প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে অগ্রণী ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা হয়নি

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ মে ২০১৭, শনিবার
অগ্রণী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার পদে নিয়োগের বাছাই পর্বের পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে পরীক্ষা হয়নি। গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত এই পদে নিয়োগের বাছাই পর্বের প্রথমভাগের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ৩টায় আরেক ভাগের পরীক্ষা হওয়ার কথা থাকলেও তা স্থগিত করা হয়। এ পরীক্ষা আয়োজনের দায়িত্বে ছিল ঢাকা     
বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্স্যুরেন্স বিভাগ। ওই বিভাগের চেয়ারম্যান আবু তালেব গণমাধ্যমকে বলেন, অনিবার্য কারণবশত বিকালের পরীক্ষা স্থগিত করেছি আমরা। সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত প্রথম ভাগের পরীক্ষা শুরুর আগেই অনলাইন পত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাঁস হওয়া প্রশ্ন ছড়িয়ে পড়ে।
পরে আয়োজক কর্তৃপক্ষ বিকাল সাড়ে ৩টা থেকে সাড়ে ৪টায় নির্ধারিত দ্বিতীয় অংশের পরীক্ষা স্থগিত করে। তবে অধ্যাপক আবু তালেব গণমাধ্যমকে বলেন, বিকালের পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার কিছু অভিযোগ আমরা পেয়েছি। এ কারণে আমরা রিস্ক নিতে চাচ্ছি না। অভিযোগটি আমরা যাচাই বাছাই করবো। পরে সুবিধাজনক সময়ে পরীক্ষা নেয়া হবে। সকালে নেয়া পরীক্ষার বিষয়ে বলেন, ওটার ফাঁস হওয়ার অভিযোগ আমাদের কাছে আসেনি। তারপরও বিষয়টা খতিয়ে দেখছি। দুই ভাগ মিলিয়ে মোট দুই লাখ ৩ হাজার চাকরি প্রত্যাশীর এই নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেয়ার কথা ছিল। পরীক্ষার্থীদের সংখ্যা বিবেচনায় শুক্রবার দুই ভাগে এ পরীক্ষার ব্যবস্থা করেন ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। একাধিক পরীক্ষার্থী জানান, গতকাল দিবাগত রাত থেকে আমরা হাতে লেখা ও ছাপা প্রশ্নপত্র দেখছি। আবার শুধু উত্তরও দেখা গেছে। বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই প্রশ্নপত্র ছড়িয়ে পড়ে। রবি ইসলাম নামের এক চাকরি প্রত্যাশী বলেন, বৃহস্পতিবার রাত থেকেই শুনছিলাম প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে। সকালে হলে ঢোকার আগে দেখি প্রশ্ন দেখে দেখে উত্তর মুখস্থ করছে অনেকে। পরে পরীক্ষার হলে প্রশ্ন পাওয়ার পর দেখি হুবহু মিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের শিক্ষার্থী ও ফজলুল হক হলের আবাসিক ছাত্র রাকিবুল ইসলামও বলেন, অপরিচিত এক পরীক্ষার্থীর কাছে তিনি হাতে লেখা প্রশ্ন ও উত্তর দেখেছেন। ইংরেজি বিষয়ের অনেক প্রশ্ন পরীক্ষার মূল প্রশ্নের সঙ্গে মিলে গেছে।
অগ্রণী ব্যাংকের জনসংযোগ বিভাগের কর্মকর্তা এএম আবিদ হোসেন বলেন, নিয়োগের এই পরীক্ষার সঙ্গে অগ্রণী ব্যাংক কোনোভাবেই যুক্ত নয়। রাষ্ট্রায়ত্ত সব ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা হয় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির মাধ্যমে। ওই কমিটি এবার দরপত্রের মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং ও ইনস্যুরেন্স বিভাগকে সিনিয়র অফিসার পদে নিয়োগ পরীক্ষা আয়োজনের দায়িত্ব দিয়েছে।


 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন