বিএনপি ভারতবিরোধী নয় : মির্জা ফখরুল

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৮ মে ২০১৭, বৃহস্পতিবার
বিএনপি ভারতবিরোধী নয় বলে মন্তব্য করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, আমরা ভারতের কাছে আমাদের অভিন্ন ৫৪ নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা চাই। তার মানে এই নয় আমরা ভারতবিরোধী। বিএনপি ভারতবিরোধী দল নয়। কিন্তু পানির কথা বলতে গেলে বলা হয়, আমরা ভারতবিরোধী। আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, আমরা কখনই ভারতবিরোধী নই। প্রশ্নই উঠতে পারে না ভারতবিরোধী হওয়ার। ভারত আমাদের থেকে অনেক বড় দেশ। কিন্তু আমরাও একটি স্বাধীন দেশ, আমাদের ন্যায্য অধিকারগুলো আমরা চাই। আসলে সরকারের নতজানু নীতির কারণে দেশের স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়েও ন্যায্য পাওনা আনা যাচ্ছে না। ২০ দলীয় জোটের শরিক লেবার পার্টির প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা আবদুল মতিনের ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে লেবার পার্টি আয়োজিত আলোচনা সভায় একথা বলেন তিনি। মির্জা আলমগীর বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জাতিকে একটি স্বপ্ন দেখিয়েছেন, যাকে আমরা ভিশন-২০৩০ বলেছি। ২০৩০ সালে তিনি বা তাঁর দল বাংলাদেশকে কী রকম দেখতে চান, তার একটি রূপরেখা দেয়া হয়েছে। আমরা পরিষ্কার বলেছি, ভিশন-২০৩০ একটি স্বপ্ন, একটি প্রস্তাব। যদি আমরা জনগণের ভোটে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পাই, তখন কাজগুলো কীভাবে করব, কত দূর পর্যন্ত কাজ হতে পারে, তার একটি পরিকল্পনা দেয়া হয়েছে। এর ওপর আলোচনা হতে পারে। কিছু সংযোজন হতে পারে, কিছু বাতিলও হতে পারে। কিন্তু আওয়ামী লীগের নেতা এ ভিশন নিয়ে কুতর্ক করছেন। তারা কনটেন্টে যাচ্ছেন না। তারা সত্য বিষয়টাতে যাচ্ছেন না। আমাদের প্রশ্নগুলোর কোনো জবাব দিচ্ছেন না। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও মূল্যস্ফীতি নিয়ে সরকারি তথ্যের প্রতি সন্দেহ প্রকাশ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, উন্নয়ন দেখাতে সরকার ভুল উপাত্ত দিয়ে জনগণকে বোকা বানাচ্ছে। বলছে, এখানে উন্নয়নের লহরি বয়ে গেছে। কী উন্নয়নের লহরি বয়ে গেছে! জিডিপি প্রবৃদ্ধি নিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, চলতি অর্থবছরে যেটা শেষ হবে জুন মাসে, তার প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়াবে আওয়ামী লীগ বলছে ৭ দশমিক ২৪ শতাংশ। এখানকার অর্থনীতিবিদরা, বিশ্ব ব্যাংকের অর্থনীতিবিদরা, সবাই বলছেন এটা একটা অসম্ভব ব্যাপার। কিছুতেই এটা ৬ দশমিক ৮ এর উপরে যেতে পারে না। মির্জা আলমগীর বলেন, এই যে মানুষকে প্রতারিত করা, মিথ্যা বুঝিয়ে একটা জায়গায় নিয়ে আসার চেষ্টা করা, এটা আওয়ামী লীগই পারে, তা অন্য কারও পক্ষে সম্ভব না। মূল্যস্ফীতি নিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের বক্তব্যে গলদ আছে দাবি করে তিনি বলেন, মূল্যস্ফীতি সম্পর্কে পরিকল্পনামন্ত্রী বলছেন- প্রতিমাসের যে গড় হিসাব করা হয়, এটা নাকি সঠিক না। তিনি প্রচলিত পদ্ধতি বাতিল করে তিন মাসের গড় হিসাব দিয়ে করার জন্য বলছেন। যেটা পুরো পরিকল্পনার ক্ষেত্রে একটা বড় রকমের সমস্যার সৃষ্টি করবে। সমস্ত মিথ্যা ডাটা জনগণের সামনে উপস্থাপন করবেন, জনগণকে বিভ্রান্ত করবেন, এই কাজটা তারা করছেন। গত কয়েক বছরে বিনিয়োগের পরিমাণ হিসাব করলেই সরকারের দাবির অসারতা বেরিয়ে আসবে। মির্জা আলমগীর বলেন, রেমিট্যান্সের হার কমেছে, গার্মেন্টসের প্রবৃদ্ধি যেটা বাড়ছিল, এক্সপোর্টের যে প্রবৃদ্ধি ছিল, সেটা কমে এসেছে। চালের দাম বাড়ছে। সেদিকে কোনো খেয়াল নেই। সরকার মানুষকে বোকা বানিয়ে বোঝাচ্ছে যে খুব সহজে তারা মধ্য আয়ের দেশে পরিণত করবে। এর একমাত্র উদ্দেশ্য ক্ষমতাকে চিরস্থায়ীভাবে প্রতিষ্ঠা করা। তিনি বলেন, দেশে রাজনীতি নেই উল্লেখ করে মির্জা আলমগীর বলেন, দেশে এখন আর রাজনীতি নেই। রাজনীতি এখন আওয়ামী লীগ নিজেদের হাতের মুঠোই নিয়েছে। তারা যেভাবে ইচ্ছে ব্যবহার করবে। মির্জা আলমগীর নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, সরকারের মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে আমাদের রাজপথে নেমে আসতে হবে। দেশকে, জাতিকে ভুল পথে প্রতিষ্ঠা করার যে প্রচেষ্টা এই প্রচেষ্টাকে বন্ধ করতে হবে। জনগণের অধিকার জনগণকে ফিরিয়ে দিতে হবে। খালেদা জিয়া এই বিষয়ে বারবার বলছেন, আসুন আমরা আলোচনা করি। আলোচনার মাধ্যমে এটির সমাধান করতে পারি। দেশে এখনও একদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের অবস্থা সৃষ্টি হয়নি। এই কারণেই নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে। নির্বাচনকে অবশ্যই সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য হতে হবে। লেবার পার্টি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় জাগপার সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, এনপিপি চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, লেবার পার্টির মহাসচিব হামদুল্লাহ আল মেহেদী, কেন্দ্রীয় নেতা আব্দুল মান্নান, ফরিদউদ্দিন, ফারুক রহমান, এমদাদুল হক চৌধুরী, শামসুদ্দিন পারভেজ, মাসুদ খান ও আহসান হাবিব ইমরোজ বক্তব্য দেন।

 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন