যেখানে রোডই নেই সেখানে রোডম্যাপ দিয়ে কি হবে

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ জুলাই ২০১৭, সোমবার
আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচন নিয়ে ইসি ঘোষিত রোডম্যাপে সমাধান হবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বলেছেন, নির্বাচন কমিশন কোনো আলোচনা না করেই এককভাবে একটি রোডম্যাপ দিয়ে দিল। আমরা এখন পর্যন্ত রোডই দেখতে পাচ্ছি না সেখানে ম্যাপ তো পরের প্রশ্ন। নিরপেক্ষ অবাধ নির্বাচনের জন্য একটা সহায়ক সরকার প্রয়োজন। সে সহায়ক সরকার গঠনের ব্যাপারে এই মুহূর্তে বড় প্রয়োজন আলোচনা। সেদিক থেকে কোনো আলোচনা না করে এই রোডম্যাপ দিয়ে তো সমস্যার সমাধান হবে না।
দেয়ার মাস্ট বি রোড টু ইলেকশন। নির্বাচন কমিশন রোডম্যাপ ঘোষণার পর গতকাল নয়া পল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দেয়া তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এসব কথা বলেন। মির্জা আলমগীর বলেন, এটা অত্যন্ত স্পর্শকাতর ও অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি বিষয়। আমরা সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে কথা বলব, আমাদের চেয়ারপারসনের সঙ্গে আলোচনা করে পরে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাবো। নির্বাচনকালীন সরকার প্রসঙ্গে মির্জা আলমগীর বলেন, নির্বাচন কমিশন যদিও রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে তবে আমরা মনে করি, এটা প্রধান বিষয় না। এটা প্রধান সংকট নয়। প্রধান সংকটটা হচ্ছে, নির্বাচনটা কিভাবে হবে? নির্বাচনের সময় সরকার কোন জায়গায় থাকবে, নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা কী হবে? তিনি বলেন, আমরা যে কথা বার বার বলে আসছি, নিরপেক্ষ অবাধ নির্বাচনের জন্য একটা সহায়ক সরকার প্রয়োজন। সেই সহায়ক সরকার গঠনের ব্যাপারে আলোচনা বড় প্রয়োজন। এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেন, কমিশনের উদ্দেশ্য খুব ভালো। সবাই তা-ই বলে। বর্তমান সরকারও বলছে আমরা নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে চাই, সহায়তা করতে চাই। তারপরও দেখতে পারছেন দেশ কি অবস্থার মধ্যে আছে? আমরা একটা সভা করার অনুমতি পাই না। আমাদের চেয়ারপারসন বিদেশে গেলেন, আমাদের সিনিয়র নেতাদের রাস্তার মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এই একটা পরিস্থিতি-পরিবেশ তৈরি করেছে। দেশে নির্বাচনের আদৌ কোনো পরিবেশ আছে কিনা সেটাও তো সবার আগে দেখতে হবে? নির্বাচন কমিশন সম্পর্কে আমরা আমাদের বক্তব্য দিয়েছি। কমিশন যেভাবে গঠন হয়েছে, আমরা বক্তব্য দিয়েছি। নির্বাচন কমিশন থেকে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপের বিষয় বিএনপির অবস্থান জানতে চাইলে মির্জা আলমগীর বলেন, সে ব্যাপারে অবশ্য আমরা বলেছি- গণতান্ত্রিক যতগুলো পদ্ধতি আছে এবং নিয়মতান্ত্রিক যতগুলো পদ্ধতি আছে, আমরা সব এক্সজোস্ট করতে চাই। আমরা গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে যেতে চাই। এটা নির্ভর করবে নির্বাচন কমিশন ও সরকারের সদিচ্ছার ওপরে। তারা আমাদেরকে যেতে দিতে চায় কিনা। এ সময়ে দলের ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

আদার ব্যপারী

২০১৭-০৭-১৭ ০১:৩৮:১৭

যেখানে রোডই নেই সেখানে রোডম্যাপ দিয়ে কি হবে। ফকরুল ইসলাম ফকরুল সাহেব কি জানেন না ? যে রোড তৈরির অাগে ম্যাপ তৈরি করতে হয়। কি ভাবে , কোথা থেকে কোথায় রোড যাবে ! কি ভাবে রোড হবে , সব কিছুর অাগে ম্যাপ তৈরি করতে হয়। তারপর রোড তৈরি হয়।।

Mohammad Milki

২০১৭-০৭-১৬ ২১:০৫:৩১

Mr. Fokhrool U Should Change Ur Eye Glass. Better Go To Eye Specialist For Check Up.

আপনার মতামত দিন

সমাপনীতে অনুপস্থিত ১৪৫৩৮৩ শিক্ষার্থী

ঈদ-ই মিলাদুন্নবি ২ ডিসেম্বর

দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য তারেক রহমানকে দরকার: এমাজউদ্দিন

দল থেকে বরখাস্ত মুগাবে

দেখা হলো, কথা হলো কাদের-ফখরুলের

আখতার হামিদ সিদ্দিকী আর নেই

ইইউ প্রতিনিধি ও তিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন

‘এবার প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো সুযোগ নেই’

নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করবে না শেখ হাসিনার সরকার-নৌ মন্ত্রী

‘আমি ব্যবসায়িক প্রতিহিংসার শিকার’

সেনা মোতায়েন নিয়ে বৈঠকে কোনো আলোচনা হয়নি : সিইসি

২০১৮ সালে প্রবল ভুমিকম্পের আশঙ্কা!

কেয়া চৌধুরী এমপি’র উপর হামলার ঘটনায় মামলা

বাংলাদেশের রাজনীতি, বিকাশমান মধ্যবিত্ত এবং কয়েকটি প্রশ্ন

সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত এমপি গোলাম মোস্তফা আহমেদ

খেলার মাঠে দেয়াল ধসে দর্শক যুবকের মৃত্যু