরক্ষণ করতে হবে। সে সঙ্গে তার গান গাইতে হবে খোলা মাঠে। যেখানে শত শত শিল্পী অংশ নেবেন। অনুষ্ঠানে লাকী আখান্দের জীবনভিত্তিক একটি ভিডিওচিত্র প্রদর্শিত হয়। এছাড়া লাকী আখান্দের বাল্যবন্ধু ফেরদৌস ওয়াহিদ গেয়ে শোনান লাকী আখান্দের ‘আগে যদি যানতাম’ গানটি। আর বামবার কয়েকজন সদস্য মিলিত কণ্ঠে পরিবেশন করেন ‘আবার এলো যে সন্ধ্যা’ গানটি। সবশেষে এ আয়োজনে শিল্পী লাকী আখান্দের সুর করা তার জীবনের শেষ গানটির ভিডিওচিত্রও প্রদর্শিত হয়।


 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন