‘বস টু’ ও ‘নবাব’ মুক্তি না পেলে সিনেমা হল বন্ধের ঘোষণা

বিনোদন

স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ জুন ২০১৭, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৫৯
বাংলা চলচ্চিত্রের জন্য বেশ উত্তাল সময় যাচ্ছে এখন। কারণ বিভক্ত হয়ে গেছে দুটি পক্ষ। চলচ্চিত্র ঐক্যজোটের এক পক্ষ আন্দোলন করছে যৌথ প্রযোজনার অনিয়ম নিয়ে। আবার অন্যদিকে প্রযোজক, বুকিং এজেন্ট সমিতি, চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতি, চলচ্চিত্র ব্যবসায়ী ফোরাম ও সিনেমা হল মালিক একত্রিত হয়ে গত রোববার রাজধানীর এক রেস্তরাঁয় সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলন করেন। সেখানে সকলে ‘বস টু’ ও ‘নবাব’ ছবি দুটির দ্রুত মুক্তি পাওয়া নিয়ে কথা বলেন। অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে দেশীয় চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া। অনুষ্ঠানে তাদের পাশাপাশি কাজী হায়াৎ, শাকিব খান, অমিত হাসান, ফেরদৌস, আরিফিন শুভ, শিবাসানু, পিয়া বিপাশা, মিষ্টি জান্নাত, জলি, বিপাশা কবির, ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ, আবদুল আজিজসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন। এটি সঞ্চালনা করেন অভিনেতা-পরিচালক নাদের চৌধুরী। অনুষ্ঠানে শাকিব খান বলেন, যৌথ প্রযোজনার ছবি এর আগেও বাংলাদেশে হয়েছে। এটা নতুন কোনো বিষয় না। আর আমার অভিনীত ‘নবাব’ ছবিটি প্রিভিউ কমিটি দেখার পর আশা করেছিলাম জাজ মাল্টিমিডিয়ার আজিজ সাহেবকে একটা থ্যাঙ্কস লেটার দেবেন। কারণ ছবিটির নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছি আমি। সঠিক নীতিমালা মেনেই ছবির কাজ হয়েছে। পাশাপাশি ছবিতে বাংলাদেশের প্রশাসনকে আন্তর্জাতিকভাবে হাইলাইট করা হয়েছে। এরমধ্যে যারা আন্দোলন করছে তাদের উদ্দেশ্যে আমি বলতে চাই এর আগে যখন কাফনের কাপড় পরে রাস্তায় নেমেছিলাম সেই আন্দোলনটা ছিল আমার ভারতীয় হিন্দি-উর্দু ছবির বিরুদ্ধে, যৌথ প্রযোজনার বাংলা ছবির বিরুদ্ধে নয়। তিনি আরও বলেন, আন্দোলন করুক আর যাই করুক না কেন সবাই ব্যক্তিস্বার্থে করছেন। সরকারের নিকট অনুরোধ করবো আমরা যারা ভালো কাজ করছি তারা যেন নির্বিঘেœ কাজ করতে পারি, সেই সুযোগ করে দেয়ার। ফেরদৌস বলেন, আমি সবসময়ই যৌথ প্রযোজনার ছবির পক্ষে ছিলাম, আছি এবং থাকব। অমিত হাসান বলেন, সরকারি নিয়ম মেনেই ছবিগুলো নির্মিত হয়েছে। তারপরও কেন এটার বিরুদ্ধে আন্দোলন হচ্ছে তা বুঝতে পারছি না। এদিকে বুকিং এজেন্টদের পক্ষ থেকে এই সংবাদ সম্মেলনে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, ছবি দুটি (বস-টু ও নবাব) মুক্তি না পেলে সারা দেশের হল মালিকরা তুমুল আন্দোলন করবে এবং যারা এই ছবি দুটির বিরুদ্ধে আন্দোলন করছেন তাদের ছবি হলে চালানো হবে না। জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আবদুল আজিজ বলেন, যাদের কাজ নেই তারাই আন্দোলন করছে। আমরা আস্তে আস্তে কলকাতায় আমাদের শিল্পীদের ঢোকানোর চেষ্টা করছি। আমাদের সিনেমা হল বাঁচাতে হলে বড় বাজেটের সিনেমা বানাতে হবে। দর্শক ভালো মানের ছবি ঈদে দেখতে চাই। আর ‘বস টু’ ও ‘নবাব’ বেশ বড় বাজেটের ভালো মানের ছবি। সিনেমা হল মালিকরাও এই ছবিগুলো সিনেমা হলে চালাতে বেশ আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। তিনি আরো বলেন, ‘বস-টু’ ও ‘নবাব’ মুক্তি না পেলে জাজের অধীনের হলগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে। চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সভাপতি ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, এ ছবি দুটি মুক্তি না পেলে আমাদের সিনেমা হলগুলো ঈদে বন্ধ করে রাখব। কারণ এ ছবিগুলোর সঙ্গে আমাদের ব্যবসায়িক ইনভলবমেন্ট আছে। আমরা ভালো কনটেন্টের পক্ষে। ঈদে দর্শক এ ধরনের ছবিই দেখতে চায়।
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Sultan Mahmud

২০১৭-০৬-২০ ০১:২২:৫৮

এই সব বাড়াবারির কোন মানেই হয়না।এই সব বাড়াবারি করা মানে নিজের পায়ে নাজে কুরাল মারা।দেশে ছিনেমা হলের সংখা খুব কম।তাই বড় বাজেটার ছবি সুধু এই দেশে চালালে বিগবাজেটের ছবিগুলর টাকা উঠবেনা। তাই দু দেশেই চালানোর ব্যবস্থা করতে হবে।যারা আন্দলন করছে তারা সবাই নিজেদের সার্থেই করেছে।মিশা যে ছবি করেছে তা ছিল একেবারে যৌথপ্রতারনা ওখানে ভিলেন ছাড়া নায়ক নায়কা দুটাই ভারতের।তিনিই যৌথপ্রতারনা পথ তৈরি করেদিয়ে আবার তিনিই আন্দলন করছে।ব্যাপাটা একদম হাস্যকর এবং মিরজাফরি।ইমন তার কিছুদিন আগে প্রবাসিনী ছবিটা কি ছিল,পরিমনি রক্ত ছবিকি?এটা পুরাটাই চলচিত্রকে ধংষের এটা চক্রান্ত তা ছাড়া কাছুই নয়।আমি ব্যক্তি গত ভাবে মনে করি এই বিসয়ে সরকারের হস্তখেপের প্রয়জন।তা ছাড়া বিষয়টা আস্তে আস্তে ভয়াবহ আকার ধারন করবে।R আঃআজিজ ভাই আপনাকে বলি আপনারো অনেক দোস রয়েছে আপনি দেশের শিল্পিদের প্রধান্য দেওয়া বাদ দিয়ে ভারতের শিল্পিদেরকে বেসি প্রাধান্যদান।তার অনেক প্রমার আমাদের কাছে রয়েছে।এখানে শাকিব কে হাইলাইট না করে জিৎকে আপনি বেসি প্রাধান্যদেন।আপনার পেজে শাকিবের বা বিদেশিও কোনো নয়কের যে মূল্য দেন তার এটুও দেশিও শিল্পিরা পায়না।সবচেয়ে বড় কথা সঠিক ভাবে নিয়ম মনে যৌথ ছিনেমা করেন মিশা বদি আরো জারা সার্থপর রয়েছে,তারা কেনো সরকার ও ছবি রিলিজে বাধা দিতে পারবেনা।শিকারিতে যতটুকি নিয়ম মানা হয়েছে তার থেকে নবাবে একটু কম রয়েছে। বস২তে তো আরো নিয়ম মানা হয়নি।যার কারনে বস২ কারনে এখন নবাবও হুমকির মুখে

Hanif chowdhury

২০১৭-০৬-১৯ ১১:৩৩:৪৫

অামরা ভাল মানের ছবি দেখতে চায়।নবাব অার বস ২ মুক্তি না দিলে সংগ্রাম করবো।ছবি দেখার মত নায়ক না হলে মজা নায়।শাকিব আর আরফিন ভাই ছাড়া বাংলাতে তেমন ভাল মানের নায়ক নায়।

নাম জেনে কাম কি

২০১৭-০৬-১৯ ১০:০৮:১৭

নায়ক সায়মন+বাপ্পি ওদের ছবি কাল থেকে দেখা বাদ দিয়েছি ওরা এক নাম্বার বিয়াদ্দপ সামান্য একটা ছবি তুলার জন্য রিকুয়েস্ট করেছিলাম সায়মন বাপ্পি যে ব্যবহার করেছে তাতে আমি ধন্য

hafiz

২০১৭-০৬-১৯ ০০:৪৩:১৫

Bondho hok

sheikh tutul

২০১৭-০৬-১৮ ২৩:৫৭:১৬

আমার মনে হয় যে যটাই করুক, এই শিল্পে যেন ধ্বংশের দিকে না যায়। বাড়াবাড়ি করলে নিজেদেরই কপাল পুড়বে । ভালো জিনিষ বানান হল বাচিয়ে রাখুন। মান্দাতা আমলের ছবি দিয়ে এখন চলবেনা । তবে বাইরের লোক এসে রাজত্ব করবে এটাও চলবে না। জাজের কথা একেবারে ফেলে দেওয়ার না, ওনাকে কাস্ট করুন আর Good for Nathing. আর জাজও ভালো তা বলছিনা, ocation বেছে নিয়ে আপনি ফাইদা লুটছেন।।

Homayun Kobir

২০১৭-০৬-১৮ ২৩:২৪:৩৪

Thik.sinema holl bondo houya dorkar

novel

২০১৭-০৬-১৮ ২৩:১৫:২৫

এই ঈদে বস২ চাই।।।কারণ জিৎ আমার ফেবারিট হিরো।।

জাহাঙ্গীর আলম

২০১৭-০৬-১৮ ২২:৫০:৫৪

সিনেমাহল গুলো বন্ধ হয়ে যাওয়া উচিত।মুসলিম প্রধান দেশে সিনেমা হলের নামে শয়তানের আড্ডখানা থাকার মানে হয় না।

আপনার মতামত দিন