২ পুলিশ, ৩ হামলাকারী নিহত

জেরুজালেমের পবিত্র এলাকায় গোলাগুলি

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৫ জুলাই ২০১৭, শনিবার
জেরুজালেমে পবিত্র স্থাপনার কাছে গোলাগুলির ঘটনায় দুই ইসরাইলি পুলিশ নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অপর একজন। পরে নিরাপত্তা রক্ষীদের গুলিতে নিহত হয় তিন হামলাকারী। বিবিসি ও বার্তা সংস্থা এপির খবরে বলা হয়, পুলিশের ওপর গুলি চালায় তিন ইসরাইলি আরব। মুসলিমদের কাছে হারাম আল শরিফ ও ইহুদিদের কাছে টেম্পল মাউন্ট নামে পরিচিত পবিত্র স্থাপনার কাছে এই গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। পুলিশ পরে হামলাকারীদের ধাওয়া করে সেখানেই তাদের গুলি করে হত্যা করে।
খবরে আরো বলা হয়, ২০১৫ সালের শেষ দিক থেকে ইসরাইলিদের ওপর ছুরিকাঘাত, গোলাগুলি ও গাড়ি চালিয়ে হামলা হয়ে আসছে। এসব হামলা প্রধানত চালিয়েছে ফিলিস্তিনি বা ইসরাইলি আরবরা। আগের হামলাকারীদের মধ্যে দু’জন ছিল জর্ডানিয়ান।
পুলিশ জানিয়েছে, শুক্রবারের হামলাকারীদের বয়স ছিল ১৯ থেকে ২৯ এর মধ্যে। তারা উম আল ফাহম নামের উত্তর ইসরাইলি শহর থেকে এসেছিল। ইসরাইলের শিন বেত সিকিউরিটি এজেন্সি জানিয়েছে হামলাকারীরা নিরাপত্তা বাহিনীগুলোর কাছে আগে থেকে পরিচিত নয়।
পুলিশ জানায়, বন্দুকধারীরা টেম্পল মাউন্ট/হারাম আল শরিফ থেকে এলোপাতাড়ি গুলি করতে করতে ওল্ড সিটি দেয়ালের লাইয়ন্স গেট নামের প্রবেশমুখের দিকে অগ্রসর হয়। এরপর তাদের তাড়া করে পেছনে হটিয়ে দিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়। মোবাইল ফোনে ধারণকৃত ফুটেজে এক হামলাকারীকে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে মুখোমুখি অবস্থায় দেখা যায়।
গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দুই পুলিশ সদস্যকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তারা সেখানে মারা যায়। তাদের একজন অ্যাডভান্সড সার্জেন্ট মেজর কামিল শানান (২২) এবং অপরজন অ্যাডভান্সড স্টাফ সার্জেন্ট মেজর হেইল সাত্তায়ি (৩০)।
ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু এ দিনকে দুখের দিন আখ্যা দিয়ে নিহত নিরাপত্তা কর্মীদের সাহসিকতার জন্য সম্মান প্রদর্শন করেন। ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসও হামলার নিন্দা জানান। নেতানিয়াহুকে ফোন করে জেরুজালেম পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন আব্বাস। খবরে বলা হয়, দু’নেতার মধ্যে বলতে গেলে সরাসরি কোনো যোগাযোগ নেই। এ পরিস্থিতিতে তাদের ফোনালাপ ইঙ্গিত দেয়, পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার উদ্বেগ রয়েছে। মাহমুদ আব্বাস হামলার নিন্দা জানিয়ে বলেন, তিনি যে কোনো পক্ষের তরফে সহিংসতা প্রত্যাখ্যান করেন, বিশেষ করে পবিত্র স্থাপনাগুলোতে।
হামলার ঘটনার পর পুলিশ পুরো স্থাপনা অস্ত্রের সন্ধানে তল্লাশি চালানোর জন্য সিল করে দিয়েছে। কয়েক দশকের মধ্যে এবারই প্রথম জুম্মা নামাজের সময় মুসলিমদের জন্য হারাম আল শরিফ প্রাঙ্গণ বন্ধ করে দেয়া হয় যেখানে রয়েছে মসজিদ উল আকসা। সাধারণত জুম্মা নামাজে হাজারো মুসলিম এখানে সমাগত হন। এই স্থানের ব্যবস্থাপনায় রয়েছে ইসলামিক অথরিটি (ওয়াকফ)। অবশ্য সেখানের নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছে ইসরাইল। হামলাকারীরা কিভাবে ঘটনাস্থলে বন্দুক, অস্ত্র ও ছুরি নিয়ে প্রবেশ করে তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।
এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোনো পক্ষ এখনো হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে, গাজা নিয়ন্ত্রণ করা ফিলিস্তিনি গোষ্ঠী হামাস এ হামলার প্রশংসা করে বলেছে, ‘জায়নিস্টদের চলমান অপরাধের প্রেক্ষিতে এটা স্বাভাবিক এক প্রতিক্রিয়া।’   
শুক্রবার হওয়া গোলাগুলির কয়েক সপ্তাহ আগে ইসরাইলি এক নারী পুলিশ সদস্যকে ছুরি ও বন্দুক হামলায় খুন করেছিল তিন ফিলিস্তিনি। দখলকৃত পশ্চিম তীরের ওই তিন ফিলিস্তিনি ওল্ড সিটির বাইরে তাকে হত্যা করে। প্রায় দু’ বছর ধরে চলা এ ধরনের হামলায় এখন পর্যন্ত ৪৪ জন ইসরাইলি ও ৫ বিদেশি নাগরিক নিহত হয়েছে। একই সময়ে নিহত হয়েছে ২৫৫ ফিলিস্তিনি যাদের বেশিরভাগ হামলাকারী বলে দাবি ইসরাইলের। এছাড়া, ইসরাইলি সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে অন্যদের প্রাণহানি হয়েছে। ইসরাইলের বক্তব্য, ফিলিস্তিনিদের প্ররোচনা এসব হামলা উস্কে দিচ্ছে। পক্ষান্তরে ফিলিস্তিনি নেতৃত্ব বলছে, দশকের পর দশক ধরে চলে আসা ইসরাইলি দখলদারিত্বের ফলে সৃষ্ট হতাশা এসব হামলার জন্য দায়ী।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

অভিযোগের পাহাড়, অসহায় ইউজিসি

প্রত্যাবাসন শুরু হচ্ছে না আজ

মৈত্রী এক্সপ্রেসে শ্লীলতাহানির শিকার বাংলাদেশি নারী

‘২০৬ নম্বর কক্ষে আছি, আমরা আত্মহত্যা করছি’

ট্রেনে কাটা পড়ে দুই পা হারালেন ঢাবি ছাত্র

পুলে যাচ্ছে সেই সব বিলাসবহুল গাড়ি

নীলক্ষেত মোড়ে ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ, এমপির আশ্বাসে স্থগিত

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সফর সফল করতে নির্দেশনা

নেতাকর্মীরা জেলে থাকলে নির্বাচন হবে না: ফখরুল

তিন দিনের ধর্মঘটে এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা

ইডিয়ট বললেন মারডক

সহায়ক সরকারের রূপরেখা প্রণয়নের কাজ শেষ পর্যায়ে

২৩শে ফেব্রুয়ারির মধ্যে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন

বাসায় ফিরছেন মেয়র আইভী

‘আমাকে ইমোশনাল ব্ল্যাকমেইল করে’

জনগণ রাস্তায় নেমে ভোটাধিকার আদায় করবে: মোশাররফ