প্রেমিকাকে পিটিয়ে আহত করলো প্রেমিকের পরিবার

দেশ বিদেশ

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি | ২০ মে ২০১৭, শনিবার
বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে স্ত্রীর স্বীকৃতি পেল না নিমাতা র‌্যালি। উল্টো তাকে পিটিয়ে আহত করেছে প্রেমিকের পরিবার। পুরো ঘটনাটি সিনেমার কাহিনীর মতো। ঘটনাটি ঘটেছে হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার নয়াপাড়া চা-বাগানে। বৃহস্পতিবার বিকালে নয়াপাড়া চা-বাগান হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, বিছানায় কাতরাচ্ছে নয়াপাড়া চা বাগানের নতুন লাইন এলাকার বাসিন্দা গনেশ র‌্যালির মেয়ে নিমাতা র‌্যালি (২২)। আশপাশে বসে আছে তার কিছু স্বজন।
কী হয়েছে জানতে চাইলে নিমাতা র‌্যালি জানান, ৫ বছর আগে একই বাগানের যুগি র‌্যালির ছেলে এলিম র‌্যালির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে তার। মন দেয়া নেয়া চলতে থাকে তাদের মধ্যে। রাতের আঁধারে চুপিসারে দেখা হতো তাদের। এরই মধ্যে তাদের প্রেমের সম্পর্ক আরো গভীর হয়ে ওঠে। একপর্যায়ে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয় তারা। সম্প্রতি নিমাতা র‌্যালি বিয়ের জন্য বলেন এলিম র‌্যালিকে। তখন থেকে এলিম র‌্যালি তাকে এড়িয়ে চলতে থাকে। এক এক করে এলিম আর নিমাতার সম্পর্কের বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ে বাগানে। গত রোববার শালিস বসানো হয় বাগাানের জগলুর বাড়িতে। শালিসে বিষয়টি সমাধান করা যায়নি। তখন নিমাতা স্ত্রীর স্বীকৃতি পেতে গত বুধবার বিকালে এলিমের বাড়িতে গিয়ে উঠে। অবস্থান নেয় তাদের বাড়িতে। এ অবস্থা দেখে এলিম র‌্যালির ভাই ও ভাবিরা নিমাতা র‌্যালিকে পিটিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। তখন স্থানীয় লোকজন নিমাতাকে উদ্ধার করে বাগানের হাসপাতালে ভর্তি করে। নিমাতা র‌্যালির ভাই নিবাশ র‌্যালি জানান, এলিম তার বোনের সঙ্গে প্রেম করে এখন বিয়ে করতে চায় না। তাই নিমাতা তাদের বাড়িতে যায়। তখন এলিম র‌্যালির ভাই ভাবিরা তাকে পিটিয়ে আহত করে। বাগানের পঞ্চায়েত আগামী রোববার শালিসে বসার কথা বলেছে। আমি বিচারের আশায় আছি। আমরা গরিব মানুষ। তাদের শক্তি বেশি। তাই তাদের সঙ্গে লাগতে যাই না।
নয়াপাড়া চা বাগানের পঞ্চায়েত নেতা বাতাস র‌্যালি জানান, নিমাতা র‌্যালি আর এলিম র‌্যালির বিষয়টি সমাধান করার জন্য আমরা বসেছিলাম। কিন্তু সাক্ষী প্রমাণের অভাবে সমাধান করা যায়নি। তবে মেয়েটিকে মারা ঠিক হয়নি।
অপরদিকে এলিম র‌্যালির ভাই সহদেব র‌্যালি জানান, মেয়েটির যদি তার ভাইয়ের সঙ্গে প্রেমটেম থাকতো তাহলে তো প্রমাণ থাকতো। আর মেয়েটির অন্য জায়গায় বিয়ে হয়েছিল। আগের বিয়ের ঘটনা নিয়ে মামলা চলছে। এখন মেয়েটি আমার ভাইকে ফাঁসাতে চাইছে। নয়াপাড়া চা বাগানের ৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য দুলাল ঘোষের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমরা স্থানীয়ভাবে বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করছি। স্থানীয়ভাবে সমাধান না করা হলে আইনগতভাবে দেখা হবে। থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাজেদুল ইসলাম পলাশ জানান, ঘটনাটি জানা ছিল না। খোঁজ নিয়ে দেখা হচ্ছে।


 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বিদেশি হস্তক্ষেপ রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে না : বেইজিং

ছাত্রলীগ নেতাসহ তিনজন চারদিনের রিমান্ডে

সোনাজয়ী শুটার হায়দার আলী আর নেই

মালয়েশিয়ায় ভূমি ধসে তিন বাংলাদেশি নিহত

নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত মুক্তামনি

খাল থেকে উদ্ধার হলো হৃদয়ের লাশ

রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানকে কঠিন পর্যায়ে নিয়ে গেছে সরকার: খসরু

সঙ্কট সমাধানে প্রয়োজন পরিবর্তন: দুদু

চোখের চিকিৎসা করাতে লন্ডনে গেলেন প্রেসিডেন্ট

সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ আওয়ামী লীগের সদস্য হতে পারবে না

বৌদ্ধ ভিক্ষু সেজে কয়েক শত কিশোরীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক

৫০ বছরের মধ্যে জাপানে কানাডার প্রথম সাবমেরিন

ছিচকে চোর থেকে মাদক সম্রাট!

বোতলে ভরা চিঠি সমুদ্র ফিরিয়ে দিল ২৯ বছর পর!

কার সমালোচনা করলেন বুশ, ওবামা!

জুমের মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে পারবেনা বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সাররা