সেনবাগে সম্মেলন করতে পারেনি বিএনপি

বাংলারজমিন

সেনবাগ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি | ২০ মে ২০১৭, শনিবার
 নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার ৩নং ডমুরুয়া ইউনিয়ন বিএনপির দ্বিবার্ষিক সম্মেলনকে কেন্দ্র করে আগের রাতে এলাকায় ব্যাপক বোমাবাজির কারণে দলীয় নেতাকর্মীদের সম্ভাব্য সহিংসতার আশঙ্কায় থানা পুলিশের বাধায় সভা করতে পারেনি বিএনপি। গতকাল শুক্রবার বিকাল ৩টার সময় সেনবাগ উপজেলার ৩নং ডমুরুয়া বিএনপির নির্ধারিত দ্বিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। এ নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করলেও গতকাল সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।
ওই সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা ছিল বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও নোয়াখালী-২ (সেনবাগ-সোনাইমুড়ি আংশিক) আসনের সাবেক এমপি জয়নুল আবদিন ফারুকের। স্থানীয় রাজনৈতিক সূত্রগুলো জানায়, ওই সম্মেলনে তিনজন সভাপতি ও তিনজন সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়। এর মধ্যে সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম সেলিম, জাহাঙ্গীর হোসেন ভূঁইয়া ও মো. জসিম উদ্দিন এবং সাধারণ সম্পাদক পদে আক্রাম হোসেন আক্রাম, ডাক্তার মো. ইব্রাহিম ও মো. ইব্রাহিম মিন্টু। স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ জানায়, সম্মেলনকে কেন্দ্র করে আগের রাতে (বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে) পুরো ইউনিয়ন জুড়ে  দলীয় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রাতভর থেমে থেমে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।
এতে পুরো এলাকায় চরম আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে রাতেই সেনবাগ থানার ওসি হারুন অর রশিদ চৌধুরীর নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এ সময় স্থানীয় বিএনপির দায়িত্বশীল নেতাদের সম্মেলন বন্ধ রাখার নিদের্শ দেন।
সেনবাগ উপজেলা বিএনপির সেক্রেটারি মোক্তার হোসেন পাটোয়ারী সম্মেলন স্থগিতের কথা স্বীকার করে স্থানীয় সংবাদিকদের বলেন, থানা পুলিশের বাধার কারণে তারা পূর্বনির্ধারিত সম্মেলন করতে পারেননি।

সেনবাগ থানার ওসি হারুন অর রশিদ চৌধুরী স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, সম্মেলনকে কেন্দ্র করে বিএনপির দুইপক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণে রাতভর এলাকায় বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে ও সম্ভাব্য সহিংসতার আশঙ্কায় সম্মেলন করতে নিষেধ করা হয়েছে। তাছাড়াও সম্মেলন অনুষ্ঠানের জন্য কেউ পূর্বে অনুমতিও নেয়নি। তাই জান-মালের কথা চিন্তা করে সম্মেলন না করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন