নবীনগরে মেয়রের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ ১০ কাউন্সিলরের

বাংলারজমিন

নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়ীয়া) প্রতিনিধি | ১৮ মে ২০১৭, বৃহস্পতিবার
ব্রাহ্মণবাড়ীয়ার নবীনগর পৌরসভার মেয়রের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে কোটি টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ তদন্তের আবেদন জানিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবরে ১০ কাউন্সিলর অভিযোগ দাখিল করেছেন।
মেয়রের বিরুদ্ধে গত ১১ মে জেলা প্রশাসকের কাছে দাখিলকৃত অভিযোগ থেকে জানা যায়, পৌর কাউন্সিলদের মতামত, পরামর্শ ও পৌরসভার সকল নিয়মকানুন উপেক্ষা করে বেআইনীভাবে সেচ্ছাচারীতার মাধ্যাম স্বীয় ক্ষমতা অপব্যবহার করেছেন মেয়র। পৌর সভার ৫নং ওয়ার্ডে ইদন মিয়ার বাড়ি হতে আলীয়াবাদ পশ্চিম পাড়া  পর্যন্ত রাস্তা নির্মান কাজ যাহা স্থানীয় এমপি ফয়জুর বাদল তার নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণ করেন। মেয়র সু-কৌশলে কাউন্সিলদের অজ্ঞাতসারে গতবছরের ৩০শে মে পত্রিকার বিজ্ঞপ্তির মাধ্যামে কিছু কাজের দরপত্র আহবান করেন। এমপি মহোদয়ের নিজস্ব অর্থায়নে তৈরী উক্ত প্রকল্পের প্রাক্কলিক ৩০ লাখ ৯৫ হাজার সাতশত ঊনষাট টাকা দেখিয়ে সিডিউলে ঢুকিয়ে দেন। এবং এমপির দোহাই দিয়ে ওই প্রকল্পের সিডিউল বিক্রি না করে তার আজ্ঞাবাহ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নামে টেন্ডারপ্রাপ্তি দেখিয়ে উক্ত টাকা আত্মসাৎ করেন। পৌরসভার নিজস্ব দুটি রোলার মেশিন রয়েছে, নিয়ম অনুযায়ী কোন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান রোলারের ভাড়া পে-অর্ডারের মাধ্যমে অগ্রিম জমা করে তবেই রোলার ব্যবহার করবেন। কিন্তু মেয়র নগদ অর্থ নিয়ে তা ভাড়া দিচ্ছেন। প্রতিদিনের দুইটি রোলারের ৪ হাজার টাকা ভাড়া হিসাবে মেয়াদকালীন সময়ে ছয়ত্রিশ লাখ টাকা পৌর তহবিলে জমা না করে তা আত্মসাৎ করেন।এ ব্যাপারে মেয়র মাঈনদ উদ্দিন মাঈনু তার বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ মিথ্যা,কাল্পনিক ও ভিত্তিহীন উল্লেখ করে বলেন, আমাকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করতে কোন কু-চক্রীমহল যড়যন্ত্র করছে। পৌরসভায় এ পর্যন্ত যা কিছু কাজ হয়েছে পরিষদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক নিয়ম নীতির মধ্য দিয়ে হয়েছে। কেন তারা এ ধরনের ভিত্তিহীন অভিযোগ আনলেন অবগত নই,যদি আমি অন্যায় করে থাকি তাহলে তদন্ত হউক।

 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন