দেলদুয়ারে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

বাংলারজমিন

দেলদুয়ার (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি | ১৯ মে ২০১৭, শুক্রবার
টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে নূপুর আক্তার (২১) নামের এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে শ্বশুরবাড়ির এক কিলোমিটার দূর থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। কিন্তু নিহতের মা হেনা বেগমের দাবি তার মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার পাথরাইল ইউনিয়নের নলশোধা গ্রামে।
এ ঘটনায় থানায় মামলা দিতে গেলে ওসি অপমৃত্যু মামলা নেন। পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, দেলদুয়ার সদর ইউনিয়নের টুকনীখোলা গ্রামের চান মিয়ার মেয়ে নূপুর আক্তারের তিন বছর আগে বিয়ে হয় পাথরাইল ইউনিয়নের পুরান পাথরাইল গ্রামের আশক আলীর ছেলে শিমুল মিয়ার সঙ্গে। বিয়ের কিছুদিন পর শিমুল জীবিকার সন্ধানে বিদেশে চলে যায়। এরই মধ্যে তাদের সংসারে এক কন্যাসন্তানের জন্ম হয়। শিমুল বিদেশ যাওয়ার পর তার মামাত ভাই রাকিব ও খালাত ভাই মিঠুন শিমুলের বাড়িতে নিয়মিত যাতায়াত শুরু করে। ঘটনার রাতে উভয় যুবকই শিমুলের বাড়িতে অবস্থান করছিল। শিমুলের মায়ের বরাত দিয়ে ওসি এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
এলাকাবাস ও নূপুরের মা হেনা বেগমের অভিযোগ রাতে ধর্ষণের পর তার মেয়েকে হত্যা করে লাশ বাড়ি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে নলশোধা বাজারের নিকটে বাঁশের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়। খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেন থানা পুলিশ।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে দেলদুয়ার থানার ওসি মোশাররফ হোসেন বলেন, লাশ টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে। আপাতত একটি অপমৃত্যু মামলা নেয়া হয়েছে। ধর্ষণ ও হত্যার বিষয়টি ময়না তদন্ত রিপোর্ট হাতে না পাওয়া পর্যন্ত স্পষ্ট হবে না।
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন