ফরাসি ফার্স্টলেডির ‘শারিরীক গড়নে’র প্রশংসায় ট্রাম্প

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৪ জুলাই ২০১৭, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:৪০
মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রথমবারের মতো ফ্রান্স সফরে গিয়ে দেশটির ফার্স্টলেডি ব্রিজিট ম্যাক্রনের ‘শারিরীক গড়নে’র প্রশংসা করেছেন ডনাল্ড ট্রাম্প। আর এ নিয়ে সমালোচনাও শুনতে হয়েছে তাকে। তার এই মন্তব্য ফরাসি সরকারের ফেসবুক পেইজেও বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হয়। গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়, নারী চেহারা ও পরিচ্ছদ নিয়ে মন্তব্যের জন্য বহুবার সমালোচনার মুখে পড়তে হয় ট্রাম্পকে।
কিন্তু বাস্তিল দিবস উদযাপনে ফ্রান্সে গিয়ে নতুন সমালোচনার জন্ম দিলেন তিনি। হোটেল দাস ইনভ্যালাইডস-এ ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল ম্যাক্রন ও তার স্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন ট্রাম্প। আশপাশ ঘুরে দেখা শেষে ট্রাম্প ফরাসি ফার্স্টলেডির হাত ধরেন। এমনকি নিজের স্বভাবসুলভ কায়দায় ওই হাত নিজের দিকে বারবার টেনে নিয়ে ঝাঁকাতে থাকেন। ট্রাম্পের এই অদ্ভুত হ্যান্ডশেক নিয়েও অনেক আলোচনা হয়েছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত একজন নারীর সঙ্গেও একই কাজ তার।
অস্বস্তিকর হ্যান্ডশেক পর্ব শেষে ট্রাম্প ফরাসি ফার্স্টলেডির দিকে ফিরে বলে বসেন, ‘আপনার এতো ভালো শারিরীক গঠন!’ এরপর পাশে থাকা প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রনের দিকে ফিরেও তিনি আবার একই কথা বলেন। এরপর ফার্স্টলেডির দিকে আবার মন্তব্য করেন, ‘সুন্দর।’ কিন্তু ফার্স্টলেডি প্রত্যুত্তরে কিছু বলেছেন কিনা স্পষ্ট নয়। পুরোটা সময় পাশে ছিলেন মার্কিন ফার্স্টলেডি মেলানিয়া ট্রাম্পও।
ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকে ট্রাম্পের মন্তব্যকে ‘সেক্সিস্ট’ আখ্যা দিয়ে নিন্দা জানান। ফ্রিল্যান্স ভিডিও প্রডিউসার ও লেখক অ্যালেক্স বার্গ লিখেছেন, ‘ট্রাম্প ফরাসি ফার্স্টলেডিকে বলছেন, আপনার শারিরীক গড়ন কতো ভালো! এই মন্তব্যই নারীদের প্রতি পুরুষদের প্রশংসা ও যৌন হয়রানি এক করে ফেলার বড় উদাহরণ।’
তথ্যচিত্র নির্মাতা ও অভিনেত্রী জেন সিবেল বলেন, ‘মি. ট্রাম্প, আপনি নারীদের শরীর নিয়ে কী ভাবেন সেই সম্পর্কে অযাচিত মন্তব্য শুনতে চায় না তারা। এটি স্থূল ও খুবই অসঙ্গত।’
এ নিয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে হোয়াইট হাউজ।
গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়, সাবেক প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন ও রিপাবলিকান প্রার্থী কার্লি ফিওরিনা, কমেডিয়ান রোজি ও’ ডোনেল, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব আরিয়ানা হাফিংটন-এর চেহারা নিয়ে ‘সেক্সিস্ট’ মন্তব্য করে নিন্দার মুখে পড়েন ট্রাম্প। এছাড়া মডেল কিম কার্দাশিয়ান ও হেইদি ক্লামও তার নেতিবাচক মন্তব্যের শিকার হন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী প্রচারাভিযানের সময় ২০০৫ সালের একটি ভিডিও প্রকাশ হলে নিন্দার ঝড় বয়ে যায়। সেখানে তাকে নারীদের নিয়ে আপত্তিকর কথা বলতে দেখা যায়। সাম্প্রতিককালে এমএসএনবিসি টিভির প্রখ্যাত উপস্থাপিকা মিকা ব্রজেজিনস্কিকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করেন ট্রাম্প। এরপর আয়ারল্যান্ডের নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে টেলিফোনালাপ চলাকালে আইরিশ এক সাংবাদিককে মঞ্চে ডেকে এনে তার সৌন্দর্যের প্রশংসা করেন তিনি।
সমালোচকরা বলেন, নারীদের চেহারা, শরীর ও অঙ্গপ্রত্যঙ্গকে সমালোচনা বা অযাচিত প্রশংসা করার প্রবণতা আছে তার। অনেকটা যেন এমন, বাহ্যিক এসব শারিরীক বৈশিষ্ট্য ছাড়া নারীদের আর কিছু নেই।
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন