পাহাড়ে টাকার লোভ দেখিয়ে যুবকদের দলে ভিড়াচ্ছে সন্ত্রাসীরা

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ মে ২০১৭, রবিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৫৫
ঘোষণা দিয়ে তিন পার্বত্য জেলায় খুন, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করছে সশস্ত্র গ্রুপের সদস্যরা। পার্বত্য চট্টগ্রামে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা প্রতি বছর ৪০০ কোটি টাকা চাঁদা আদায় করে। আদায়কৃত চাঁদার টাকা দিয়ে তারা জুম্মল্যান্ড প্রতিষ্ঠার জন্য অবৈধ অস্ত্র ক্রয় করে। সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপের যোগসাজশে পার্বত্য চট্টগ্রামে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করার মানসেই নাগরিক প্রতিনিধি দলের ব্যানারে পঙ্কজ ভট্টাচার্য গং লামায় আসে। এছাড়া অর্থের লোভ দেখিয়ে পাহাড়ের শান্তিপ্রিয় ম্রো সম্প্রদায়ের যুবকদের নিজেদের দলে ভিড়াচ্ছে সশস্ত্র সংগঠনগুলো। এসব করে তারা নিজেদের দলবদ্ধ শক্তি বাড়াচ্ছে।
ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ম্রো সমপ্রদায়ের নেতৃবৃন্দ সম্প্রতি লামা বাজারে একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে এসব বক্তব্য তুলে ধরেন। এ সময় তারা নাগরিক প্রতিনিধি দলের ঢাকায় সংবাদ সম্মেলনে আনীত অভিযোগের প্রতিবাদে পাল্টা অভিযোগ তুলে ধরেন। নাগরিক প্রতিনিধি দলের সদস্যদের উদ্দেশ্যে ম্রো নেতরা বলেন, উপজাতি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী মুরং সমপ্রদায় তাদের দীর্ঘদিনের দাবি দাওয়া নিয়ে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অবরোধ পালন করেছে। এতে নিরাপত্তা বাহিনীর কোনো সম্পৃক্ততা ছিল না। তবে নিরাপত্তাবাহিনী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জড়িয়ে লাগামহীন মিথ্যাচারমূলক বক্তব্য দিয়ে পাহাড়ের পরিবেশকে অশান্ত করার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। পাহাড়ের কোনো বিষয়ে কথা বলার আগে ত্রিশ হাজার বাঙালি ও উপজাতি খুনের নায়ক শন্তু লারমাকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর জন্য সরকারকে বলুন। এতেই বুঝবো আপনারা সত্যিকারের মানবাধিকার কর্মী। তারা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামকে বেসামরিকরণের দাবি জানিয়ে নাগরিক প্রতিনিধি দলের সদস্যরা রাষ্ট্রদ্রোহিতার অপরাধ করেছে। পুনরায় পার্বত্য চট্টগ্রামে প্রবেশের চেষ্টা করলে তাদের প্রতিহত করা হবে। সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন ম্রো কল্যাণ সংসদের সভাপতি মেনরুম ম্রো। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ম্রো কারবারি মেনরুম ম্রো, গিলা চন্দ্র ত্রিপুরা, ইয়াংলক ম্রো, মংবুশে মারমা, রনি চন্দ্র ত্রিপুরা, বীর চন্দ্র  ত্রিপুরা। এ সময় শতাধিক ম্রো, ত্রিপুরা ও মারমা জনগোষ্ঠীর লোকজন উপস্থিত ছিলেন। ম্রো নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, পাহাড়ে ঘোষণা দিয়ে জেএসএস, পিসিপি ও ইউপিডিএফ অপহরণ, খুন, চাঁদাবাজিসহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে একবারও কি পার্বত্য চট্টগ্রামে আপনারা সফর করে সচিত্র প্রতিবেদন আকারে সমাধানের জন্য সরকারের নিকট কোনো সুপারিশ করেছেন? নাকি এখনো ঘুমের ঘোরেই আছেন?

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

অস্ট্রেলিয়া গেলেন প্রধান বিচারপতির স্ত্রী সুষমা সিনহা

মৌলভীবাজারে শোকের মাতম

বিয়ানীবাজারের খালেদের দুঃসহ ইউরোপ যাত্রা

১১ দফা প্রস্তাব নিয়ে ইসিতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ

‘প্রধান বিচারপতি ফিরে এসেই কাজে যোগ দিতে পারবেন’

খালেদা জিয়া ফিরছেন আজ

ব্লু হোয়েলের ফাঁদে আরো এক কিশোর

তিন ইস্যু গুরুত্ব পাবে সুষমার সফরে

প্রি-পেইডে সুবিধা বেশি আগ্রহ কম

ভারত থেকে ৩৭৮ কোটি টাকার চাল কিনছে সরকার

ছাত্রলীগ কর্মী মিয়াদ খুন নিয়ে উত্তপ্ত সিলেট

ইস্যু হতে পারে সমস্যার পাহাড়

দ্বিতীয়বার সংসার না করায় খুন

যেভাবে পালিয়ে আসছে রোহিঙ্গারা, ড্রোন থেকে নেয়া ভিডিও

সিলেটে কাল থেকে পরিবহন ধর্মঘট

ফুটবলকে বিদায় জানালেন কাকা