আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের ইফতার পার্টি

মিডিয়ার কারণে বাংলাদেশি কমিউনিটির বিকাশ ও বিস্তার ঘটেছে

প্রবাসীদের কথা

অনলাইন ডেস্ক | ২১ জুন ২০১৭, বুধবার
ছবি: এ হাই স্বপন
নিউইয়র্কে গত ১৯ জুন অনুষ্ঠিত আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের ইফতার পার্টিতে সাংবাদিকরা বলেছেন- প্রবাসে বাংলাদেশি কমিউনিটি বিনির্মাণ করেছে মিডিয়া। একটা সময় ছিল প্রতিটি প্রবাসী ছিল একা ও নিঃসঙ্গ। মিডিয়ার কল্যাণে প্রবাসীদের মধ্যে যে সেতুবন্ধন গড়ে উঠে, তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশি কমিউনিটির বিকাশ ও বিস্তার ঘটেছে। সাংবাদিকরা মানুষের মধ্যে সমাজবদ্ধ হবার মন্ত্রণা দেন এবং ঐক্য সৃষ্টি অনুঘটকের ভূমিকা রাখেন। তাদের মধ্যে অনৈক্য সৃষ্টি হলে সমাজ তথা কমিউনিটিতে হতাশার জন্ম নেয়। তাই প্রবাসে কমিউনিটি বির্নিমাণে সাংবাদিকদের বিভক্ত ভুলে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।
ইফতার উত্তর এক প্রাণবন্ত আলোচনা সভায় বক্তারা এই অভিমত ব্যক্ত করেন। তারা বলেন, শিক্ষক ও সাংবাদিকরা সকলের কাছে সম্মানিত। তাদের প্রতি সাধারণ মানুষের সম্মান ও আত্ম মর্যাদা ধরে রাখতে হলে বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতাও করতে হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে সমাজের কেউ যেন অপ-সাংবাদিকতার শিকার না হন। আলোচনায় অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখেন নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত প্রথম সাপ্তাহিক ঠিকানা’র সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি ও সাবেক সাংসদ এম. এম. শাহীন, সাপ্তাহিক পরিচয় পত্রিকার সম্পাদক নাজমুল আহসান, প্রবীণ সাংবাদিক ও নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মাহাবুবুর রহমান, সাপ্তাহিক বাংলাদেশ পত্রিকার সম্পাদক ডাঃ ওয়াজেদ এ খান, বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টিভি’র সিইও আবু তাহের, সাপ্তাহিক আজকাল পত্রিকার প্রধান সম্পাদক জাকারিয়া মাসুদ জিকো, সাপ্তাহিক প্রবাস পত্রিকার সম্পাদক মোহাম্মদ সাঈদ, এটর্নী মঈন চৌধুরী ও সাপ্তাহিক জনতার কণ্ঠের সম্পাদক শামসুল আলম। এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি দর্পণ কবীর ও অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক শওকত ওসমান রচি। ইফতার গ্রহণের আগে দোয়া পরিচালনা করেন এটর্নী মঈন চৌধুরী।
ইফতার পার্টিতে অংশ নেন সাপ্তাহিক আজকাল পত্রিকার সম্পাদক মনজুর আহমেদ, সাপ্তাহিক বর্ণমালা পত্রিকার সম্পাদক মাহফুজুর রহমান, সাপ্তাহিক বাংলাদেশ পত্রিকার উপদেষ্টা সম্পাদক আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, সাপ্তাহিক প্রবাস পত্রিকা’র প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ওয়ালী উল আলম, সংগঠনের সহ-সভাপতি বেলাল আহমেদ (সম্পাদক- সাপ্তাহিক বর্তমান বাংলা ও ম্যাগাজিন জেমিনি), যুগ্ম-সম্পাদক মনজুরুল হক (টিবিএন-২৪), কোষাধ্যক্ষ মশিউর রহমান (বর্ণমালা), নির্বাহী সদস্য এবিএম সিদ্দিক (আজকাল), সদ্য প্রকাশিত সাপ্তাহিক সন্ধান পত্রিকার সম্পাদক সনজীবন কুমার সরকার, সাংবাদিক মইনুদ্দীন নাসের, সাংবাদিক মুজাহিদ আনসারী, সাংবাদিক শাহাব উদ্দিন সাগর (সম্পাদক-মুক্তি বার্তা), সাংবাদিক মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীন, মেহেরুন্নেছা জোবায়দা (পরিচালক টাইম টিভি), সালাউদ্দিদন আহমেদ (ইক কথা.কম), ইলিয়াস খসরু (টাইম টিভি), ইমরান আনসারী (নয়া দিগন্ত), তাওহিদা সুমি (আজকাল), নজরুল ইসলাম (আজকাল), এ হাই স্বপন (মানবজমিন), তফাজ্জল লিটন (রাইজিং বিডি), মল্লিকা খান মুনা (অন নিউজ-২৪), সাংবাদিক কনক সারোয়ার, কাউসার মুমিন (মানব জমিন), আলমগীর হোসেন (বাংলা পত্রিকা), রিয়েল স্টেট ব্যবসায়ী মইনুল ইসলাম প্রমুখ। 
এ সভায় এম. এম. শাহীন বলেন, সাংবাদিকদের মধ্যে ঐক্য, সৌাহর্দ্য ও সম্প্রীতি বজায় রাখতে হবে। এ পেশায় যারা কাজ করেন, তারা অনেক কষ্ট-ত্যাগ স্বীকার করেন। তারা মানুষের কাছে আর্দশ হিসাবে প্রতিষ্ঠা পান। তবে এ পেশায়ও দু-একজন দুষ্ট ব্যক্তি রয়েছে। তাদের প্রতিরোধ করে সাংবাদিকতা পেশার মর্যাদা রক্ষা সকলের দায়িত্ব। তিনি নিউইয়র্কে একাধিক প্রেসক্লাবের কর্মকর্তাদের এক হবার আহবান জানিয়ে বলেন, আমার পত্রিকার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট যারা তাদের সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হবার কাতারে দাঁড় করাবো কথা দিচ্ছি।
প্রবীণ সাংবাদিক মাহাবুবুর রহমান বলেন, একটা সময় অনেক কষ্ট করে পত্রিকা বের করতে হতো। অতীতে যারা মিডিয়া করেছেন, তারাই মূলত কমিউনিটির ভিত্তি গড়েছেন।
পরিচয় সম্পাদক নাজমুল আহসান বলেন, সাংবাদিক ও মিডিয়া কর্মীদের বিবেক দিয়ে পেশার কাজ করতে হবে। কতিপয় সুবিধাবাদী সাংবাদিকতা পেশার সুনাম নষ্ট করছে। অপ-সাংবাদিকতার প্রতিরোধ করতে সকলকে সোচ্চার হতে হবে।
বাংলাদেশ পত্রিকার সম্পাদক ডা. ওয়াজেদ এ খান বলেন সাংবাাদিকদের মধ্যে বিভেদ থাকলে কমিউনিটির জন্য মঙ্গলজনক নয়। সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ হলে কমিউনিটি এগিয়ে যেতে পারে। 
বাংলা পত্রিকার সম্পাদক আবু তাহের বলেন, কমিউনিটি সাংবাদিকতাই এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। যত দিন যাচ্ছে কমিউনিটি সাংবাদিকতার প্রতি ফোকাসও বাড়ছে। অথচ কমিউনিটি নেতা-ব্যবসায়ীরা কমিউনিটি সাংবাদিকতার প্রতি উদাসীন। তিনি আরো বলেন-মিডিয়ায় পেশাগত প্রতিযোগিতা থাকতে পারে, কিন্তু এক মিডিয়ার বিরুদ্ধে আরেক মিডিয়ার বিরোধ থাকা সঠিক নয়। 
আজকাল পত্রিকার প্রধান সম্পাদক জাকারিয়া মাসুদ জিকো বলেন-মিডিয়ার মালিকদের মধ্যে সৌাহর্দ্য-সম্প্রীতি বজায় থাকা দরকার। নিউইয়র্কে মিডিয়া জগতে ঘুনপোকা ঢুকে পড়েছে। আমাদের এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। 
প্রবাস পত্রিকার সম্পাদক মোহাম্মদ সাঈদ বলেন, সাংবাদিকদের উচিত কমিউনিটিকে এগিয়ে নিয়ে যাবার পাশাপাশি নিজেদের বদলে নেয়া। বিরোধ-বিদ্বেষ ভুলে যেতে হবে। উদার মানসিকতার পরিচয় দিয়ে না পারলে সাংবাদিকরা সমাজের উপকার কী করবেন? 
এদিন বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টিভি’র সিইও আবু তাহেরের জন্মদিন ছিল বলে অনুষ্ঠানে সমবেত সাংবাদিক-মিডিয়ার মালিকরা করতালির মধ্য দিয়ে তাঁকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

মুগাবের পদত্যাগ, জিম্বাবুয়েজুড়ে উল্লাস

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে চীনের প্রস্তাব, যা বললেন মুখপাত্র...

তিন বাহিনীকে আধুনিক করতে সবই করবে সরকার

নিজেদের কার্যালয়ে এজাহার দায়েরের ক্ষমতা চায় দুদক

জাতিসংঘের সম্পৃক্ততায় আপত্তি মিয়ানমারের

চলতি সপ্তাহেই সমঝোতার আশা সুচির

বিচারক রেফারি মাত্র

বাংলাদেশে বসবাসকারী রোহিঙ্গা নেতা নিখোঁজ

অভিশংসনের মুখে মুগাবে

মাঠ গোছাতে ব্যস্ত প্রার্থীরা

নিজাম হাজারীর লোকজন খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলা করে

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের নামে লুটপাট চলছে

দুদকের মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন মেয়র সাক্কু

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন টিটু রায়

আনসারুল্লাহ’র দুই জঙ্গি কলকাতায় গ্রেপ্তার

‘আওয়ামী লীগ ৪০টির বেশি আসন পাবে না’